ব্রাহ্মনপাড়ায় বিভিন্ন কলেজ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩৫ জন, মোশাররফ খাঁন কলেজ কুমিল্লা বোর্ডের টপ-১২

ব্রাহ্মনপাড়া প্রতিনিধি :–
শনিবার ৩ আগস্ট সারা দেশে প্রকাশিত এইচ.এস.সি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ ও শিক্ষকদের উপস্থিতিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আজিজুর রহমান ও মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ শহীদুল করিম ঘোষনা করেন। প্রকাশিত ফলাফলে ব্রাহ্মণপাড়ায় ১০টি কলেজের মোট ১৪৫০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১০৮১ জন। পাশের হার ৭৬.৩১%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩৫ জন। ৮টি মাদ্রাসার ২১৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ২০৫ জন। পাশের হার ৯৫.৭৯%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৪ জন।
ব্রাহ্মণপাড়ায় কলেজ থেকে প্রাপ্ত জিপিএ’র মধ্যে মোশাররফ হোসেন খান চৌধুরী ডিগ্রী কলেজ থেকে সাধারণ শাখায় উপজেলার সর্বোচ্চ ১৭ জন জিপিএ-৫ এবং কারিগরি শাখা থেকে ৩জন জিপিএ-৫ পেয়ে কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের টপ-২০ তালিকার ১২তম স্থান অর্জন করেছে। অপরদিকে শশীদল আলহাজ্জ মোহাম্মদ আবু তাহের কলেজ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১১ জন, আমীর হোসেন জোবেদা কলেজ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩জন, গোপালনগর আদর্শ কলেজ থেকে জিপিএ-৫ ৩জন, বড়ধুশিয়া আদর্শ কলেজ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১জন।
শশীদল আলহাজ্ব মুহাম্মদ আবু তাহের কলেজে ১৯৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১৯৪ জন। জিপি-৫ পেয়েছে ১১ জন। মোশারফ হোসেন খাঁন চৌধুরী কলেজে ৩১১জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ২৮৭জন। পাশের হার ৯২.২৮%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৭জন। সাহেবাবাদ ডিগ্রী কলেজে ২৩৭ জনের মধ্যে পাশ করেছে ১৬২ জন। পাশের হার ৬৮.৩৫%। সিদলাই আমির হোসেন জোবেদা কলেজে ১৬১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১০০জন। পাশের হার ৬২.১১%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩ জন। নাগাইশ বঙ্গবন্ধু কলেজে ৫২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৫১জন। পাশের হার ৯৮.০৪%। বড়ধুশিয়া আদর্শ কলেজে ১০৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৮৬জন। পাশের হার ৮১.১৩%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১জন। আবদুল মতিন খসরু মহিলা কলেজে ১১৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৮১জন। পাশের হার ৭০.৪৩%। অধ্যক্ষ আবদুল মজিদ দেওয়ান কলেজে ১৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১৪জন। আসাদনগর আবদুল মতিন খসরু কলেজে ১১জন পরীক্ষা দিয়ে পাশ করেছে ৬ জন। গোপালনগর আদর্শ কলেজে ১১০জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১০০জন। পাশের হার ৯০.৯১%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩জন।
এদিকে উপজেলার মধ্যে সর্বোচ্চ সংখ্যক পরীক্ষার্থী নিয়ে বিগত ৩ বৎসর কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের ২০০৯ সালে টপ-১০ তালিকার মধ্যে ১০ তম, ২০১২ সালে টপ-২০ তালিকায় ১৫তম, ২০১৩ সালে টপ-২০ তালিকায় ১২তম স্থান অধিকার করায় শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন কলেজ প্রতিষ্ঠাতা বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী ও সমাজ সেবক আমেরিকা প্রবাসী মোশাররফ হোসেন খান চৌধুরী। তিনি খুশি ব্যক্ত করতে গিয়ে এ’প্রতিনিধিকে বলেন। আমি প্রবাস জীবনে কষ্ট করে এলাকায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান করে তদারকি করে আসছি। ক্রমান্বয়ে ভাল ফলাফল পেলে আমি নিজেকে স্বার্থক করে করি। আমি সকলকে প্রাণ খুলে বলতে চাই, নিজ অবস্থান থেকে যে কেউ উদ্দ্যোগ গ্রহণ করলে, আমার মত ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা একদিন বৃহৎ হয়ে প্রকাশ পাবে। এলাকায় শিক্ষার আলো ছড়াবে। মানুষ উপকৃত হবে। সকলের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় আমাদের দেশ একদিন সোনার বাংলাদেশ হিসেবে বিশ্বদরবারে মাথা উচু করে দাড়াবে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply