কুমিল্লায় ফেনসিডিলসহ মাদক সম্রাট বিল্লাল শেখসহ ৪ জন আটক

স্টাফ রিপোর্টার:–
কুমিল্লায় ফেন্সিডিলসহ মাদক সম্রাট ও দৈনিক রুদ্র বাংলা পত্রিকার কথিত ব্যবস্থাপনা সম্পাদক বিল্লাল শেখসহ চার মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড অব বাংলাদেশ (বিজিবি)। গত বুধবার (১ মে) রাতে কুমিল্লার ভারতীয় সীমান্তবর্তী এলাকা গোলাবাড়ি চেক পোষ্ট থেকে প্রাইভেটকারসহ তাদেরকে আটক করা হয়। আটককৃতরা হলেন- চান্দিনা উপজেলার বেলাশহর গ্রামের তোরাব আলীর ছেলে দৈনিক রুদ্র বাংলা পত্রিকার কথিত ব্যবস্থাপনা সম্পাদক বিল্লাল শেখ (৩৪)। তারই নিটকতম আত্মীয় একই পত্রিকার কথিত সাংবাদিক রবিউল (৩৫), হান্নান ও গাড়ি চালক। বর্ডার গার্ড অব বাংলাদেশ (বিজেবি) কুমিল্লার ১০ ব্যাটালিয়ান এর অধিনায়ক লে. কর্ণেল মামুন আল মাহমুদ জানান, ‘গোলাবাড়ি চেষ্ট পোষ্ট অতিক্রম করে প্রাইভেটকার যোগে প্রায়ই ভারতীয় সীমান্ত যাতায়াত করে আসছিলেন তারা। যখনই চেক করার জন্য তাদেরকে পথরোধ করা হয়, তখনই তারা নিজেকে পত্রিকার সম্পাদক ও সঙ্গীয়রা সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে আসছিলো।
বিষয়টি আমাদের সন্দেহভাজন হলে বুধবার একই ভাবে তারা ভারতীয় সীমান্ত থেকে ফেরার পথে গোলাবাড়ি চেক পোষ্ট দায়িত্বরত বিজেবি সদস্যরা তাদেরকে প্রাইভেটকারসহ আটক করে। এসময় তল্লাসী চালিয়ে বিল্লাল শেখসহ তাদের বডি ফিটিং অবস্থায় ফেন্সিডিল পাওয়া যায়। পরবর্তীতে তাদেরকে ফেন্সিডিল ও মাদক বাহী প্রাইভেটকারসহ কুমিল্লা কোতয়ালী থানায় হস্তান্তর করা হয়।
কুমিল্লা কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মহিউদ্দিন মাহমুদ জানান, এব্যাপারে থানায় মাদক আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামীদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।
এদিকে মাদক সম্রাট বিল্লাল শেখ এর নিজ বাড়ি চান্দিনার বেলাশহরসহ আশপাশ এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ‘বিল্লাল শেখ তার মাদক ব্যবসা ও এলাকায় সুদ ব্যবসা পরিচালনা করার জন্য সাংবাদিকতা পেশায় যোগ দেন। সাংবাদিকতার মতো মহান পেশার আড়ালে দীর্ঘদিন যাবৎ তিনি এই মাদক ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন।
এছাড়া তিনি চান্দিনা উপজেলা ও পৌর আওয়ামীলীগ বা অঙ্গ-সংগঠনের কোন সদস্য না থাকার পরও কুমিল্লা-৭ আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য রাজনৈতিক অঙ্গনে ক্লীনম্যান হিসেবে পরিচিতি সাবেক ডেপুটি ষ্পীকার অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ ও তার একমাত্র তনয় মোনতাকিম আশরাফ টিটু’র ছবি সম্বলিত পোষ্টার-লিফলেট ও পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে নিজেকে আওয়ামীলীগের একজন সক্রিয় সদস্য বলে পরিচিত হওয়ার চেষ্টায় ব্যস্ত রয়েছেন।
স্থানীয়দের সাথে আলাপ কালে তারা জানান, মূলত সে কোন রানৈতিক দলের সাথে সম্পৃক্ত নয়। সে তার অবৈধ ব্যবসা পরিচালনা করার জন্য এবং সাধারণ মানুষকে হয়রানী করার উদ্দেশ্যেই রাজনৈতিক সাইনবোর্ড ব্যবহার করেন। এছাড়া তার শ্বশুর চান্দিনা পৌর এলডিপি’র সাধারণ সম্পাদক।
১৯৯৬ইং সালে আওয়ামীলীগ সরকার গঠন করার পর সে নিজের নাম বিল্লাল হোসেন এর পরিবর্তে শেখ বিল্লাল লিখে প্রচার চালায়। ২০০১ সালে চার দলীয় জোট ক্ষমতায় আসার পর বিল্লাল হোসেন নাম লিখে গাঁ বাঁচান। ২০০৮ সালে আওয়ামীলীগ পূণরায় ক্ষমতায় আসার পর বিল্লাল নামের সামনের শেখ শব্দটি নামের পিছনে নিয়ে বিল্লাল শেখ নামে প্রচার চালিয়ে আসছে। এবার বাংলা নববর্ষেও নিজেকে জাহির করার জন্য চান্দিনার আনাচে কানাচে বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনা, এমপি আলী আশরাফ ও এমপি তনয়ের ছবি সম্বলিত ডিজিটাল সাইনবোর্ড সাঁটিয়েছেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চান্দিনা পৌর এলাকার এক প্রভাবশালী আওয়ামীলীগ নেতা জানান, সে কখনও আওয়ামীলীগ রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত নয়। প্রকৃত পক্ষে এমপি মহোদয়ের অনুমতি ছাড়াই সে এমপি ও তার ছেলের ছবি দিয়ে পোষ্টার-ব্যানার সাঁটিয়েছে। আওয়ামীলীগ কোন মাদক ব্যবসায়ীকে সাথে নিয়ে রাজনীতি করে না। আমরা তাদেরকে ঘৃনা করি। যদি কোন মাদক ব্যবসায়ী বা পাচারকারী আওয়ামীলীগের নাম ভাঙ্গায় তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply