ফের উত্তপ্ত কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়

কামরুজ্জামান জনি, কুমিল্লা:–

ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়। ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি এবং পৃথক ফ্যাকাল্টির দাবী জানিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ, মানববন্ধন, মিছিল ও প্রশাসনিক ভবন অবরোধ করেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ ( সি এস ই) এবং ইনফরমেশন এন্ড কমিনিকেশন টেকনোলজি বিভাগ ( আই সি টি) বিভাগের শিক্ষর্থীরা।
বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টার দিকে কুবি ক্যাম্পাসে সি. এস. ই এবং আই, সি, টি বিভাগের ছাত্র ছাত্রীরা দুটি দাবী পুরনের জন্য এই আন্দোলন কর্মসূচীর ডাক দেয়। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল করে। প্রায় দেড় শতাধিক ছাত্র ছাত্রীর মিছিলটি কুবি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক ও ফ্যাকাল্টি প্রধক্ষিন শেষে কাঁঠালতলায় এসে শেষ হয়। মিছিল শেষে একটি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তারা ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি এবং পৃথক ফ্যাকাল্টির দাবী জানিয়ে বক্তব্য প্রদান করেন। কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ (সি এস ই) ১ম ব্যাচের ছাত্রী শামীমা আক্তার শম্পা বলেন, অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে আমাদের বিষয়ে পড়ে তারা ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি পাচ্ছে। তারা প্রাক্টিকাল ক্লাসের জন্য আলাদা ল্যাব পাচ্ছে, পর্যাপ্ত শিক্ষক পাচ্ছে অথচ আমরা এর কিছুই পাচ্ছিনা। আমাদের জন্য যদিও দুটি ল্যাব রয়েছে, কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল বিভাগ ব্যবহারের কারনে ব্যাবহার এগুলো অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এছাড়া আমাদের রয়েছে ক্লাসরুম সংকট। আমরা ঠিকমত ক্লাস করতে পারছিনা। আর এই জন্যই আমরা পৃথক ফ্যাকাল্টির দাবী জানাচ্ছি। এছাড়া ইনফরমেশন এন্ড কমিনিকেশন টেকনোলজি বিভাগ ( আই সি টি) বিভাগের ছাত্রী ইসরাত জাহান বলেন, আমাদের বিষয়ে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অনেকেই পড়াশোনা করছে। তারা ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি পাচ্ছে কিন্তু আমরা কেন পাব না। আমরা কুবি ভিসি কে আগেও স্বারকলিপি দিয়েছি কিন্তু তিনি এখন পর্যন্ত আমাদেরকে লিখিত বা মৌখিক কোন আশ্বাস দেননি । আর এ কারনে আমরা আন্দোলনে যেতে বাধ্য হয়েছি। এদিকে ক্যাম্পাস সুত্রে জানা যায়, এর আগে কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ ( সি এস ই) এবং ইনফরমেশন এন্ড কমিনিকেশন টেকনোলজি বিভাগ ( আই সি টি) বিভাগের পক্ষ থেকে কুবি ভিসি, ট্রেজারার, রেজিষ্ট্রার সহ সকল বিভাগের চেয়ারম্যান বরাবর স্বারক লিপি দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এখন পর্যন্ত কারো পক্ষ থেকে কোন ধরনের প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি। এছাড়া গতকালের আনেদালন সম্পর্কে ইনফরমেশন এন্ড কমিনিকেশন টেকনোলজি বিভাগ ( আই সি টি) বিভাগের ১ম ব্যাচের ছাত্র মাঈন উদ্দিন এবং কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ ( সি এস ই) বিভাগের ২য় ব্যাচের মোঃ সাইফুল ইসরাম বলেন, বর্তমান যুগ হচ্ছে তথ্য প্রযুক্তির যুগ। যার কারনে আমাদের পড়ালেখা শেষ করে ইঞ্জিনিয়ারিং সার্টিফিকেট না পেলে কোন মুল্য থাকছেনা। ইঞ্জিনিয়ারিং সুযোগ সুবিধা অনার্স ডিগ্রি বলে বঞ্চিত করা হচ্ছে। এছাড়া আমাদের জন্য আলাদা ল্যাব দরকার ছিল কিন্তু দঃখের বিষয় হলো আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে মাত্র ২টি ল্যাব আছে যা সকল বিভাগ ব্যাবহারের কারনে এখন ব্যবহারের অনুপযুক্ত হয়ে যাচ্ছে। যদিও বা নতুন একটি ল্যাব করা হয়েছে তা এখনও সীলগালা করে রাখা হয়েছে। তাই আমরা আজ এই আন্দোলনে যেতে বাধ্য হয়েছি। আন্দোলনের সমন্নয়ক কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ (সি এস ই) ১ম ব্যাচের ছাত্র মোঃ ইমরান হোসেন বলেন, আমরা অনেক ধৈর্য ধরেছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষের মনে হয় আমাদের এই দাবী নিয়ে কোন চিন্তাই নাই। আমরা এর আগে কুবি ভিসি, ট্রেজারার, রেজিষ্ট্রার সহ সকল বিভাগের চেয়ারম্যান বরাবর স্বারক লিপি দিয়েছি কিন্তু এখন পর্যন্ত পজেটিব কোন আশ্বাস পাইনি। আর তাই আমরা আজকের এই আন্দোলন কর্মসূচী দিতে বাধ্য হয়েছি। তিনি আরো বলেন আমরা আগামী রবিবার থেকে লাগাতার ক্লাস, পরীক্ষা বর্জন ও সকল একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ করে দিব। এর পরও দাবী মানা না হলে তিনি কুবি ক্যাম্পাস অচল করে দেয়ারও হুমকি দেন। এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ ( সি এস ই) এবং ইনফরমেশন এন্ড কমিনিকেশন টেকনোলজি বিভাগ ( আই সি টি) বিভাগদ্বয়ের চেয়ারম্যানদের বক্তব্য নেয়ার চেষ্টা করেও তাদেরকে পাওয়া যায়নি।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply