কুমিল্লার নাঙ্গলকোট অজ্ঞাত রোগে ৩০ শিক্ষাথী অসুস্থ্য

সাইফুল ইসলাম, নাঙ্গলকোট:–

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটের মন্তলী উচ্চ বিদ্যালয়ে গত তিন দিনে অজ্ঞাত রোগে অন্ততঃ ৩০জন ছাত্র/ছাত্রী অসুস্থ্য হবার ঘটনা ঘটেছে। বিদ্যালয়ের মাঠে ঢুকতে এবং ক্লাশ রুমে ঢুকার পর ছাত্রীরা অসুস্থ্য হয়ে পড়ছেন। শারীরিক অসুস্থ্যতার লক্ষণ হিসেবে প্রচন্ড মাথা ব্যাথা, বুমি হওয়া ও পুরো শরীর জিম-জিম করে সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়েন বলে ছাত্রীরা জানান। সোমবার ৭জন ছাত্র/ছাত্রীকে গুরুতর অসুস্থ্য অবস্থায় নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। তারা হলেন-দশম শ্রেণীর ছাত্রী সানজিদা আক্তার (১৬), নুরুন নাহার (১৭), উম্মে কুলসুম নিতু(১৬), নাজমা (১৫), ৯ম শ্রেণীর ছাত্র নুরুউদ্দিন (১৫), ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী রোকসানা আক্তার (১৪)। গত ২৪ ও ২৫ এপ্রিল আরো ২৩ ছাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়েন। ২৫এপ্রিল অসুস্থ্য ছাত্রীরা হলেন- রুবি (১৩), সালমা (১৩), শিখা (১২), সীমা (১২), সুমাইয়া (১২), আছমা (১৬)। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ গত ২৭ ও ২৮ এপ্রিল বিদ্যালয় বন্ধ রাখা সহ আগামী কয়েকদিন ছাত্রীদের বিদ্যালয়ে আসা বন্ধ রেখেছেন। হাসপাতালের ডাক্তাররা এ অসুস্থতাকে মাস সাইকোজেনিক ইলনেস (এক ধরণের মানসিক রোগ) হিসেবে দেখছেন।
হাসপাতালে আহত ছাত্রীরা জানান, গত ২৪ এপ্রিল এবং ২৫ এপ্রিল বুধবার বিদ্যালয়ের মাঠে আসতে এবং ক্লাশ রুমে ঢুকে অসুস্থ হয়ে পড়েন। গতকাল ছাত্রীরা ৩য় পিরিয়ডের ক্লাশ করার পর অসুস্থ হয়ে পড়েন। প্রথম দু’দিন ২৩ জন ছাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়েন। এ সময় তাদের অনেককে হাসপাতালে এবং বিদ্যালয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর সুস্থ হয়ে উঠেন। গতকাল ছাত্রীদের পাশাপাশি ১জন ছাত্র অসুস্থ হয়ে পড়েন। গত ২৫ এপ্রিল ছাত্রীদের অসুস্থ হবার কথা শুনে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সাইদুল আরীফ বিদ্যালয় পরিদর্শন করেন। এ সময় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ লিয়াকত আলীর উপস্থিতিতে একটি মেডিকেল টিম ছাত্রীদের প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা দেবার পর তারা সুস্থ হয়ে উঠেন। পরে গত ২৭ ও ২৮এপ্রিল ক্লাশ পরিবর্তনো জন্য ছাত্রীদের ক্লাশ বন্ধ রেখে আজ সোমবার আবার ক্লাশ চালু রাখা হয়। কিন্তু আজকেও বিদ্যালয়ের ৩য় পিরিযড চলাকালীন অবস্থায় আবারো ১জন ছাত্র সহ ৬ন ছাত্রী গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন।
নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ লিয়াকত আলী জানান, এটা এক ধরণের মাস সাইকোজেনিক ইলনেস (এক ধরনের মানসিক রোগ)। একজনের দেখাদেখি অন্যজনের হয়। শারীরিক দুর্বলতা ও ভয় থেকে হয়। আস্তে আস্তে ঠিক হয়ে যায়। আবাসিক মেডিকেল অফিসার আবদুল মালেকের নেতৃত্বে স্বাস্থ্য সেবা দেয়ার জন্য র‌্যাপিড এ্যাকশান টিম গঠন করা হয়েছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply