নির্বাচন অবাধ নিরপেক্ষ হবে : কুমিল্লার জনসভায় প্রধানমন্ত্রী

কামরুজ্জামান জনি, কুমিল্লা থেকে:–
আগামী জাতীয় নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে বলে আবারো দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ জনগণের ভোটের নিশ্চিয়তা দেয়, জনগণের ক্ষমতায়নে বিশ্বাস করে। সুতরাং আগামী নির্বাচন হবে অবাধ ও নিরপেক্ষ। শনিবার কুমিল্লার টাউন হল মাঠে জনসভায় ভাষণ দেওয়ার সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। শেখ হাসিনা বলেন, স্থানীয় সরকার ও উপনির্বাচনসহ আওয়ামী লীগের শাসনামলে প্রায় ৫ হাজার ৫৯৪টি নির্বাচন হয়েছে। প্রত্যেকটি নির্বাচনই অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে। আগামী জাতীয় নির্বাচনও অবাধ সুষ্ঠু হবে এবং সেই নির্বাচনে জনগণ আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে দেশ সন্ত্রাসমুক্ত করবে ও দেশের উন্নয়নের গতিধারা অব্যাহত রাখবে। বিরোধীদলীয় নেতাকে উদ্দেশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিল বলেই কুমিল্লা নির্বাচনে বিএনপি জিততে পেরেছে। এরপরও কীভাবে আপনি নির্বাচনের ব্যাপারে অভিযোগ আনেন ? পরীক্ষার দিনে হরতালের কঠোর সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, বিরোধীদলীয় নেতার কাছে আমার প্রশ্ন- ছেলেমেয়েরা পড়াশোনা করবে, পরীক্ষা দেবে। আপনি বাধা দেন কেন ? অবশ্য একটা ব্যাপার আছে- উনি (খালেদা) মনে করেন- তিনি নিজে যখন পাশ করেন নি, তখন আমাদের দেশের কোনো ছেলেমেয়ে বুঝি আর পাশ করবে না। প্রধানমন্ত্রী বলেন, উনি (খালেদা) ছেলেদেরকেও কোনো বিষয়ে পাশ করাতে পারেন নি। পেরেছেন কেবল দুর্নীতি, মানি লন্ডারিং আর মানুষ খুন করার মতো বিষয়ে পাশ করাতে। দেশের মানুষ খুনিদের আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না মন্তব্য করে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, মানুষ খুন করায় বিএনপি-জামায়াতের কাজ। ২০০১ এর পর তারা ক্ষমতায় এসে অনেক মানুষ খুন করেছে। দেশের মানুষ অনেক সহ্য করেছে। তারা খুনি-সন্ত্রাসীদের আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না। এসময় দেশে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে খুনি-সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, বাংলাদেশ যখন উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে তখন বিএনপি-জামায়াত দেশের মানুষের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন চালাচ্ছে, মানুষ খুন করছে। প্রত্যেকটি হত্যাকান্ডের বিচার হবে। আর এসব হত্যাকান্ডের দায়ভার বিএনপি-জামায়াতকেই নিতে হবে। এর আগে সকালে শ্রীকাইল গ্যাসকূপ উদ্বোধন শেষে পার্শ্ববর্তী মুকলিশপুরে আয়োজিত জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ২০০১ সালে বিএনপি ষড়যন্ত্র করে ক্ষমতায় এসেছিল, তাই আপনারা গ্যাস পাননি। আল্লাহ এবার আমাদের দিকে ফিরে তাকিয়েছেন, তাই আমাদের আমলে প্রচুর গ্যাস পেয়েছি। আশা করি ভবিষ্যতে এই গ্যাস দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি করতে পারবো। এর আগে প্রধানমন্ত্রী কুমিল্লার মুরাদনগরে শ্রীকাইল গ্যাস ফিল্ডের গ্যাস কূপ খনন এবং আন্তঃসংযোগ পাইপ লাইনের মাধ্যমে গ্যাস সঞ্চালন কার্যক্রমের উদ্বোধন করে মুরাদনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি গ্যাস বিক্রির মুচলেকা দিয়ে ক্ষমতায় গিয়েছিল। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় লোভে গ্যাস বিক্রি করতে দেবে না। গ্যাসভিত্তিক শিল্পকারখানা গড়ে তোলা হবে। তিনি বলেন, ২০০৪ সালে বিএনপি সরকার এই শ্রীকাইল গ্যাস ক্ষেত্রে গ্যাস কূপ খনন করেছিল। কিন্তু তারা কোন গ্যাস পায়নি। বর্তমান সরকার আমলে গ্যাস কূপ খনন করে ৩টি গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কার করেছে। তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় গেলে দেশের অর্থ বিদেশে পাচার করে। মানি লন্ডারিং করে পাচার করা অর্থ দেশে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে এবং হবে।
গতকাল শনিবার কুমিল্লার মুরাদনগরের মুকলিশপুরে আয়োজিত প্রথম জনসভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি হারুন আল রশিদ, মুরাদনগরবাসীর পক্ষে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক অর্থ সম্পাদক ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবদুল আউয়াল সরকার, সংসদ সদস্য অধ্যাপক আলী আশরাফ, সংসদ সদস্য এ বি এম গোলাম মোস্তফা, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সরকার, মুরাদনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ। এর আগে শনিবার সকাল ৯টা ৩৫ মিনিটে ঢাকা থেকে প্রধানমন্ত্রী হেলিকপ্টারে রওনা দেন। সকাল ১০ টায় মুরাদনগরে গ্যাসকুপ খনন উদ্বোধন কর্মসূচি দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কুমিল্লা সফর শুরু হয়। এরপর তিনি হেলিকপ্টারে মুরাদনগর থেকে কুমিল্লা স্টেডিয়ামে আসেন। সেখান থেকে গিয়ে কুমিল্লা পৌরপার্ক-সংলগ্ন নবনির্মিত নজরুল ইন্সটিটিউট ভবন উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ, রেলপথমন্ত্রী মুজিবুল হক মুজিব, সংসদ সদস্য হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার, নজরুল ইন্সটিটিউট ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর এমিরিটাস রফিকুল ইসলাম, কবি পরিবারের সদস্য খিলখিল কাজী, নজরুল ইন্সটিটিউটের নির্বাহী পরিচালক রশীদ হায়দার প্রমুখ। এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নবনির্মিত নজরুল ইন্সটিটিউট ভবন উদ্বোধন উপলক্ষে কুমিল্লা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন। সংস্কৃতিমন্ত্রী আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন রেলপথমন্ত্রী মুজিবুল হক মুজিব, সংসদ সদস্য হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার, নজরুল ইন্সটিটিউট ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর এমিরিটাস রফিকুল ইসলাম, কবি পরিবারের সদস্য খিলখিল কাজী, সংস্কৃতিসচিব ড. রণজিত কুমার বিশ্বাস, কুমিল্লা জেলা প্রশাসক রেজাউল আহসান, নজরুল ইন্সটিটিউটের নির্বাহী পরিচালক রশীদ হায়দার প্রমুখ। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বই উপহার দেওয়া হয়। পরে অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। মধ্যহ্ন ভোজের পর কুমিল্লা টাউন হল মাঠে জেলার বিভিন্ন স্থানে বাস্তবায়িত ২৬টি উন্নয়ন কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। এরমধ্যে কুমিল্লা শহরের ধর্মপুরে ৪টি নতুন খাদ্য গুদাম, কুমিল্লা জেলা রেজিষ্ট্রি অফিসের নতুন ভবন, শেখ ফজিলাতুন্নেছা বহুমুখী কারিগড়ি কলেজের একাডেমিক ভবন, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে ছিলেন-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর, খাদ্যমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক, আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ প্রমুখ।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply