১২দিন চিঠিপত্র আসছেনা ব্রা‏হ্মণপাড়া উপজেলা পোষ্ট অফিসে, ভোগান্তির শিকার জনসাধারণ

মিজানুর রহমান সরকার, ব্রা‏হ্মণপাড়া ॥
ইন্টারনেট ই-মেইলের ডিজিটাল যুগে তড়িৎ অনেক কিছু সম্ভব হলেও চিঠিপত্র আদান প্রদানের মূল মাধ্যম পোষ্ট অফিসের প্রয়োজনীয়তা এখনও ফুরিয়ে যায়নি। ডিজিটাল যুগে মোবাইল, এস.এম.এস. ই-মেইল, ইন্টারনেট ব্যবহার করে প্রয়োজনীয় অনেক কাজ সম্ভব হলেও সরকারী চাকুরী, অফিস আদালতের যোগাযোগ এখনও পোষ্ট অফিসের মাধ্যমেই চলছে নির্বিঘেœ। কোন কোন ক্ষেত্রে ডিজিটাল পদ্ধতির চালু হলেও, ১০০% কাজ সম্পন্ন করতে এখনও পোষ্ট অফিসের দ্বারস্ত হতে হচ্ছে সকলকে। যেমন শিক্ষক নিবন্ধন বা চাকুরীর আবেদনের ক্ষেত্রে প্রাথমিক আবেদন করা, টেলিটক সিমের মাধ্যমে ফি জমা দেয়া, প্রবেশপত্র ডাউনলোড করা ডিজিটাল ভাবে হলেও আবেদনের প্রিন্ট কপিসহ সার্টিফিকেট কপি উপস্থাপনের জন্য পোষ্ট অফিসে যেতে হয়। অনেক সরকারী নিয়োগের ক্ষেত্রে এখনও পোষ্ট অফিসের মাধ্যমে এনাগল ভাবে সম্পন্ন হয়ে থাকে। এছাড়া ডিজিটাল পদ্ধতির কারনে পূর্বের চেয়ে চিঠিপত্র কম আদান প্রদান হলেও পোষ্ট অফিসের মাধ্যমে টাকা পাঠানো খুবই জনপ্রিয় পদ্ধতি হওয়ায় দায়িত্বরত কর্মকর্তা কর্মচারীগণকে সারাক্ষন ব্যস্ত থাকতে দেখা যায়। এত গুরুত্বপূর্ন ক্ষেত্রে গত ১২দিন যাবত ব্রা‏হ্মণপাড়া উপজেলা পোষ্ট অফিসে কোন প্রকার চিঠি পত্র না আসায় ভোগান্তি হচ্ছে জনগনের। খবর নিয়ে জানা যায় গত ২০ মার্চের পর থেকে ওই পোষ্ট অফিসে কোন ডাক না আসায় উপজেলার সকল পোষ্ট অফিসগুলো ডাক শূন্য ভাবে দিন কাটাচ্ছে। দায়িত্বরত পোষ্ট মাষ্টার ইকবাল হোসেন মজুমদার বিষয়ের সত্যতা স্বীকার করে এ’প্রতিনিধিকে বলেন, উপজেলা সদরের পোষ্ট অফিস থেকে টাকা পাঠানো সহ ডিজিটাল অনেক সেবা পদ্ধতি চালু থাকায় ডাক ছাড়াও আমরা ব্যস্ত সময় কাটাই। নিয়মিত ডাক আসা যাওয়া না করলে সাব পোষ্ট অফিস গুলো কর্মহীন হয়ে পড়ে। ব্রা‏হ্মণপাড়া থেকে ডাক বুড়িচং যায়, সেখান থেকে রাজাপুর রেল ষ্টেশন হয়ে কুমিল্লা যায় এবং একই রাস্তায় ডাক আসে। আমার শাখার রানার রেহান উদ্দিন নিয়মিত বুড়িচং যাতায়াত করলেও দীর্ঘদিন এই শাখায় কোন ডাক আসা যাওয়া করছে না। অনেকে ডাকের জন্য অপেক্ষা করে বিরক্ত হলেও আমরা কোন সদোত্তর দিতে পারিনা। জরুরী চিঠির জন্য অপেক্ষমান উপজেলা নাইঘর গ্রামের জালাল উদ্দিন, রনি, তহিদুল ইসলাম, শাহনেওয়াজ, জালাল উদ্দিন, বারেশ্বর গ্রামের সালাউদ্দিন, টাকই গ্রামের জসিম উদ্দিন বলেন, আমরা জরুরী চিঠির জন্য প্রতিদিন পোষ্ট অফিসে এসে অপেক্ষা করি কিন্তু কোন চিঠিপত্র না আসায় হতাশ হয়ে ফিরে যাই। এভাবে চলতে থাকলে রাষ্ট্রীয় সেবার প্রতি মানুষের আস্থা আরও কমে যাবে। একটি উপজেলা পোষ্ট অফিসে ১২দিন ডাক আসেনা, ভাবতেও অবাক লাগে। ডাক বিভাগের লোকজন কি করে ? জনগনের প্রতি তাদের কি নূন্যতম কোন দায়িত্ব নেই ? আমরা এর সদোত্তর চাই। এই অবস্থায় ভোগান্তির স্বীকার লোকদের ক্ষতি পুরন কে দেবে? অনেকের চাকুরীর ইন্টারভিউ কার্ড নির্ধারিত দিনের পরে পৌছায়। এরূপ জরুরী অনেক ডাক নির্দিষ্ট সময়ে মানুষের হাতে পৌছানো দরকার। এসব সমস্যার কথা বিবেচনা করে জনগনের সেবার প্রতি সচেতন হয়ে সংশ্লিষ্ট মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ পূর্বক দ্রুত অবস্থার পরিবর্তন কামনা করেন এলাকার আপামর জনসাধারণ।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply