মুরাদনগরে স্কুলের গাছ অবৈধভাবে বিক্রিসহ পুকুরের পাড় কেটে রাস্তা করার অভিযোগ

মো. হাবিবুর রহমান,মুরাদনগর (কুমিল্লা):–

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার পূর্বধইর পূর্ব ইউনিয়নের কোরবানপুর জি. এম উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহমান ভুইয়া ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হাজী আব্দুর রউফসহ কতিপয় সদস্যের যোগসাজসে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের পরিপত্র অমান্য করে পুকুর পাড়ে রোপনকৃত বিভিন্ন প্রজাতির ১০৭টি গাছ বিক্রি করাসহ উক্ত পুকুরের পাড় অবৈধভাবে কেটে রাস্তা করার গুরতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে বিভিন্ন পেশাজীবী লোকজনের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বিদ্যালয়ের উত্তর পাশে একটি পুকুর রয়েছে। উক্ত পুকুর পাড়ে তৎকালীন প্রধান শিক্ষক বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ৫ শতাধিক গাছ রোপন করেছিলেন। বর্তমানে বিদ্যালয়ে কোন অর্থ সংকট নেই বলে জানা গেছে। তারপরও বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহমান ভুইয়া, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হাজী আব্দুর রউফ, অভিবাবক সদস্য জাকারিয়া ভুইয়া, আবুল কালাম, তাজুল ইসলাম ও শিক্ষক প্রতিনিধি আব্দুস ছালাম পরস্পর যোগসাজসে অবৈধভাবে লাভবান হওয়ার অসৎ উদ্দেশ্যে রোপনকৃত বিভিন্ন প্রজাতির ১০৭টি গাছ একই গ্রামের ইউপি সদস্য আব্দুল করিমের নিকট মাত্র ১ লাখ ২৯ হাজার টাকা বিক্রি করেন। পরে উক্ত গাছগুলো খোশঘর গ্রামের বুলু চন্দ্র সরকার, মামুন মিয়া, আব্দুল কাদের ও মন্টু দাস ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা দিয়ে করিম মেম্বারের কাছ থেকে কিনে নেয় বলে জানায়। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (মঙ্গলবার) ৩২টি গাছ কেটে নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। এলাকাবাসী জানায়, বিক্রি করা গাছগুলো বর্তমান বাজার মূল্য কমপক্ষে ৫ থেকে ৬ লাখ টাকা হবে।
এ দিকে যে পুকুর পাড়ের গাছ বিক্রি করা হয়েছে, সে পুকুরের পাড় কেটে অবৈধভাবে রাস্তা করা হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে এলাকাবাসী জানায়, উক্ত রাস্তাটি জণগনের চলাচলে কোন উপকারে আসবে না। মূলত গাছ বিক্রির প্রকৃত ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার জন্যই পরিকল্পিত ভাবে রাস্তা হচ্ছে। সোমবার দুপুরে সরেজমিন পরিদর্শনকালে উপস্থিত আওয়ামীলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন দুলাল মেম্বার, শাহআলম, ডাক্তার জাহাঙ্গীর আলম, শুভা মিয়া, হারাধন দেবনাথ, যুবলীগ নেতা মনিরুল ইসলাম ও কৃষকলীগ নেতা হেলাল উদ্দিন জানান, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিসহ কতিপয় সদস্য অবৈধভাবে লাভবান হওয়ার অসৎ উদ্দেশ্যে পরিকল্পিত ভাবে উক্ত নীল নকশা তৈরী করে লাখ লাখ টাকা লুটপাট করছে।
বিষয়টির প্রতিকার চেয়ে বিদ্যালয়ের দাতা সদস্য মাহবুবুর রহমান সুরুজ গত ২৪ এপ্রিল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট একটি লিখিত অভিযোগ করলে তিনি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেন। মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সফিউল আলম তালুকদার সোমবার সরেজমিন গিয়ে ঘটনার সত্যতা পেয়েছেন বলে জানান। তবে একটি গাছও যেন কাটা না হয় সে বিষয়ে খেয়াল রাখার জন্য প্রধান শিক্ষককে নির্দেশ দেন। অন্যথায় বিধি মোতাবেক আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে ঘটনার সত্যতা পাওয়ার পরও এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের পরিপত্র অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে রহস্যজনক কারণে কোন প্রকার আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। ফলে জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।
অপর দিকে পুকুরের লীজ গ্রহিতা ওমর আলী মেম্বার জানান, গত ৭/৮ বছর যাবত উক্ত পুকুরটি চাষ করে জীবীকা নির্বাহ করেন। কিন্তুু ২/৩ দিন আগে কোন প্রকার আলোচনা ছাড়াই পুকুর পাড়ের গাছ ও পুকুরের পাড় কেটে রাস্তা তৈরী করা হচ্ছে। ফলে এতদিন পুকুরটি ছিল বন্যামুক্ত। আর রাস্তাটি করা হচ্ছে নীচু। ফলে আমার পক্ষে এ পুকুর চাষ করা আর সম্ভব নয়। এতে করে স্কুল প্রতিবছর রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হবে।
এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহমান ভুইয়া ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হাজী আব্দুর রউফ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক পুকুর পাড়ের গাছগুলো করিম মেম্বারের নিকট বিক্রি করা হয়েছে। তবে পুকুরের পাড় কেটে রাস্তা করার বিষয়টি তারা এরিয়ে যান।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply