১৬ বছরের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি দিয়ে ঢিমেতালে চলছে মুরাদনগর উপজেলা আওয়ামীলীগ : নেতা-কর্মীরা নিষ্ক্রিয়

মো. হাবিবুর রহমান, মুরাদনগর (কুমিল্লা) :–
দীর্ঘ ১৬ বছর আগে গঠিত ও মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি দিয়ে চলছে কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলা আওয়ামীলীগ। প্রভাবশালী নেতাদের কারণে পরিবর্তন আসছে না কমিটিতে। ফলে এ উপজেলার পদপ্রত্যাশী ত্যাগী নেতারা ক্রমেই নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ছেন। এতে আগামি সংসদ নির্বাচনে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলের নেতা-কর্মীরা।
দলীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলা আওয়ামীলীগের কার্যনির্বাহী কমিটির এক সভা গত ১৮ মে অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সরকারের নির্দেশনায় ৩১ মে উপজেলার কোম্পানীগঞ্জ বদিউল আলম কলেজ মাঠে সম্মেলন করার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়। সম্মেলন উপলক্ষে ৩০ মে সন্ধ্যায় কোম্পানীগঞ্জ বাজারে প্রস্তুতিমূলক সভায় কমিটি করার সিদ্ধান্ত না থাকলেও হঠাৎ করেই জাহাঙ্গীর আলম সরকার নির্বাচনের মাধ্যমে নতুন কমিটি করার ঘোষণা দেন এবং যারা প্রার্থী হবেন তাদেরকে দাড়িয়ে নাম বলার আহবান জানান। এতে হতবিহ্বল হয়ে পড়েন নেতা-কর্মীরা। এসময় সভাপতি পদে বর্তমান সভাপতি আলহাজ্ব হারুন আল-রশীদ, ২৯ বছরের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আবুল কালাম আজাদ, কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা আ.ক.ম গিয়াস উদ্দিন ও আবুল আয়েস খান, সাধারণ সম্পাদক পদে পার্থ সারথী দত্ত, কামাল উদ্দিন চেয়ারম্যান, কাজী আবুল খায়ের চেয়ারম্যান, শরিফুল ইসলাম চেয়ারম্যান, স্বপন কুমার সাহা, অহিদুজ্জামান সরকার জামাল, মাশুকুল ইসলাম মাশুক, মোসলেহ উদ্দিন ও আবুল কালাম আজাদ তাদের ঘোষণা করেন। ওই সভায় কয়েকজন বক্তা বলেন, আগামীকাল (৩১ মে) সম্মেলন, কাউন্সিলর তালিকা চুড়ান্ত হয়নি এবং কাউন্সিলর কার্ডও তাদের কাছে পৌঁছেনি- এ অবস্থায় সম্মেলনের কয়েক ঘন্টা আগে নির্বাচনের মাধ্যমে কমিটি করার সিদ্ধান্ত অসাংগঠনিক ও প্রহসন মাত্র। এতে দল ক্ষতিগ্রস্ত হবে। পরদিন ৩১ মে তুমুল হট্টগোলের মধ্যদিয়ে পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে একটি কমিটি করার আশ্বাসের মধ্যদিয়ে সম্মেলন শেষ হয়। এদিকে প্রায় ২ মাস অতিক্রান্ত হলেও কমিটির বিষয়ে আজো কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। এতে দলীয় নেতা-কর্মীদের মাঝে চরম ক্ষোভ আর হতাশা বিরাজ করছে।
এ বিষয়ে সভাপতি প্রার্থী আ.ক.ম গিয়াস উদ্দিন ও আবুল আয়েস খান জানান, ‘১৬ বছরের পুরানো কমিটি সাংগঠনিক কর্মকান্ডে ব্যর্থ হয়েছে। একটি মহল এখানে দলীয় নেতাদের ওপর ভর করে আওয়ামীলীগকে নিষ্ক্রিয় রাখার পাঁয়তারা করছে।’ সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী পার্থ সারথী দত্ত জানান, ‘নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টি না হলে মুরাদনগর উপজেলা আওয়ামীলীগ সাইনবোর্ড সর্বস্ব হয়ে পড়বে। দলের কোন ক্ষতি আমরা মেনে নেব না।’ অপর প্রার্থী কাজী আবুল খায়ের চেয়ারম্যান জানান, ‘সহসাই যদি উপজেলা আওয়ামীলীগের কমিটি গঠন করার কোন সিদ্ধান্ত নেয়া না হয়, তাহলে জেলা আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।’ একইপদে অপর প্রার্থী কামাল উদ্দিন চেয়ারম্যান জানান, ‘কমিটি ঘোষণা না হওয়ার কারণে নেতা-কর্মীদের মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে এবং তারা সংগঠন বিমুখ হয়ে পড়ছেন।’

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply