মুরাদনগরে কোটি টাকা মুল্যের জায়গা দখল করে মার্কেট নির্মান করছে প্রভাবশালীরা

মো: মোশাররফ হোসেন মনির :–
কুমিল্লার মুরাদনগর-হোমনা সড়কের পাশে নাগেরকান্দি তিতাস ব্রীজ সংলগ্ন সড়ক ও জনপদের কয়েক কোটি টাকা মুল্যের সরকারী জায়গা দখল করে মার্কেট নির্মান করছে ওই এলাকার প্রভাবশালী আদম আলী ও ওয়াছেক মেম্বার সহ কয়েকজন ব্যাক্তি। দখলদাররা ব্রীজ রক্ষায় নির্মিত থ্রেডওয়াল ভেঁঙ্গে ও পাঁকা বক্ষক তুলে নিয়ে নিজেদের কাজে ব্যাবহার করছে। যার ফলে কয়েক কোটি টাকা ব্যায়ে তিতাস নদীর উপরে নির্মিত ব্রীজটি চরম ঝুঁকিপুর্ন হয়ে পড়ছে।
সরজমিন অনুসন্ধানে জানা যায়, মুরাদনগর উপজেলা সদরের অদুরে তিতাস ব্রীজ এলাকার প্রভাবশালী লাঠিয়াল আদম আলী ও ওয়াছেক মেম্বার সড়ক ও জনপদের কোম্পানীগঞ্জ কার্যালয়ের উপসহকারী প্রকৌশলী(এসও) আবুল কালাম আজাদের সাথে যোগসাজশে তিতাস ব্রীজ সংলগ্ন কয়েক কোটি টাকা মুল্যে জায়গা দখল করে মার্কেট নির্মানের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। রহস্য জনক কারনে বিষয়টি নিয়ে সওজের কুমিল্লা জোনের শীর্ষ কর্মকর্তারা নিরব ভুমিকা পালন করছে।
স্থানীয়রা জানায়, দখলদার আদম আলী ও ওয়াছেক মেম্বারের কাছে প্রায় সময়ই সওজের ওই উপসহকারী প্রকৌশলী আবুল কালাম আজাদ এসে দেখা করেন। আদম আলী ওয়াছেক মেম্বার সম্পুর্ন অবৈধভাবে সরকারী সম্পদ বিনষ্ট করে সরকারী জায়গায় মার্কেট নির্মান করলেও এলাকাবাসী অবাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে রয়েছে। এলাবাসী জানায়, আদম আলীর বিরুদ্ধে রয়েছে অসংখ্য মামলা তার ভয়ে এলাকায় কেউ মুখখুলেনা। ওয়াছেক মেম্বারের রয়েছে আরেক বাহিনী সে এলাকায় এ ধরনের অবৈধ দখল কার্মকান্ড করলেও কেউ মুখ খুলেনা। ইতিপুর্বে ওই দুই দখলদার তিতাস ব্রীজ এলাকায় আরো কিছু সরকারী জায়গা দখল করে দোকান বানিয়ে বিক্রি করে হাতিয়ে নিয়েছে মোটা অংকের টাকা। এখনো ওই এলাকায় তাদের দখলে সরকারী জায়গায় কয়েকটি দোকান রয়েছে। দেখলে দুজনকে মনে হবে অত্যন্ত অসহায় কিন্তু অসহায় এ চেহারা সোরতের অন্তরালে কি রয়েছে তা একমাত্র বলতে পারবে ওই এলাকার বাসিন্দরা। স্থানীয়রা জানায়, দখলদারদের দৌরাতœ প্রতিরোধ করতে না পারলে অতিশীঘ্রই তিতাস নদীর উপরে নির্মিত ব্রীজটি ব্যাবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়বে। আর তাতে সরকারের অপরুনীয় ক্ষতি হয়ে যাবে।
এ দিকে অবৈধ দখলের সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে সাংবাদিকদের সাথে আদম আদম আলী ও ওয়াছেক মেম্বার ঔদ্ব্যত্তপুর্ন আচর ও দম্ভোক্তি করে বলেন, জায়গাটি বহু আগে থেকেই আমরা ভোগ দখল করিতেছি। তারা দুজনই তাদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন। এ ব্যাপারে উপ সহকারী প্রকৌশলী আবুল কালাম আজাদ তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গুলো ভিত্তিহীন দাবী করে বলেন, আমি অচিরেই ওই দুই দখলদারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা সহ নির্মানাধীন অবৈধ স্থাপনা গুলো ভেঁঙ্গে ফেলার উদ্যোগ গ্রহন করবো।
বিষয়টি নিয়ে কথা বলার জন্য সড়ক ও জনপদ বিভাগের কুমিল্লা জেলার প্রকৌশলী আব্দুর রহিমকে বেশ কয়েকদিন যাবত ফোন করলেও তিনি ফোন ধরেননি।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply