কুমিল্লার দেবিদ্বারে স্কুল ছাত্রীকে তুলে নিয়ে শ্লীলতা হানীর চেষ্টা; ছাত্রীর বাড়িতে হামলা ভাংচুর, দু’পক্ষের হামলায় চিকিৎসকসহ আহত-৩০: কুমিল্লা-সিলেট সড়ক অবরোধ

দেবিদ্বার(কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ—
কুমিল্লার দেবিদ্বারে প্রেমের প্রস্তাবে সাড়া না দেয়ায় ‘দেবিদ্বার ইন্টারন্যাশনাল ক্যাডেট স্কুল’র সপ্তম শ্রেণীর এক ছাত্রী(১৩)কে তুলে নিয়ে শ্লিলতাহানীর চেষ্টা চালায় শাহরিয়ার নামে এক বখাটে। বুধবার দুপুরে ওই ছাত্রী গোমতী ভেরি বাঁধ দিয়ে উপজেলার হামলাবাড়ি গ্রামের বাড়ি ফেরার পথে পাশ্ববর্তী নয়াকান্দি গ্রামে পূর্ব থেকে উৎপেতে থাকা বখাটে সন্ত্রাসী শাহরিয়ার তাকে জোর পর্বক মুখ চেঁপে তুলে নিয়ে খলিল মিয়ার ঘরে আটকে রেখে শ্লীলতা হানীর চেষ্টা চালায়। এসময় ওই ছাত্রীর সাথে থাকা বড় ভাইয়ের মেয়ে রিপা আক্তার(৬) বাড়িতে যেয়ে ঘটনাটি অবহীত করলে ছাত্রীর পরিবারের লোকজন ওই বাড়ির একটি ঘরের দরজা ভেঙ্গে তাকে উদ্ধার ও বখাটে শাহরিয়ারকে বেধরক মারধর করে। সংবাদ পেয়ে শাহরিয়ারের বড় ভাই সুমন মিয়া(২৫) দেবিদ্বার থেকে একদল যুবক নিয়ে ওই ছাত্রীর বাড়িতে গেলে গ্রামবাসীরা তাদের উপর হামলা চালায়। প্রতি পক্ষের হামলায় ভিক্টিম ছাত্রীর ঘর-দরজা আসবাব সামগ্রী ও একটি মোটর সাইকেল ভাংচুর ও বাড়ির লোকদের উপর চড়াও হয়। এসময় গ্রামবাসী তাদের ঘিরে ফেলে এবং বেধরক মারধর ও আহত করে। হামলায় উভয় পক্ষের অন্ততঃ ৩০জন আহত হয়। আহতদের কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স ও বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
মারাত্মক আহত নয়াকান্দি গ্রামের মনিরুল ইসলামের ছেলে বখাটে শাহরিয়ার ও বড় ভাই সুমন মিয়া(২৫), দেবিদ্বার গ্রামের আবু বকর খানের ছেলে আনোয়ার পারভেজ খান(২২), আব্দুল খালেকের ছেলে আলমগীর হোসেন(৩০), জলিল মিয়ার ছেলে মাসুম(১৮), ফিরোজ কবিরের ছেলে শাহাদাৎ হোসেন(১৯), মৃতঃ আবুল হোসেন’র ছেলে সুমন(২৫), আবুল কালামের ছেলে রাজিব(১৮), ছোট আলমপুর গ্রামের আবুল হাসেম’র ছেলে সজিব(২৫) ও সফিক(১৮), বালিবাড়ি গ্রামের মৃতঃ নজরুল ইসলামের ছেলে লিমন সরকার(২৫), হাজী সিরাজুল ইসলামের ছেলে রেয়াজ উদ্দিন(৩৫), হামলাবাড়ি গ্রামের আবুল হাসেমের ছেলে গোলাম কিবরিয়া(২৬), গুনাইঘর গ্রামের আকাব্বর আলীর ছেলে আঃ জলিল(২০)সহ অন্ততঃ ৩০জন। মারাত্মক আহত কিবরিয়া(২৬), আলমগীর ও শাহরিয়ারকে কুমেক হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে। মারাত্মক অপর আহত ভিক্টিম ছাত্রীর পক্ষের গোলাম কিবরিয়াকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পর দেবিদ্বারের ছেলেরা তাকে ইমার্জেন্সি কক্ষে ফেলে বেধরক মারধর করে এসময় কর্মরত চিকিৎসক ডা. বশির আহমেদ আহত হন।
সংবাদ পেয়ে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে যেয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনলেও সন্ধ্যা আটটায় এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। হামলায় আহতদের পক্ষে দেবিদ্বারের একদল যুবক সন্ধ্যা ৭টায় কিছু সময়ের জন্য কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ ও হামলাবাড়ি ভিক্টিম ছাত্রীর পক্ষের হামলাকারীদের গ্রেফতারের দাবীতে থানা ঘেরাও করে। অপর দিকে ছাত্রির পরিবার ও গ্রামবাসীরা নিরাপত্তা হীনতায় পালিয়ে থাকা ও মামলা দায়ের করতে থানায় আসতে পারছেন না বলেও ছাত্রীর ভাই নাছির উদ্দিন জানিয়েছেন।
‘দেবিদ্বার ইন্টারন্যাশনাল ক্যাডেট স্কুল’র সপ্তম শ্রেণীর স্কুল ছাত্রী ভিক্টিম(১৩) জানান, প্রায় ৬মাস পূর্ব থেকে প্রতিবেশী নয়াকান্দি গ্রামের মনিরুল ইসলামের পুত্র শাহরিয়ার তাকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে উত্তক্ত করে আসছিল। বিষয়টি পরিবার ও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে অবহীত করে রাখে। তিন মাস পূর্বে বখাটে শাহরিয়ার স্কুল থেকে যাওয়ার পথে তার গলার স্বর্নের চেইনটি ছিনিয়ে নেয়। ঘটনাটি পরিবারের কাউকে জানালে তার বড় ভাইকে মেরে ফেলার হুমকী দিলে বিষয়টি গোপন রাখে। বুধবার দুপুরে পরীক্ষা শেষে তার বড় ভাইয়ের সাথে বাড়ি আসে। পরে একটি টেইলারের দোকানে কাজ সেরে বাড়ি ফেরার পথে গোমতী ভেরী বাঁেধর উপর থেকে মুখ চেঁপে জোর পূর্বক খলিল মিয়ার ঘরে আটক রেখে শ্লিলতা হানীর চেষ্টা চালায়। এসময় তার পরিবারের লোকজন খবর পেয়ে তাকে উদ্ধার করে।
হামলায় আহত আনোয়ার পারভেজ খান জানায়, শাহরিয়ারের ভাই আমাদের সত্য ঘটনাটি না বলে ভুল বুঝিয়ে নিয়ে যায়, গ্রামবাসীরা আমাদের উপস্থিতি দেখে আমাদের উপর হামলা চালায়। স্কুল ছাত্রীকে উত্তক্ত করার কারনে শাহরিারকে মারধর করার বিষয়ে আমাদের জানানো হয়নি। জানলে আমরা যেতাম না।
এ ব্যপারে দেবিদ্বার থানার ভারপ্রপ্তি কর্মকর্তা(ওসি) এস এম বদিউজ্জামান বলেন, হামরাবাড়ি গ্রামের মোঃ রোশন আলীর মেয়ে ‘দেবিদ্বার ইন্টারন্যাশনাল ক্যাডেট স্কুলে পড়–য়া সপ্তম শ্রেণীর এক ছাত্রী(১৩)কে পার্শ্ববর্তী নয়াকান্দি গ্রামের শাহরিয়ার নামে এক বখাটে উত্তক্ত করে আসছিল। ওই ঘটনায় ছাত্রীর ভাই মোঃ নাছির উদ্দিন শাহরিয়ারকে মারধর করলে সে দেবিদ্বারের কিছু ছেলে ওই ছাত্রীর বাড়িতে নিয়ে যায়। গ্রামবাসীরা তাদের উপস্থিতিতে ক্ষুব্ধ হয়ে হামলা চালায়। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। রাত ৮টা পর্যন্ত থানায় কোন পক্ষই মামলা করেনি।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...