সরাইল কালীকচ্ছ পশ্চিম স্কুল ভবনে অসংখ্য ফাটল

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :–

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার কালীকচ্ছ পশ্চিম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনে অসংখ্য ভাঙন ও ফাটল দেখা দিয়েছে। এতে ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে শতাধিক শিক্ষার্থীসহ শিক্ষকেরা। যেকোন সময় দূর্ঘটনার আশঙ্কায় শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা রয়েছেন চরম আতঙ্কে।
গত বৃহস্পতিবার সরেজমিন দেখা যায়, এই বিদ্যালয়ের দুইটি ভবনের বিভিন্ন অংশে ভাঙনসহ অসংখ্য ফাটল দেখা দিয়েছে। বৃষ্টি এলে পুরাতন ভবনের ছাদ ও দেয়াল চুইয়ে পানি পড়ে ক্লাশ রুম ভিজে যায়। তখন ক্লাশ চালানো দায় হয়ে পড়ে। শিক্ষকদের বসার অফিস কক্ষটি দীর্ঘদিন ধরে জরাজীর্ণ। ছাদের অসংখ্য স্থানে ইট সিমেন্ট খসে রড বেরিয়ে পড়েছে। আর ২০০৫-২০০৬ অর্থ বছরে নির্মিত নতুন ভবনের মেঝেতে ভয়াবহ ভাঙন দেখা দিয়েছে। দরজা-জানালা ভেঙে পড়ছে। দূর্ঘটনারোধে এ ভবনের অনেক ভাঙন অংশে মাটি ফেলে ভরাট করেছে শিক্ষকরা।
পঞ্চম শ্রেণীতে পড়–য়া সোহাগ ঠাকুর, হামিদা বেগম, খাদিজা আক্তার, সাইদ খায়রুল্লাসহ অনেক শিক্ষার্থী জানায়-“তারা ক্লাশে বইয়ের দিকে নয়, ছাদের ভাঙা অংশের দিকে চেয়ে থাকে এটি কখন ভেঙে পড়ে।” চতুর্থ শ্রেণীর রাফিকা খানম, আতিকুল ইসলাম ইফরান ও হাসিনা আক্তার জানায়, বিদ্যালয় ভবনের ছাদের বিভিন্ন অংশ খসে রড বেরিয়ে পড়েছে। এই ভাঙা ছাদের নীচে বসে ক্লাশ করতে তাদের ভয় লাগে।
অভিভাবক সাবেরা বেগম জানান, বিদ্যালয় ভবন ঝুঁকিপূর্ণ এর ছাদ খসে পড়ছে। সাভারের দূর্ঘটনার পর এই স্কুলে সন্তানকে পাঠিয়ে নিজেও দুশ্চচিন্তায় থাকি।
সহকারী শিক্ষক আবু শামীম মো. মাসুম জানান, বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় ভবনের এই অবস্থার মধ্যে ক্লাশ নিতে হচ্ছে। এতে আমরা (শিক্ষকরা) নিজেরাও আতঙ্কের মধ্যে থাকি। সহকারী শিক্ষিকা খেলুরমা দেবী জানান, আকাশের মেঘ দেখলেই শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা শঙ্কিত হয়ে পড়ে।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মফিজুল ইসলাম জানান, বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৪২০ জন। শিক্ষক রয়েছেন সাতজন। ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলোর অবস্থা সম্পর্কে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।
সরাইল উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. তৌফিকুল ইসলাম এ বিদ্যালয় ভবনের ভগ্নদশার কথা স্বীকার করে জানান, ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলোর সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। অচিরেই এ সংস্কার কাজ শুরু হবে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply