কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ায় ২ সন্তানের জননীর রহস্য জনক মৃত্যু

মিজানুর রহমান সরকার, ব্রা‏হ্মণপাড়া:–

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শশীদল ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর (ভাল্লক) থেকে ২ সন্তানের জননীর লাশ ২৫ এপ্রিল সকালে উদ্বার করে ব্রাহ্মণপাড়া থানা পুলিশ । নিহতের পিতা কুমিল্লা কোতয়ালী থানার আমরাতলী ইউনিয়নের সদর রসুলপুর গ্রামের অবসর প্রাপ্ত সার্জেন্ট কাজী জাহাগীর আলম সাংবাদিকদের বলেন, আমার মেয়ে সালমা আক্তার সুমি (২৬) কে ৮ বছর পূর্বে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শশীদল ইউনিয়নের রামচন্দ্র পুর (ভাল্লক) মোল্লা বাড়ীর নজরুল ইসলামের সাথে বিয়ে দেই প্রায় ২ লক্ষ টাকা খরচ করে, নগদ ১ লক্ষ টাকা ও স্বর্ন অলংকার দিয়ে । আমার মেয়ের দাম্পত জীবনে ২ সন্তনের জননী ছিল বড় মেয়ের নাম সুমাইয়া (৬) ছেলে ইফরান (১) বিয়ের ১ বছর পর থেকে আমার মেয়েকে তার তার স্বামী প্রায় সময় যৌতুকের জন্য মারধর করত। আমি মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে নগদ ৪ লক্ষ টাকা খরচ করে আমার মেয়ের স্বামী নজরুল ইসলামকে ওমান পাঠিয়েছি। প্রায় ২ বছর ৬ মাস ওমানে থেকে গত দের বছর পূবে আমার মেয়ের জামাই নজরুল বাড়ীতে চলে আসে। কিছু দিন আমার মেয়ের সাথে ভাল ব্যবহার করলেও গত ক’মাস যাবত পুনরায আমার মেয়েকে যৌতুকের জন্য মারধর করতো। বিদেশ থেকে দেশে আসার পর সে আমাদের বাড়ীতে য়ায নাই। ঘটনার ১ মাস পুর্বে আমার মেয়ে আমার বাড়ীতে য়ায, এ সময় আমি আমার মেয়েকে স্বামীর ঘর ছেড়ে চলে আসতে বল্লেও তার ছোট ছোট ছেলে মেয়েদের সুখ, শান্তির কথা চিন্তা করে স্বামীর নির্যাতন সহ্য করেও সংসার করতে চলে যায়। ২৪ এপ্রিল বিকেলে আমার মেয়ে সুমি মোবাইল ফোনে তার মায়ের সাথে শেষ কথা বলে। একই দিনে সন্ধা রাতে আমার মোবাইল ফোনে তার স্বামীর বাড়ীর লোকজন মোবাইলে জানান আপনার মেয়ে মারা গেছে। আমি গোপনে খোজ খবর নিয়ে জানতে পাই আমার মেয়েকে তার স্বামী সহ তার বাড়ীর লোকজন মারধর করে হত্যা করেছে। তার পর আমি ব্রাহ্মণপাড়া থানা পুলিশের নিকট জানাইলে ব্রাহ্মণপাড়া থানার এস,আই লুৎফর রহমান সহ অন্য পুলিশ সহ নিহতের স্বামীর বাড়ীর উঠান থেকে ২৫ এপ্রিল আমার মেয়ের লাশ শোরত হাল রিপোট তৈরী করে লাশ উদ্বার করে থানায় নিয়ে আসে। এসময় আমি দেখতে পাই নিহতের পিঠে ও গালে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ ঘটনার পর থেকে আমার মেয়ের জামাই বাড়ী থেকে পালিয়ে গেছে। এ ব্যাপারে একই এলাকার গ্রাম পুলিশ মোঃ কামাল হোসেন বাদী হয়ে একটি অপমৃত্যুর মামলা করেছে। মামলা নং ৫ তারিখ ২৫-০৪-১৩। এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণপাড়া থানার এস আই লুৎফর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমি ঘটনাস্থল থেকে সুরতহাল রির্পোট তৈরী করে নিহতের লাশ ময়না তদন্তের জন্য কুমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছি। রিপোর্ট পাওয়ার পর হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply