ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় মদ গাঁজা ও ফেনসিডিল ব্যবসায়ীরা সক্রিয়

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:–

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় মদ গাঁজা ও ফেনসিডিল ব্যবসায়ীরা সক্রিয়।জানা গেছে,কসবা উপজেলা সদর,কালিকাপুর,খাড়পাড়া,কসবা সদর পুরাতনবাজার সহ প্রতিটি ইউনিয়নের হাটবাজার গুলোতে প্রতিদিন চলছে মদ,গাঁজা ফেনসিডিলের রমরমা ব্যবসা।মাদক ব্যবসায়ীরা জেল থেকে ছাড়া পেয়ে আবারো এলাকায় এসে নতুনরুপে ব্যবসা করছে। তাতে করে মাদকাসক্তের সংখ্যা দিন দিন বেড়ে গেছে।অনুসন্ধান চালিয়ে জানা গেছে কসবা উপজেলা সদরসহ উপজেলার বিভিন্ন মাদক পয়েন্টে চলছে মদ,গাঁজা,ফেনসিডিলের জমজমাট ব্যবসা।গত কয়েক দিন কসবা থানার পুলিশ অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতার করে।কিন্ত মাদক ব্যবসায়ীরা জামিনে এসে আবারো মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।এসব মাদক ব্যবসায়ীদের কারণে কসবা পূর্বাঞ্চলের শত শত স্কুল কলেজ ছাত্র এবং উঠতি বয়সের ছেলেদের নিয়ে মহাবিপদে পড়েছেন অভিভাবক মহল।অনুসন্ধান নিয়ে জানা গেছে,কসবা সদর কালিকাপুর,খাড়পাড়া দণি,পুরাতন বাজার,কসবা হাইস্কুল মোড়,সিএনজি ষ্টেন্ড,কসবা থানা রোড, আকাবপুর,জয়নগর,বিঞ্চপুর,মন্দভাগ রেলষ্টেশন,চারগাছ বাজার,তিনলাখ পীর মোড়,গোপীনাথপুর বাজার রোড,চন্ডিদ্বার বাজার,বায়েক,নয়নপুর বাজার,কুটি বাজার সহ বিভিন্নস্থানে মদ,গাঁজা ফেনসিডিল পাওয়া যায়।মাদক দ্রব্য বিক্রির স্থান গুলোতে পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে দফায় দফায় গ্রেফতার করেও আইনের ফাঁক বের করে জামিন নিয়ে বেবিয়ে এসে আবারো মদ,গাঁজা ফেনসিডিলের ব্যবসা করে আসছে।এই মাদক থেকে রার্থে কসবা উপজেলার গোিপনাথপুর ইউপির সীমান্ত এলাকার বিঞ্চউড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা পাঠদান থেকে বিরত হয়ে “মাদককে না বলুন”চোরাচালান ও মাদক বিরোধী সমাবেশ এবং মতবিনিময় সভার আয়োজন করেছিলেন।কিন্ত আজও মাদক ব্যবসায়ীও মাদক সেবীদের প্রতিরোধ করা সম্ভব হয়নি বলে উক্ত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক আবু আক্কাস এই প্রতিনিধিকে গত মঙ্গলবার দুঃখের সাথে জানান।মাদক মুক্ত কসবা চাই সংগঠনের সভাপতি জানান কসবা উপজেলা সদরে পুরাতন বাজারে প্রতিদিন ফেরি করে এবং বাসায় বাসায় মাদক বিক্রি করা হয়। বাজারে ও অফিস পাড়ার পিছনে পাওয়া যায় ফেনসিডিলের খালি বোতল। মনে হচ্ছে যেন দেখার কেউ নেই।স্থানীয় সাংবাদিকরা যদিও এই বিষয়ে সংবাদ প্রকাশ বা ওপেন হাউজে আলোচনা আসলে পুলিশের অভিযানে কিছু গ্রেফতার করলেও আবার জামিনে ছাড়া পেয়ে তাদের ব্যবসা করে যাচ্ছে। অপরদিকে পুলিশ গ্রেফতার করলেও দলীয় লোক,ভাল লোক,ইত্যাদি তদবির করার বিষয়টি পুলিশকে বিপাকে ফেলে দেয় বলে নাম প্রকাশ না করা সত্বে এক পুলিশ কর্মকর্তা জানান।কসবার সচেতন মহলের একটাই দাবী মাদক ব্যবসায়ীদের হাত থেকে আজকের যুব সমাজকে রার জন্য প্রয়োজনে রাস্তায় বেড় হয়ে আসতে হবে এবং স্ব স্ব স্থান থেকে প্রতিরোধে ভূমিকার রাখার আহ্বান জানান।

Check Also

আশুগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামির মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :– ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মো. হারুন মিয়া (৪৫) নামে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামির ...

Leave a Reply