নাঙ্গলকোটে সালেহা হত্যাকারী পাষন্ড স্বামী প্রকাশ্য ঘুরে বেড়াচ্ছে! বাদীকে মামলা তুলে নেয়ার হুমকি-

কুমিল্লা প্রতিনিধি:–
পাষন্ড স্বামীর এসিড মিশ্রিত ইনজেকশনে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে গত ৩০ শে জুন ঢাকা মেডিকেলে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার মামীরপাড় গ্রামের গৃহবধূ সালেহা বেগম(৩৫)। স্বামী মো: কামাল হোসেনকে প্রধান আসামী করে মামলা করা হলেও থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করছে না। পাষন্ড স্বামী বুক ফুলিয়ে প্রকাশ্য ঘুরে বেড়াচ্ছে।ঘটনার বিবরনে জানা যায়,৮ বছর পূর্বে সালেহার বিয়ে হয় একই ইউনিয়নের জয়াগ গ্রামের কামাল হোসেনের সাথে। ইতিমধ্যে সালেহা ৩ সন্তানের জননী। কিন্তু স্বামীর চরিত্র নিয়ে তার বিভিন্ন সময়ে আপত্তি জানিয়ে বাকবিতন্ডা হয়েছে। এতে কর্ণপাত না করে তার উপর শারীরিক ও মানষিক ভাবে নির্যাতন চালিয়েছে। স্বামীর অত্যাচারের প্রায় যোগ দিতেন শাশুড়ী সহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা। তাদের অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে সালেহা বাবার বাড়ীতে চলে যায়। এর মধ্যে পরিকল্পনা করে সালেহাকে হত্যার এক পর্যায়ে নিযার্তন না করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে পাষন্ডস্বামী তার বাড়ীতে নিয়ে যায়। ২/১ দিন পর সালেহা তার শরীর অসুস্থতার কথা বললে স্বামী পরিকল্পনা অনুযায়ী নিজ হাতে একটা ইনজেকশান পুশ করতে চায়। সালেহা সাভাবিক ভাবে ইনজেকশান নিতে রাজী হয় নাই,এ কারনে জানে স্বামীর ইনজেকশান পুশের কোন অভিজ্ঞতা নাই। সালেহা গড়িমসি শুরু করলে কামালের মা ও কাজল বেগম জোর করে চেপে ধরে পাজাঁর মাঝে বিষাক্ত এসিড ইনজেকশান পুশ করে। সাথে সাথে ইনজেকশানের বিষক্রিয়ায় হাউমাউ করে বাচাঁও বাচাঁও বলে চিৎকার করতে থাকে। বিষাক্ত এসিড ইনজেকশানের বিষক্রিয়া সালেহার শরীরের জ্বালা পোড়া আরো বেড়ে গেলে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসে। তৎক্ষনাৎ সালেহার বাবার বাড়ীতে খবর দিলে তার ভাই তাদের বাড়ীতে নিয়ে গ্রাম্য ডাক্তার দেখায়। অবস্থা বেগতিক দেখে তারা প্রথমে নাঙ্গলকোট হাসপাতালে পরে কুমিল্লা মেডিকেলে নেয়া হয়। সেখানেও অবস্তা আরো বেগতিক দেখা দিলে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করেন। ৭ দিন মৃত্য্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে ৩০ জুন সালেহা মৃত্যুর কাছে আত্মসর্মপণ করে। এ নিয়ে প্রথমে রাজধানীর শাহবাগ থানায় জিডি হয় যাহার নং১৬০৫ তারিখ ৩০/০৬/২০১৩ এবং নাঙ্গলকোট থানায় হত্যা মামলা রুজু করা হয় যাহার নং ০২/৯৭ তাং ০২-০৭-২০১৩ ইং ধারা ৩০২/৩৪। বর্তমানে মামলা তদন্তাধীন রয়েছে। মামলার প্রধান আসামী কামাল হোসেন প্রকাশ্য ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং মামলা তুলে নেয়ার জন্য
বাদীকে হুমকি দিচ্ছে। শোনা যাচ্ছে আসামীরা মামলা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে মোটা অংকের বাজেট ঘোষনা করছে। এলাকাবাসী কামাল হোসেনের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবী করছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply