দিনে পুলিশ রাতে ডাকাত, দিশেহারা পরিবহণ শ্রমিক

আল আমীন শাহীন :–

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল এলাকায় বিভিন্ন সড়ক-মহাসড়কে দিনে হাইওয়ে পুলিশের অর্থবাণিজ্য ও রাতে ডাকাতির ঘটনায় পরিবহণ শ্রমিকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

শ্রমিকদের অভিযোগ, হাইওয়ে পুলিশ দিনদুপুরে মহাসড়কে গাড়ি আটক করে ড্রাইভিং লাইসেন্সসহ কাগজপত্র চেকের নামে বেকায়দায় ফেলে টাকা হাতিয়ে নেয়। রাতে ডাকাত দল সড়কে ব্যারিকেড দিয়ে গাড়িতে থাকা লোকদের কাছ থেকে টাকা ছিনিয়ে নেয়। এসব ঘটনায় তারা আর্থিক ও মানসিকভাবে মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্তের শিকার হচ্ছেন।

ভুক্তভোগী পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা অভিযোগ করে বলেন, “ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সরাইল বিশ্বরোড মোড় এলাকায় বিভিন্ন গাড়ি আটকের পর কৌশলে হাইওয়ে পুলিশের টাকা আদায় এবং মহাসড়কের সরাইল এলাকায় ও সরাইল-নাসিরনগর সড়কে রাতে যাত্রীবাহী গাড়িতে ডাকাতির ঘটনা দিন দিন বেড়েই চলেছে।”

সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উত্তম কুমার চক্রবর্তী দাবি করেন, এখানে রাতে বিভিন্ন সড়কে যানবাহনে ডাকাতির ঘটনা কমেছে। সড়ক ডাকাতির সঙ্গে জড়িত বেশ কয়েকজনকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। বাকিদের গ্রেফতারে পুলিশের বিশেষ অভিযান অব্যাহত আছে।

অপরদিকে সরাইল বিশ্বরোড খাটিহাতা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সার্জেন্ট মো. হানিফ মিয়া দাবি করেন, এখানে গাড়ি আটক করে টাকা নেয়ার বিষয়টি ভিত্তিহীন। অনেকে নানা কারণে ক্ষুব্ধ হয়ে এসব মিথ্যা অভিযোগ করেছে।

সরাইল কালীকচ্ছ এলাকার বাসিন্দা ট্রাকচালক আল আমিন জানান, প্রায়ই ভোরে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সরাইল উপজেলার ইসলামাবাদ এলাকায় সার্জেন্ট হানিফ মিয়ার নেতৃত্বে হাইওয়ে পুলিশের একটি দল যানবাহন থামিয়ে চালককে হয়রানি ও মামলার ভয় দেখিয়ে টাকা নেন।

শাহবাজপুর এলাকার সিএনজি অটোরিকশাচালক মো. জীবন মিয়া জানান, রেজিস্ট্রেশনবিহীন অটোরিকশা আটক করে হাইওয়ে পুলিশ ৫০০ থেকে ১৫০০ টাকা দাবি করে। টাকা না দিলে মামলা দেয়। হাইওয়ে পুলিশের বেপরোয়া বাণিজ্যে বিশ্বরোড এলাকায় অটোরিকশার চালকরা চরম আতঙ্কে থাকেন।

নোয়াগাঁও এলাকার বাসিন্দা বাসচালক জামাল মিয়া জানান, খাটিখাতা ফাঁড়িতে সার্জেন্ট হানিফ যোগদানের পর থেকে মহাসড়কের বিশ্বরোড এলাকায় হাইওয়ে পুলিশ বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তারা টোকেন সিস্টেম চালু করে কাগজপত্রবিহীন অনেক গাড়ি থেকে প্রতিমাসে ৫০০ টাকা করে নিচ্ছেন।

সরাইল উপজেলা পরিবহন শ্রমিক নেতা মো. সোনা মিয়া জানান, এখানে ডাকাতের ভয়ে অনেক সড়কে সন্ধ্যার পর যান চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে। দিনের বেলায় পুলিশের হয়রানি। এসবে শ্রমিকরা অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন।

সরাইল উপজেলা সিএনজি অটোরিকশা মালিক-শ্রমিক ঐক্য সমিতির সভাপতি মো. ওয়াসিদ আলী জানান, রাতে সড়কে ডাকাতি রোধ ও দিনে পুলিশের অর্থবাণিজ্য বন্ধ করতে যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে সমিতির লোকেরা বরাবরই দাবি জানিয়ে আসছেন।

তিনি জানান, এখানকার হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সার্জেন্ট হানিফ মিয়া শ্রমিক হয়রানি বন্ধের কথা দিয়েছেন।

Check Also

আশুগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামির মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :– ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মো. হারুন মিয়া (৪৫) নামে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামির ...

Leave a Reply