সরাইলে সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটিতে জামায়াত নেতার নাম প্রস্তাব করায় সরকার দলীয় নেতা-কর্মীদের তোপের মুখে ইউএনও

আরিফুল ইসলাম সুমন, স্টাফ রিপোর্টার ব্রাহ্মণবাড়িয়াঃ—
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে সোমবার সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটি গঠনের সময়ে উপজেলা জামায়াতের আমীর মাওলানা কুতুব উদ্দিনের নাম প্রস্তাব করায় সরকার দলীয় নেতা-কর্মীদের তোপের মুখে পড়েন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনিসুজ্জামান খান। এছাড়া স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় শিশু দিবস পালন কমিটিতে আওয়ামী লীগ নেতাদের নাম না থাকায় এ নিয়ে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সকালে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এক সভায় কমিটি গঠন নিয়ে নেতা-কর্মীদের তোপের মুখে পড়েন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। এখানকার বীর মুক্তিযোদ্ধারাসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা সভা বয়কটের ঘোষণা দেন। একপর্যায়ে সভা পন্ড হয়ে যায়। দুপুরে সরকারদলীয় শতাধিক বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মী উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দফতরে এসে ইউএনও’র অপসারণের দাবি জানান। তারা অভিযোগ করেন, জামায়াত শিবিরের সাথে ইউএনও’র যোগসূত্র রয়েছে। তার অপসারণের দাবিতে সরাইলে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার ঘোষণা দেন। এসময় নেতা-কর্মীদের মাঝে উত্তেজনা দেখা দিলে নির্বাহী কর্মকর্তা অফিস থেকে বেরিয়ে বাসভবনে চলে যান। তখন কর্মচারীরা দফতরে তালা লাগিয়ে দেয়।
যুবলীগ নেতা মো. শের আলম বলেন, সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটিতে এখানকার জামায়াতের আমীরের নাম প্রস্তাব করেন ইউএনও। মুক্তিযোদ্ধাসহ গণজাগরণ মঞ্চের কাউকে কমিটি গঠন সভায় রাখা হয়নি। তার কাছে জামায়াত শিবিরের কদর বেশী। সরাইল মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার যতীন্দ্র মোহন চৌধুরী বলেন, উপজেলার বিভিন্ন প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নৈশ প্রহরী নিয়োগে মুক্তিযোদ্ধার চার সন্তানকে নিয়োগ দেননি ইউএনও। সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটিতে জামায়াত নেতার নাম রাখা হয়েছে। এসব কারণে এখানকার সকল বীর মুক্তিযোদ্ধা ইউএনও ডাকা সভা বয়কট করেছেন। যোদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা মনির উদ্দিন বলেন, ইউএনও রাজাকারের নাতিকে চাকুরী দিয়েছেন। অথচ মুক্তিযোদ্ধাদের কোন অনুরোধই তিনি রাখেননি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আনিসুজ্জমান খান বলেন, সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটির আহবায়ক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। সব শ্রেণীর লোকদের নিয়ে এই কমিটি গঠনের নিয়ম রয়েছে। এখানে কে বিএনপি কে আওয়ামী লীগ তা বড় বিষয় নয়। মাওলানা কুতুব উদ্দিনের নাম বাজার কমিটির সভাপতি হিসেবে প্রস্তাব করা হয়, জামায়াত নেতা হিসেবে নয়। কয়েকজন যুবলীগ নেতা বিষয়টিকে অন্যভাবে বুঝানোর চেষ্টা করছেন।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply