ঐশ্বরিয়ার একযুগ

ঢাকা :–
বলিউডের পাশাপাশি সমানভাবে হলিউডও মাতিয়েছেন বিশ্ব সুন্দরী ঐশ্বরিয়া রাই। ভারতীয় ইভেন্ট থেকে শুরু করে হলিউডের সুবিশাল ইভেন্টেও গ্ল্যামার প্রেজেন্টর হিসেবে সবসময় নিজেকে মেলে ধরেছেন। ঐশ্বরিয়া ছাড়া যেন কান উৎসব এখন অর্থহীন।

বিশ্বের অন্যতম ‘কান চলচ্চিত্র উৎসব’-এও তার যাত্রা প্রায় এক যুগের। বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে তিনি আমন্ত্রিত হয়েছেন একাধিকবার। রূপের ছটায় মুগ্ধ করেছেন বিশ্বের লাখো ভক্তকে।

১২ বারের মতো এবারের কান উৎসবের লাল কার্পেটে হেঁটেছেন ঐশ্বরিয়া। মায়ের কোলে ‘সওয়ার’ হয়ে উৎসবে যোগ দিয়েছে ১৮ মাসের কন্যা সন্তান আরাধ্য বচ্চনও। ১৯ মে লাল গালিচায় হেঁটেছেন সাবেক এই বিশ্ব সুন্দরী। প্রতিবারই আলাদাভাবে নিজেকে উপস্থাপন করে আলোচনা শীর্ষে উঠে আসেন। এবারও তিনি মাত করেছেন কান উৎসব। এমনকি ভক্তরা তার সে মূহুর্তের নাম দিয়েছেন ‘অ্যাশ মোমেন্ট’!

এক নজরে দেখা যাক ১১ বছরের কান যাত্রায় কোন কোন পোশাকে নিজেকে উপস্থাপন করেছেন এ বিশ্ব সুন্দরী:

২০০২ সালে প্রথমবারের মতো কান চলচ্চিত্র উৎসবে প্রবেশ করেন ঐশ্বরিয়া। বাহারি স্বর্ণালংকার পরে উৎসবে উপস্থিত হন তিনি। সোনালী রংয়ের শাড়ি আর পুরো শরীরে অলংকার জড়িয়ে কান উৎসবে লাল গালিচায় হাঁটেন।

২০০৩ সালে কান উৎসবে যোগ দেন জুরি বোর্ডের সদস্য নির্বাচিত হয়ে। সেবারই প্রথম কোনো ভারতীয় অভিনেত্রী জুরি বোর্ডের মেম্বার নির্বাচিত হন। সেবারও শাড়ি পরেই উৎসবে অংশ নেন। হালকা সবুজ রংয়ের শাড়ি এবং মাথায় চুল বেঁধে লাল গালিচায় ক্যাটওয়াক করেন এ অভিনেত্রী। এছাড়াও গোলাপী রংয়ের একটি পোশাকেও হাজির হন এ উৎসবে।

২০০৪ সালে ঐশ্বরিয়া কান উৎসবে যোগ দেন সাদা ধবধবে একটি গাউন পরে। সাথে পরেন জড়োয়া অলংকার।

২০০৫ সালে নিজের ‘লুক’ এর পরিবর্তন আনেন ঐশ্বরিয়া। লাল গালিচায় হাজির হন খোলা চুলে অফ হোয়াইট গাউন পরে। অন্যদিন পরেন একটি ব্ল্যাক গাউন।

২০০৬ সালে নেভি ব্লু রংয়ের একটি স্ট্রেপলেস গাউন পরে কানের লাল গালিচায় পা রাখেন ঐশ্বরিয়া। গলায় পরেন হিরে বসানো একটি জড়োয়া নেকলেস। সব মিলিয়ে লাল গালিচায় নীল পরীর বেশে আসেন তিনি।

২০০৭ সালে ঐশ্বরিয়ার কান যাত্রায় আসেন অন্য আমেজে। কারণ মিস ঐশ্বরিয়া এ বছর মিসেস ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন হন। ২০০৭ সালে জুনিয়র বচ্চন অভিষেকের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। স্বামীকে বাহু বন্ধনে নিয়েই হাজির হন লাল গালিচায়। আর সেদিন তার পরনে ছিল সাদা রংয়ের স্ট্রেপলেস গাউন এবং হীরার অলংকার।

২০০৮ সালে সোনালী রংয়ের পোশাকে মোহনীয় রূপে নিজেকে হাজির করেন। এ বছরও স্বামী অভিষেককে নিয়ে কান উৎসবে যোগ দেন তিনি। উৎসবের অন্যদিনও আসেন কালো রংয়ের একটি গাউন পরে।

২০০৯ সালে কান উৎসবে ঐশ্বরিয়া হাজির হন সবচয়ে মোহনীয় সাজে। মেঝে পর্যন্ত ছরানো সাদা রংয়ের গাউন পরেন। আর উৎসবের ২য় দিন একটি ধূসর রংয়ের গাউন পরিধান করেন।

২০১০ সালে প্রিয় ডিজাইনারের ডিজাইন করা পোশাক পরে কান উৎসবে আসেন ঐশ্বরিয়া। বেগুনি রংয়ের ‘মৎসকন্যা গাউন’ পরে কান উৎসবে হাজির হন এ বিশ্বসুন্দরী। উৎসবের অন্যদিনগুলোতে পরেন কালো রংয়ের আরমানি প্রাইভ গাউন, কালো রংয়ের পোশাক এবং শাড়ি।

২০১১ সালে এলা সাবে’র ডিজাইন করা অ্যাম্বডারি একটি গাউন পরে কান উৎসবে আসেন ঐশ্বরিয়া।

২০১২ সালে সর্বশেষ কান উৎসবে হাজির হয়েছিলেন কালো রংয়ের নেটের একটি গাউন পরে। অন্যদিন পড়েছেন গোল্ডেন রংয়ের একটি কাপ্তান শাড়ি। মা হওয়ার পর এটাই ছিল তার প্রথম কান যাত্রা। মেয়ে আরাধ্যকে নিয়ে বিশ্ব মিডিয়ার সামনে প্রথম হাজির হয়েছিলেন তিনি। সে সময় মুটিয়ে যাওয়া ঐশ্বরিয়াকে দেখে অনেকেই সমালোচনা করেন। আবার অনেকেই তার সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়েছেন।

Check Also

সভাপতি শাকিব খান ও সম্পাদক অমিত হাসান

বিনোদন ডেস্ক :– বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন দ্বিতীয়বারের মত সভাপতি পদে বিজয়ী হয়েছেন শাকিব ...

Leave a Reply