অচলাবস্থা নিরসনের দাবীতে কুবিতে শিক্ষার্থীদের তালা:অবরুদ্ধ ভিসি ট্রেজারার রেজিস্ট্রার

কুবি প্রতিনিধি:–
শিক্ষক ধর্মঘটের কারণে একাডেমিক কার্যক্রমের অচলাবস্থা নিরসনের দাবীতে ও ছুটির দিনে ক্লাস চালুর দাবীতে বৃহস্পাতবার ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। সকাল ১০ টায় উপাচার্য বরাবর পাঁচ দফা দাবীতে স্মারকলিপি দিয়ে প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান নেয় সহস্রাধীক শিক্ষার্থী। এক পর্যায়ে সকাল সাড়ে দশটার দিকে বিক্ষোব্ধ শিক্ষার্থীরা প্রশাসনিক ভবনের মূল ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেয়। ফলে অবরোদ্ধ হয়ে পরে ভবনের ভিতরে অবস্থানরত ভিসি, ট্রেজারার, রেজিস্ট্রারসহ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের দাবী মেনে না নেয়ায় শিক্ষার্থীদের আন্দোলন অব্যাহত থাকে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, শিক্ষকদের পদোন্নতির নীতিমালা প্রণয়ন, দুই বছরের মধ্যে স্থায়ীকরন, পর্যাপ্ত ক্লাসরুম বৃদ্ধি, ল্যান্ডফোন ও ইন্টারনেট সুবিধা প্রদান, লাইব্রেরীর আকার বৃদ্ধিসহ এ পাঁচ দফা দাবীতে গত ২৮ মার্চ থেকে ধর্মঘট ডাকে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। এরই অংশ হিসেবে সকল ক্লাস পরীক্ষা বর্জন করে শিক্ষকরা। ফলে একাডেমিক কার্যক্রমে অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়। জানা যায়, শিক্ষকদের এ সকল দাবীর নিয়ে ভিসি কোন সমোজতা না করায় শিক্ষকরা আন্দোলন অব্যাহত রাখে। ফলে টানা ৭ দিনের অচলাবস্থায় বিক্ষোব্ধ হয়ে উঠে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। গতকাল সকালে শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধিরা একদিনের মধ্যে অচলাবস্থা নিরসন, শুক্র শনিবার ক্লাস চালু, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সেমিস্টার শেষ করা, অবকাঠামোগত বিভিন্ন উন্নয়নের দাবীতে ভিসির নিকট স্মারকলিপি প্রদান করে। পরবর্র্তীতে শিক্ষার্থীরা প্রশাসনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান করে। দুপুরের মধ্যে সকল দাবী না মানলে ছাত্রদের অবস্থান কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে এবং পরবর্তীতে আরো কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে বলে জানান হুশিয়ারী উচ্চারন করা হয়। শিক্ষার্থীরা জানায় দেশের রাজনৈকি অস্থিরতায় এমনিতেই আমরা সেশনজটে পরে আছি। এখন শিক্ষকদের আন্দোলনে এ সেশনজট আরো বেড়ে যাচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের এ অচলাবস্থায় ভিসি কোন ভূমিকাই গ্রহন করেনি। ফলে বাধ্য হয়েই আমরা সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীরা আন্দোলনে নামতে বাধ্য হয়েছি।
শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. আহসাস উল্যাহ জানান, শিক্ষকদের এ ন্যায্য দাবীকে ভিসি বারবারই উপেক্ষা করে যাচ্ছে। দেশের এ পরিস্থিতিতে শিক্ষকদের এ আন্দোলন শিক্ষার্থীদের জন্য ক্ষতিকর তা আমরাও বুঝি। কিন্তু ভিসির উদাসীনতায় আমরা এক প্রকার বাধ্য হয়েই অন্দোলনে নেমেছি।
শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. এ কে এম রায়হানউদ্দিন জানান, আমাদের অন্যতম দাবী পদোন্নতির নীতিমালার বিষয়ে কর্তৃপক্ষের আশ্বাষের চিঠি পেয়েছি। তবে আন্দোলনের বিষয়ে রোববার শিক্ষক সমিতির সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।
ভিসি ড. আমির হোসেন খান জানান, শিক্ষকদের সাথে আলোচনা চলছে। আশা করি আগামী সপ্তাহ থেকে ক্লাস পরীক্ষা নিয়মিত হবে।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply