কুমিল্লার দেবিদ্বারে পাচারকারী দলের ৩সদস্য আটক: ৩বছরের শিশু বিশাল উদ্ধার

DEBIDWAR PIC_.10স্টাফ রিপোর্টারঃ—
অপহরনের ১৫ ঘন্টার মধ্যে দেবিদ্বারের অপহৃত ৩বছরের শিশুসহ অপহরনকারী চক্রের ৩সদস্যকে আটক করেছে দেবিদ্বার থানা পুলিশ। শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ৮টায় উপজেলার খয়রাবাদ গ্রামে এ অপহরনের ঘটনা ঘটে ।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, খয়রাবাদ গ্রামের বিল্লাল হোসেন’র ৩বছরের শিশুপুত্র বিশাল শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ৮টায় নিখোঁজ হয়। তাকে অনেক খোঁজা খুজি করে না পেয়ে রাত ৩টায় থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ রাত ৪টায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বাড়ির লোকদের জিজ্ঞাসাবাদে অপহৃতর চাচি সাবিনাকে সন্দেহ হওয়ার তাকে জিজ্ঞাসাবাদে সে অপরণের কথা স্বীকার করে। সাবিনা শিশুটিকে অপহরন করে কুমিল্লা শহরের শাসনগাছা এলাকায় তার ছোট ভাই আবুল হাসেম’র মাধমে কুমিল্লা শহরের ভারত সীমান্ত এলাকার দুতিয়া দিঘীর পাড় গ্রামে রেখে ফিরে এসে স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে থাকে। তার স্বীকারোক্তিতে অভিযান চালিয়ে এবং এক নাটকীয় অধ্যায়ের মধ্য দিয়ে সকাল সাড়ে ১০টায় কুমিল্লার পালপাড়া ব্রীজ সংলগ্ন এলাকা থেকে বিশালকে উদ্ধার করে। এসময় বিশালের চাচা লিটন মিয়া(২৬), চাচি সাবিনা ইয়াছমিন(২২) ও সাবিনা ইয়াছমিনের ছোট ভাই আবুল হাসেম(২০)সহ ৩জনকে আটক করে।
ওই ঘটনায় অপহৃতার পিতা বিল্লাল হোসেন বাদী হয়ে আটক ৩জনকে অভিযুক্ত করে দেবিদ্বার থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন।
দেবিদ্বার থানার উপ-পরিদর্শক(এসআই) শাহ্ কামাল আকন্দ ও সহিদুল ইসলাম বলেন, শনিবার দিবাগত ভোর রাত ৪টা থেকে রোববার সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ১৫ঘন্টার এক শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান এবং এক নাটকীয় অধ্যায়ের মধ্য দিয়ে অপহৃত শিশু ও অপহরনকারী চক্রের ৩সদস্যকে আটক করতে সক্ষম হয়েছি। অপহরনকারী চক্রের অন্যতম সদস্য সাবিনা শিশু পাচারকারী চক্রের একজন সক্রিয় সদস্য। তার ব্যপারে খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে। সে শিশুটিকে মুক্তিপণ আদায়ের জন্য অপহরণ করেছিল বলে ধারনা করা হচ্ছে। আটক লিটন মিয়া তার তৃতীয় স্বামী। সে কুমিল্লার ভারত সীমান্ত এলাকার দুতিয়া দিঘীর পাড় গ্রামের সামসুল হক খন্দকারের মেয়ে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply