দেশ-বিরোধী ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে রূখে দাঁড়াতে হবে —-মুরাদনগরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

মোঃ হাবিবুর রহমান, মুরাদনগর (কুমিল্লা):–
প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যারা স্বাধীনতার শত্র“, যারা এ দেশের মা-বোনদের ইজ্জত-সম্মান নষ্ট করছে, যারা বাড়ি-ঘর লুটপাট করে দখল করেছে তারাই যুদ্ধাপরাধী। বর্তমান সরকার স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি। সে লক্ষে দেশবিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু করেছে। আল্লাহর রহমতে ক্ষমতায় থাকতেই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শেষ হবে ইনশাল্লাহ। কিন্তু বিএনপি-জামায়াত জোট সেই যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষার জন্য দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র করছে। হরতাল দিয়ে আগুন পুড়ে রিকশা ওয়ালাসহ সাধারণ মানুষকে হত্যা করছে। তাদের বিরুদ্ধে রূখে দাড়াতে হবে। তিনি আরো বলেন, বিগত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার গ্যাস বিদেশে বিক্রি করার ষড়যন্ত্র করেছিল। তারা ক্ষমতায় থাকতে কুপখনন করা হয়েছেল। কিন্তু কোন গ্যাসেন সন্ধান পায়নি। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পর পূনরায় কুপখনন করে গ্যাসের সন্ধান পেয়েছে। আওয়ামীলীগ যে কাজ করে সেটিতে সফলতা অর্জন করে। আর বিএনপি ক্ষমতায় এসে দেশের অর্থ মানিলন্ডারিং করে বিদেশে নিয়ে যায়। ইতিমধ্যে বিদেশ থেকে কিছু টাকা আনা হয়েছে। এফবিআইয়ের লোকজন এসে স্বাক্ষী দিয়েছে, বিদেশ থেকে মানিলন্ডারিংয়ের আরো টাকা আনার চেষ্টা চলছে। তিনি অত্র এলাকায় গ্যাস ভিত্তিক শিল্প-কারখানা গড়ে বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করার জন্য স্থানীয় শিল্পপতি ও ব্যবসায়ীদেরকে উদাত্ব আহবান জানান।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শনিবার সকালে কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার শ্রীকাইল (মুকলিশপুর) গ্রাস ক্ষেত্রের কূপ খনন এবং ১ দশমিক ৫ কিলোমিটার আন্তঃসংযোগ পাইপ লাইনের মাধ্যমে গ্যাস সঞ্চালন কার্যক্রম আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে মুরাদনগর উপজেলা আওয়ামীলীগ কর্তৃক আয়োজিত বিশাল জনসভায় এ কথা বলেন। মুরাদনগর উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হারুন আল রশীদের সভাপতিত্বে এতে আরো বক্তব্য রাখেন, জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এবিএম গোলাম মোস্তফা, জোবেদা খাতুন পারুল এমপি, আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক অর্থ ও পরিকল্পনা বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ্ব ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুন, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুল আউয়াল সরকার, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর আলম সরকার, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আবুল কালাম আজাদের উপস্থাপনায় উক্ত জনসভায় অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর, খাদ্য মন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক, বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী এনামুল হক, জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক ই এলাহী, সংসদ সদস্য আলী আশরাফ, সুবিদ আলী ভুইয়া, কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মো. রেজাউল আহসানসহ কুমিল্লা উত্তরের বিভিন্ন উপজেলা চেয়ারম্যান ও বিভিন্ন পেশাজীবীরা।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার ক্ষমতায় এসেও ধর্মীয় শিক্ষা বাধ্যতামূলক করেনি। কিন্তু এ সরকার ক্ষমতায় এসে নতুন শিক্ষানিতিতে ধর্মীয় শিক্ষা বাধ্যতামূলক করেছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৭৮ লাখ ১৮ হাজার ছাত্রীদের উপবৃত্তি প্রদান করতে সক্ষম হয়েছি। ভবিষ্যতে উপবৃত্তির সংখ্যা আরো বৃদ্ধি করা হবে। তিনি বলেন, সরকার শিক্ষার মান উন্নয়নে উপবৃত্তির পাশাপাশি ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে প্রত্যেক বিদ্যালয়ে বই পৌছাঁনোর ব্যবস্থা করেছে। এতে করে ১লা জানুয়ারি সকল ছাত্র-ছাত্রী বই পেয়ে আনন্দ উল্লাস করবে। এটি সরকারের একটি রড় সফলতা। এছাড়াও সরকার কৃষকদের সময়মতো সার দিচ্ছে। বিএনপির আমলে সার চাইতে গিয়ে পুলিশের গুলি খেয়ে কৃষকদের মরতে হয়েছে। এখন আর সারের জন্য কোন কৃষক গুলি খেয়ে মরতে হয় না। তিনি মুরাদনগর উত্তরাঞ্চলে একটি নতুন থানা বাস্তবায়ন করার জন্য উপস্থিত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীরকে নির্দেশ দেন।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply