কুমিল্লার মুরাদনগরে পর পর ৩বার বদলী হলেও এটিও জয়নাল আবারো বহাল তবিয়তে

মো. হাবিবুর রহমান, মুরাদনগর (কুমিল্লা):–

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীনকে পর পর ৩বার বদলী করা হলেও অদৃশ্য ক্ষমতার খুঁটির জোরে এখনো বহাল তবিয়তে রয়ে গেছেন। ভূক্তভোগী শিক্ষক-শিক্ষিকারা উক্ত কর্মকর্তার অনতিবিলম্বে অপসারণসহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জন্যে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবি জানিয়েছেন।
জানা যায়, সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন প্রায় ৫ বছর যাবত মুরাদনগরে বেশ দাপটের সাথে দায়িত্ব পালন করার সুবাধে বেশ কিছু শিক্ষিকাদের সাথে সখ্যতা গড়ে তোলে। তার ২ স্ত্রী থাকা সত্বেও সে অসহায় শিক্ষিকাদের ফাঁদে ফেলে জড়িয়ে পড়েছে পরকীয়ায়। ওই সব শিক্ষিকাদের তিনি অন্যায় ও অবৈধ ভাবে বিভিন্ন প্রকার সুযোগ-সুবিধা দিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। আর যে সকল শিক্ষিকারা তার ফাঁদে পা দিতে অপরাগতা প্রকাশ করে তাদেরকে অহেতুক হয়রানি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি নিয়ে উপজেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন শিক্ষক-শিক্ষিকাদের মাঝে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হচ্ছে। শিক্ষা অফিস পরিদর্শণকালে দেখা যায়, সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন কর্তৃক বেশ কয়েকজন শিক্ষিকাদের সাথে পরকীয়ায় ঘটনাটি বেশ সমালোচনার ঝড় উঠেছে। এ ছাড়াও তার বিরুদ্ধে রয়েছে ঘুষ কেলেংকারীসহ বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্ণীতির অভিযোগ। সাধারণ শিক্ষিকারা এ ব্যাপারে প্রতিবাদ করাতো দুরের কথা ভয়েও মুখ খুলতে সাহস পায়না। বাধ্য হয়ে সম্প্রতি ১০/১২ জন শিক্ষিকা প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয় ও প্রাথমিক ও গণশিক্ষা বিভাগ এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা অধিদপ্তরের নিকট সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন। উক্ত অভিযোগের আলোকে সর্বশেষ তাকে গত ২৮ মে কুমিল্লার ব্রা‏হ্মণপাড়া উপজেলায় শাস্তিমূলক বদলী করা হয়। বিগত জানুয়ারি মাসে কর্তব্যে অবহেলার দায়ে এর আগেও প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী আফসারুল আমিন স্বয়ং তাকে বদলী করার জন্য অধিদপ্তরকে নির্দেশ দেন। সে মতে তখন তাকে ব্রা‏হ্মনবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলায় বদলী করা হয়। একই অভিযোগে এর আগেও তাকে সিলেট জেলায় শাস্তিমূলক বদলী করা হয়। জানা গেছে, মুরাদনগর উপজেলায় কর্মকালীন সময়ে সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীনকে এ পর্যন্ত পর পর ৩ বার অন্যত্র শাস্তিমূলক বদলী করা হয় । কিন্তু তিন তিন বার বদলীর আদেশকে বৃদ্ধাঙ্গুলী প্রদর্শন করে তিনি এলাকা এখনো চষে বেড়াচ্ছেন। ফলে বহু অভিযোগে অভিযুক্ত সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন রয়ে গেছেন বহাল তবিয়তে। তবে তিনি পাশ্ববর্তী দেবিদ্বার উপজেলায় বদলীর জন্য চেষ্টা-তদ্বির করছেন বলে গুঞ্জন উঠেছে।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগসমূহ অস্বীকার করে বলেন, একটি মহল আমার বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছে। ফলে ওরা নানাহ প্রভাকান্ড ও কুৎসা ছড়াচ্ছে। শুধু তাই নয়, আমি একটি মহলের গভীর ষড়যন্ত্রের শিকার।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply