ব্রাহ্মণবাড়িয়ার দুই গ্রামে কালবৈশাখীর তান্ডব,ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত-আহত শতাধিক

আরিফুল ইসলাম সুমন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :–

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর ও কসবা উপজেলার উপর দিয়ে কালবৈশাখী ঝড় তান্ডব চালিয়েছে। বুধবার সকালে এই কালবৈশাখী ঝড়ে নবীনগর উপজেলার কোনাউর ও কসবা উপজেলার নিয়ামতপুর গ্রামের অসংখ্য ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এসময় আহত হয়েছে শতাধিক লোক।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার সকাল ১০ টা থেকে এলকায় শিলাবৃষ্টি শুরু হয়। বেলা সাড়ে ১১টায় ওই দু’টি গ্রামের উপর দিয়ে ১০ মিনিট স্থায়ী ঘূর্ণিঝড় হলে দুই শতাধিক ঘরবাড়ি লন্ডভন্ড হয়ে যায়। এতে শতাধিক লোক আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহতদেরকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর, কসবা চারগাছ হাসপাতাল ভর্তি ও চিকিৎসা করা হয়েছে। এছাড়া একই সময়ে কালবৈশাখী ঝড়ে উপজেলার বিনাউটি ইউনিয়নের গাভবাড়িস্থ সাতগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের চালা উড়িয়ে নিয়ে গেছে। এসময় টিন পড়ে বিদ্যালয়ের বেশ ক’জন ছাত্রছাত্রী আহত হয়েছে বলেও স্থানীয়রা জানান। কসবা উপজেলা চেয়ারম্যান রুহুল আমীন ভূইয়া বকুল জানান, ‘সকাল থেকে ঝড়ো হাওয়া শিলাবৃষ্টি হয়েছে। সকাল ১১ টার পর থেকে ব্যাপক কালবৈশাখী ঝড় হয়। এতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ঝড়ে ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়। কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জালাল সাইফুর রহমান এবং ওসি বদরুল আলম তরফদার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। কসবা উপজেলা চেয়ারম্যান রুহুল আমীন ভূইয়া বকুল ও কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জালাল সাইফুর রহমান জানান,‘প্রতিটি পরিবারকে প্রাথমিক অবস্থায় ২০কেজি চাউল দেওয়া হবে। নিয়ামতপুর গ্রামের ৩০০ পরিবারের তালিকা করে তাদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ করা হবে। সংবাদ পেয়ে মেডিকেল টিম গিয়ে নিয়ামতপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আহতদেরকে চিকিৎসা করা হচ্ছে। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ক্ষতিগ্রস্থ এলাকায় পড়ে থাকা গাছপালা উদ্ধার তৎপরতা শুরু করেছেন।’ নবীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আ.ন.ম. নাজিম উদ্দিনসহ প্রশাসনের উধ্বর্তন কর্মকর্তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করছেন। তারা জানান ‘ঘূণিঝড়ে কি পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তার সঠিক পরিসংখ্যান বের করে সরকারিভাবে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে প্রয়োজনীয় সাহায্য-সহযোগিতা প্রদান করা হবে।’
এদিকে কালবৈশাখীর পর বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া ইউনিট, ফায়ার সার্ভিস এবং সদর হাসপাতালে একটি চিকিৎসক টিম ঘটনাস্থলে কাজ শুরু করেছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply