বুড়িচংয়ের ভরাসার বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়েটিতে অনাকাঙ্খিত ভবন ধসের আশংকা বিরাজ করছে : আতংকীত শিক্ষার্থীরা

আলমগীর হোসেন :–

কুমিল্লার বুড়িচংয়ের ভরাসার বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ভবন ধসে যে কোন মুহুর্তে শিক্ষার্থীদের জীবন নাশের অনাকাঙ্খিত আশংকা বিরাজ করছে। সরেজমিনে জানা যায়, কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ ভরাসার উচ্চ বিদ্যালয়টি ১৯২৬ ইং সনে ভরাসার মৌজায় ১১০ দাগে ১ একর ৫০ শতক ভূমিতে ভরাসার গ্রামেরই বিশিষ্ট দানবীর মরহুম হাজী আবিদ আলী প্রতিষ্ঠা করেন । প্রতিষ্ঠার পর থেকে অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে বিদ্যালয়টি ১৯৬৫ ইং সনে মাধ্যমিক পর্যায়ে উন্নীত হয়। তৎকালীন সময়ে বেনী মাধব ভেীমিক প্রধান শিক্ষক ছিলেন । পরবর্তীতে স্কুল সংলগ্ন ছয়ঘরিয়া গ্রামের সদা হাস্যেজ্বল এক ব্যক্তিত্ব মো: আলী আশরাফ প্রায় ৪১ বছর নিরবিচ্ছিন্নভাবে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে বিদ্যালয়ের সভাপতি আব্বাস আলীর দিক নির্দেশনায় ও ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক একেএম সহিদুর রহমানের ব্যাপক তদারকির মাধ্যমে প্রায় ১০৭০ জন ছাত্র/ছাত্রীর পাঠদান কার্যক্রম বেশ সুনামের সাথে এগিয়ে চলছে। তারপরে সম্প্রতি চুনকামের ফলে বাহির থেকে বিদ্যালয়টিকে চাকচিক্য দেখা গেলেও বিদ্যালয়ের ভেতরে বিভিন্ন ক্লাশ রুম ও শিক্ষকদের রুমের ওয়াল ও ছাদে ব্যাপক ধস লক্ষ্য করার মতো। ছাত্র/ছাত্রীরা ঝুঁকির মধ্য দিয়ে তাদের শ্রেণী কার্যক্রম চালিয়ে গেলেও এ যেনো দেখার কেউ নেই। বিদ্যালয়টির চারিদিকে বেষ্টনি রয়েছে। ফলে এটিকে এসএসসি/ এইসএসসি/জেএসি সহ বিভিন্ন পরীক্ষা কেন্দ্র হিসেবে বেছে নেয়া হলেও প্রায় ৫০/৪০ বছর পূর্বে নির্মিত ভবনগুলোর বিভিন্ন ওয়াল ও ছাদে ফাটল ধরে আছে। এখন বর্ষাকাল বিধায় একটু ভারী বাতাস কিংবা ঝড় এলে স্কুল কর্তৃপক্ষ ও অভিভাবক মহল তাদের সন্তানদের স্কুলে দিয়ে ব্যাপক হতাশা ও দু:শ্চিন্তায় পড়েন । তাই বিদ্যালয়ে পড়–য়া শত শত শিক্ষার্থীর জীবন নাশের আশংকার হাত থেকে বাচাতে বিদ্যালয়টির সংস্কার সাধনে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষেল হস্তক্ষেপ কামনা করছেন এলাকাবাসী ও বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির বিভিন্ন সদস্য বৃন্দ।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply