লাকসামে ক্যামিকেল মেশানো ফলে সয়লাব: প্রশাসন নিস্ক্রিয়

জামাল উদ্দিন স্বপন, কুমিল্লা :–

কুমিল্লার লাকসামসহ আশপাশের উপজেলায় বিষাক্ত ক্যামিকেল মিশ্রিত ফলে বাজার সয়লাব হয়ে পড়েছে। তবে এ ব্যাপারে প্রশাসনের ভূমিকা নিস্ক্রিয়। রাসায়নিক স্প্রে আর ফরমালিন দেদারসে ব্যবহৃত হচ্ছে ফলে। ‘ফল নয় যেন বিষ’। এ মধু মাসে আমরা ফলের নামে বিষ খাচ্ছি। আম, জাম, কাঁঠাল, কলা, লিচু, আপেল, আনারসসহ প্রায় প্রতিটি ফলই এখন বিষাক্ত ফরমালিন তথা ক্যামিকেল মাখানো। রাসায়নিক বিক্রিয়ায় এসব ফলে মাছি বসতে দেখা যায় না। আসন্ন রমজান মাসে রোজাদার মুসল্লীদের রাসায়নিক যুক্ত ফল দিয়েই ইফতার করতে হবে। আর এসব ফল খেয়ে নানা অসুখে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি রোজাদারদেরও রয়েছে।
বাজারে বিষাক্ত ক্যামিকেল মিশ্রিত ফলগুলো দেদারছে বিক্রিও হলেও প্রশাসন দৃশ্যত নিরব। লাকসামের মেইনরোড, নোয়াখালী রোড, বাইপাস সড়ক, রাজঘাট, পুরাতন বাসস্ট্যান্ড, জংশন বাজার ফুটপাতসহ বিভিন্ন এলাকায় ভ্যান, সাইকেলযোগে শহরের আনাচে কানাচে বিভিন্ন স্থানে ক্যামিকেল ও ফরমালিন মিশ্রিত ফল বিক্রি হচ্ছে। এসব ফল খেয়ে তাৎক্ষণিক কেউ মরছে না ঠিকই। তবে তিলে তিলে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছে অনেকে।
এ বিষয়ে চিকিৎসকরা জানান, ক্যামিকেল ও ফরমালিন মিশ্রিত ফল মানবদেহের মারাত্মক ক্ষতিসাধন করে। এসব ফল খেয়ে লিভার, পেটের পীড়া, আইবিএস, এন্ডোসকপি ও কোলোনস্কপি, জন্ডিসসহ মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হতে পারে। এছাড়া লিভারে পানি জমা ও খাদ্যে অরুচি ছাড়াও পেটের বিভিন্ন জটিলতা দেখা দিতে পারে। তারা বলেন, শুধু ফলেই নয়, মাছসহ শাক সবজিতেও রাসায়নিক মেশানো হচ্ছে। স্বাস্থ্যঝুঁকি এড়াতে ক্যামিকেল মিশ্রিত ফল, মাছ ও শাক সবজি বর্জন করা উচিত।
এ বিষয়ে ১ম শ্রেণীর ম্যাজিষ্ট্রেট ও লাকসাম উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নুশরাত সুলতানা বলেন, আমাদের আন্তরিকতা সত্ত্বেও ক্যামিকেল যুক্ত ফল সনাক্তকরণের প্রয়োজনীয় কীট এবং এক্সপার্ট না থাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা যাচ্ছে না। তবে খুব সহসা এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply