দাউদকান্দি পৌরসভার বেহাল দশা জলাবদ্ধতায় মানবেতর জীবন-যাপন

শামীমা সুলতানা :–
কুমিল্লা দাউদকান্দি পৌরসভার ড্রেনেজ ব্যবস্থা বেহাল হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে ৫নং ওয়ার্ড সবজিকান্দি-দোনারচর গ্রামের পানি নিষ্কাসনের জন্য যেসব ড্রেন রয়েছে তা ময়লা আবর্জনায় বন্ধ হয়ে গেছে। এখন এখানে একটুআধটু বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। বৃষ্টির পানি সরতে না পারায় অত্র এলাকায় প্রতিনিয়ত জলাবদ্ধতা লক্ষ করা যায়। পৌরসভার সাহাপাড়া ও বাজারের পানি নিষ্কাসনের ড্রেনগুলো ময়লা-আবর্জনায় পরিপূর্ণ হওয়ায় জলাবদ্ধতা আরো চরম আকার ধারণ করেছে। ফলে সবজিকান্দি, দোনারচর গ্রামের রাস্তাগুলোতে একটু বৃষ্টি হলেই পচা, নোংরাা ও আবর্জনাযুক্ত পানিতে সয়লাব হয়ে যায়। রাস্তাতে জমে হাঁটু পানি এবং জলাবদ্ধতায় এ এলাকার মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত হয়।
তাছাড়া এসব গ্রামের পাশেই রয়েছে দাউদকান্দি পৌরসভাস্থ বেশ কয়েকটি নামিদামি স্কুল। দাউদকান্দি মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দাউদকান্দি আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়, বেগম আমেন-সুলতান বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, বর্ণমালা একাডেমী ও মাতৃছায়া একাডেমী। ওই সমস্ত স্কুলের হাজার হাজার কোমলমতি ছাত্রছাত্রীদের প্রতিনিয়ত এ জলাবদ্ধতা পার হয়ে স্কুলে আসা-যাওয়া করতে হয়। এসব পথ দিয়ে আসা ও যাওয়ার সময় বহু ছাত্র-ছাত্রী আহত হয় বলে এলাকাবাসী জানান।
এছাড়া সবজিকান্দি-দোনারচরের কয়েক’শ পরিবার এ জলাবদ্ধতার শিকার। নোংরা ড্রেনের পানি মিশ্রিত জলাবদ্ধতার কারণে কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীসহ এলাকার মানুষ বিভিন্ন রকম চর্মরোগসহ নানা ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় সংসদ সদস্যের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান,‘পৌরসভার আভ্যন্তরীন নাগরিক সুযোগ-সুবিধা ও রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পৌর সভার। যা দেখাশোনর জন্য রয়েছেন পৌর মেয়র। তারপরও ব্যাপারটি আমার গোচরে আসায় আমি তা সমাধানের চেষ্টা করবো।’
৫ নং ওয়ার্ড কমিশনার আব্দুল হামিদের সাখে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ‘সাবেক মন্ত্রী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন দাউদকান্দি ইউনিয়নের নাগরিক সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির লক্ষে দাউদকান্দি পৌরসভা সৃষ্টি করেন। সৃষ্টিলগ্নে তৎকালিন থানা নির্বাহি কর্মকর্তা পীরজাদা হারুর উর রশিদ নবগঠিত দাউদকান্দির প্রশাসকের দায়িত্বে থাকা অবস্থায় তিনি পৌরসভার রাস্তা,ডাস্টবিন, ল্যাম্পপোস্ট, ড্রেনেজ ব্যবস্থা, মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে রাস্তা নির্মাণ সহ অসংখ্য নাগরিক সুবিধাজনিত কাজ করে গেছেন। পরবর্তীতে নির্বাচিত প্রথম পৌর চেয়ারম্যান নাছির উদ্দিন আহমেদ দায়িত্ব গ্রহনের পর পৌরবাসীর আশায় বুক বাধঁলেও তিনি আশানরূপ দাউদকান্দি পৌরসভার তেমন কোনো উন্নয়ন করতে পারেননি।
পৌরসভার দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত মেয়র শাহআলম চৌধুরী দায়িত্ব নেয়ার পর ভাগ্যক্রমে ৮ বছর দায়িত্ব পালন করলেও পৌরবাসীকে হতাশ করে মেয়াদ শেষ করেন। তৃতীয় মেয়াদে পৌরবাসীকে সব ধরনের নাগরিক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে আবারো নাছির উদ্দিন আহমেদ দ্বিতীয় বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হয়ে আজবধি কোনো উন্নয়নের ছোঁয়া লাগাতে পারেনি’। তিনি আরো বলেন. ‘আমি আমার ৫ নং ওয়ার্ডে দুরবস্থার ব্যাপারে পৌর মেয়রকে অবহিত করলেও তিনি বিভিন্ন ভাবে পাশ কাটিয়ে যান। এ দুরাবস্থা নিরসনে আমি নিরুপায়’। এখন নিরুপায় হয়ে এ সমস্যা সমাধানে এলাকাবাসী উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply