মেঘনায় সেননগর গ্রামের এক ব্যক্তির রহস্যজনক মৃত্যু

মোঃ ইসমাইল হোসেন, মেঘনা প্রতিনিধি :–
কুমিল্লা মেঘনা উপজেলা গোবিন্দপুর ইউনিয়নের সেননগর গ্রামের মোঃ মনির হোসেন (৩০) রহস্যজনকভাবে নিজ ঘরে মৃত্যুবরন করে। পুলিশ মৃত দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ মর্গে প্রেরন করে। সূত্র জানায়, জায়গা জমিনের লোভে মনির হোসেনের আত্মীয়-স্বজন মনিরকে হত্যা করে তাহার নিজ গৃহে ঘরের খুটির সাথে দাড়ানো অবস্থায় গলায় ওড়ানা দিয়ে পেচিয়ে শক্তকরে বেধে রাখে। সকালে প্রচার করে মনির হোসেন গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। আজ সকালে পুলিশকে সংবাদ দিলে পুলিশ ঘরের খুটির সাথে দাড়ানো অবস্থায় ওড়ানো দিয়ে পেচানো মনিরের গলা বাধা মৃত দেহ উদ্ধার করে। মৃত ব্যক্তির স্ত্রী রেখা আক্তার দড়িকান্দি পিতার গ্রামের ছিল। রেখা আক্তার বিলাপ করিতে করিতে বলছিল, আমি রাত ৮টার দিকে আমার পিতার বাড়ি হইতে খাবার রান্না করে এনে নিজ হাতে আমার স্বামীকে খাওয়াই রাতেই বাপের বাড়ি চলে যাই ফসল তোলার কাজ করার জন্য। পরদিন সকালে আমি আমার মোবাইল নাম্বার ০১৭১৪২৬৩৯১৮ হইতে আমার স্বামীর ০১৭৩৮৬২৯৪৭৮ নাম্বারে ফোন করি নাস্তা খাওয়ার জন্য আমার পিতার বাড়িতে আসার জন্য। কিন্তু অপর প্রান্ত হইতে কোনো সাড়া শব্দ না পাওয়ায় আমি দৌড়াইয়া আমার স্বামীর বাড়িতে আসিয়া শুনিতে পাই আমার স্বামী আত্মহত্যা করিয়াছে। আমি শুনে দিশেহারা হয়ে পড়ি। মনির ও রেখা বিবাহ হয়েছে প্রায় ৯ বছর। তাদের কোনো সন্তান নাই। ডাক্তার বলছে মনীর হোসেন কোনো দিন সন্তানের পিতা হতে পারবে না। তারপর ও স্ত্রী রেখা আক্তার স্বামীকে নিয়ে ৯ বছর যাবত ঘড় সংসার সুখে শান্তিতে কাটিয়ে দিয়েছে। মনীরের মৃত্যুর ব্যাপারে বাড়ীর আত্মীয়-স্বজন সঠিক কোনো তথ্য দিতে পারে নাই। একটি ঘরের দুইভাগের এক অংশে মনির ও স্ত্রী রেখা আক্তার বসবাস করে। অন্য অংশে মনীরের বড়ভাইয়ের স্ত্রী ছেলে মেয়ে নিয়ে বসবাস করে। পুলিশ বলছে, মনিরের ব্যাপারে ময়নাতদন্ত ছাড়া বিষটি পরিস্কার করে বলতে পারছিনা। মামলার তদন্তকারী অফিসার এস আই শ্যামল মজুমদার জানান, মৃত দেহের গলায় একটি দাগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমুত্যুর মামলা দায়ের করা হয়।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply