সরকার যদি এক তরফা নির্বাচন করতে চায় তাহলে দেশের মানুষ তা প্রতিহত করবে, কুমিল্লার মুরাদনগরে গনসংযোগকালে —ব্যারিষ্টার রফিক

মুরাদনগর (কুমিল্লা) প্রতিনিধি :–
বিএনপির স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী আলহাজ্ব ব্যারিষ্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া বলেছেন, বর্তমান সরকারের অধীনে বিএনপি নির্বাচনে যাবে বলে সরকার যে কথা বলছে তা পাগলের প্রলাপ ছাড়া আর কিছুই নয়। আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই র্নিদলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া বিএনপি কোন নির্বাচনে যাবে না এবং বাংলাদেশের মানুষ এই নির্বাচন মেনে নেবে না। সরকার যদি এক তরফা এ ধরনের এক দলীয় নির্বাচন করতে চায় তাহলে দেশের মানুষকে সাথে নিয়ে ১৮ দলীয় জোট এ নির্বাচন প্রতিহত করবে। ইতিমধ্যেই জনগণ কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, গাজীপুর, বরিশাল, খুলনা ও সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপিকে ভোট দিয়ে প্রমাণ করেছে দেশের জনগণ তত্ত্বাবধায়ক পদ্ধতিতে ফিরে যেতে চায়।
ব্যারিষ্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া শনিবার কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার শ্রীরামপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এক পথ সভায় এ কথা বলেন। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন তাঁর সহধর্মীনী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন ড. শাহিদা রফিক, চাপিতলা ইউপি চেয়ারম্যান ও জেলা যুবদল নেতা মামুনুর রশীদ ভুইয়া, সাবেক চেয়ারম্যান সামসুল হক মাস্টার মানিক, জেলার বিএনপি নেতা একেএম গোলাম সারওয়ার বাদল, ইঞ্জিনিয়ার ইফতেখার হোসেন, সফিকুল ইসলাম, জাহাঙ্গীর হোসেন, জেলা যুবদল নেতা অরূপ নারায়ন পোদ্দার পিংকু, হারুনুর রশীদ নাজু, স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় নেতা মোখছেদুর রহমান আবির, যুবদল নেতা জামাল মুন্সী, সবুজ মিয়া, কামরুল হাসান, খলিল মিয়া ও ইউপি সদস্য ফিরোজা আক্তার প্রমুখ। ব্যারিস্টার রফিক এর আগে চাপিতলা ভুইয়া বাড়ি কবরস্থান উন্নয়নের কাজ উদ্বোধন করেন। পরে তাঁর বাবা আব্দুল ওয়াদুদ ও মাতা বেগম দুবরাজের নেছার কবর জিয়ারত করেন এবং আয়োজিত এক স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন। কুমিল্লা ফেরার পথে তিনি রহিমপুর হেজাজিয়া এতিমখানা ও হাফেজিয়া মাদ্রাসা পরিদর্শন করেন।
ব্যারিষ্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার জন্য শেখ হাসিনার নেতৃত্ব আওয়ামীলীগ জামায়াত জাতীয়পার্টিকে নিয়ে টানা ৯৬ ঘন্টাসহ ১৭৩ দিন হরতাল দিয়েছে। দেশের অর্থনীতিকে পঙ্গু করে দিয়েছিল। আপোষহীন দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া সেদিন গণরায়ের প্রতি সম্মান দেখিয়ে ১৫ ফেব্র“য়ারি নির্বাচন করে সংক্ষিপ্ত সরকার গঠন করে সংবিধানে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা কায়েম করেছিল। তারপর ৩টি নির্বাচন হল যার দুটিতেই জয়লাভ করল আওয়ামীলীগ। তারপরও তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার মত একটি মীমাংসিত বিষয়কে বাতিল করে তারা একদলীয় নির্বাচনের নামে বাকশাল কায়েম করতে চাচ্ছে। তিনি বলেন, সরকার আজ আদালতের কথা বলছে অথচ এই আদালতই আরো ২টি নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে করতে বলেছে। এমন কি আদালত যে এমিকিউরিটিস নিয়োগ করেছিল সেখানেও মাত্র একজন ছাড়া সবাই তত্ত্ববধায়ক সরকার ব্যবস্থার কথা বলেছে। যখন দেখছে তাদের সীমাহীন দুর্নীতি ও অপকর্মের কারণে জনগণ তাদের কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে তখনি আবার ক্ষমতায় আসার লালসায় তারা তত্তাবধায়ক সরকার বাতিল করেছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply