ব্রাহ্মণপাড়ায় জমে উঠেছে ঈদের বাজার

সৈয়দ আহাম্মদ লাভলুঃ–

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা সদরের বিভিন্ন মার্কেটে আসন্ন ঈদ উল ফিতর উপলক্ষে ইতিমধ্যেই বেচা কেনার ধুম পড়ে গেছে। সকাল থেকেই দিনব্যাপী প্রচুর পরিমানে ক্রেতাদের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। সরেজমিন পরিদর্শন পূর্বক দেখা যায়, উপজেলা সদর এলাকার রশীদ মার্কেট, হাজী নায়েব আলী মার্কেট, অহিদ মার্কেট, মিয়াজী মার্কেটসহ উপজেলা সদরের কুমিল্লা-ব্রাহ্মণপাড়া-মীরপুর সড়কের বিভিন্ন কাপড়ের দোকান, জুতার দোকান, কসমেটিকস্ এর দোকানগুলোতে ক্রেতারা ভীড় জমাচ্ছেন। ক্রেতাদের মধ্যে মহিলা ও বাচ্চাদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মত। দিনব্যাপী অত্যান্ত নিরাপত্তার সহিত ক্রেতারা বিভিন্ন সামগ্রী ক্রয় করতে পেরে স্বাচ্ছন্দ বোধ করছেন। তবে তারা অভিযোগ করে বলেছেন গত বছরের তুলনায় এবছর জামা-কাপড়ের দাম অনেকটা বেশী। এমি কসমেটিকস্ এর মালিক এনামুল হক, মাহমুদ ফ্যাশনের মালিক মমিনুল হক খাঁন ও শুভা ফ্যাশন এর মালিক জাহিদ হাছান এ প্রতিনিধিকে জানান, মহিলাদের মেহেদি, কানের জিনিষ, দুলসহ নানা ধরনের কসমেটিকস্ আইটেমের ঈদ উপলক্ষে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। এবারে মার্কেটে ইন্ডিয়ান কাপড়ের চাহিদা অনেক বেশী, এরমধ্যে আছে মেয়েদের থ্রীপিছ-ঝিলিক, চমকা, টাপুর টুপুর, বাচ্চাদের বিভিন্ন ধরনের কাপড়ের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ইন্ডিয়ান আসিকি টু। রশিদ মার্কেটে ক্রয় করতে আসা কল্পবাস গ্রামের ক্রেতা মোঃ কাউছার জানান, ইন্ডিয়ান কাপড়ের মান বাংলাদেশের কাপড়ের চেয়ে ভাল। তবে গতবছরের চেয়ে এবারে দাম অনেক বেশী। বড়ধুশিয়া গ্রামের শিরিন আক্তার এ প্রতিনিধিকে জানান, সবকিছুর দামই হাতের নাগালের বাইরে চলে গেছে। যে বাজেট করে মার্কেট করতে এসেছিলাম সে বাজেটে মাত্র অর্ধেক কেনা-কাটা করেছি। বাড়ীর সকলের চাহিদা এবারের ঈদে হয়তোবা পুরন করা সম্ভব হবেনা। তবে ব্যাবসায়ীরা বলছেন কাপড়ের দাম পূর্বের তুলনায় কিছটা বৃদ্দি পেলেও এর মান আগের চেয়ে ভাল। এবারে ভাল ব্যাবসা হবে বলে তারা আশাবাদ ব্যাক্ত করেন। প্রতিটি মার্কেটেই এবার প্রতারকের হাত থেকে রেহাই পাবার জন্য আগে থেকেই বিভিন্ন দোকানের মালিক ও মার্কেটের মালিকরা বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছেন। ক্রেতাদের মধ্যে কোন প্রতারক মিশে আছে কিনা তারা তা সতর্কতার সহিত পর্যবেক্ষণ করছেন। তবে সমাজের দিনমজুরসহ যারা নি¤œ আয়ের মানুষ আছেন, তারা অপেক্ষায় আছেন কখন ধণ্যাঢ্য ব্যাক্তিরা তাদের যাকাতের কাপড় নিয়ে এলাকায় আসবেন। চান্দলা গ্রামের দিনমজুর কলিম উদ্দিন বলেন, ভাই ঈদতো আমাদের গরীব মানুষের জন্য না। ঈদ শুধু বড়লোকদের জন্য। জামাকাপড়ের যে দাম, নতুন কাপড়-চোপর ছেলে মেয়েদের হাতে তুলে দেবার সামর্থ আমার নেই,তাই পুরুনো কাপড়ই আমাদের সম্বল।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply