সরাইলে পুলিশ পরিচয়ে গণডাকাতি ৪ লাখ টাকার মালামাল লুট : আহত ৫

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধিঃ—
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে অরুয়াইল পুলিশ ফাঁড়ির অদূরে বারপাইকা এলাকায় গত সোমবার গভীররাতে পুলিশ পরিচয়ে গণডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এসময় ডাকাতদল বাড়ির পুরুষদের একটি ঘরে বেঁধে আটকে রাখে এবং নারী ও শিশুদের মারধোর শুরু করে। পরে তারা ৬টি বসতঘরে হামলা চালিয়ে অন্তত নগদ দুই লাখ টাকাসহ ৫ ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুটে নেয়। এ ঘটনায় শিশুসহ ৫ ব্যক্তি আহত হয়েছেন।
ডাকাতির শিকার পরিবারের লোকেরা জানান, গত সোমবার গভীর রাতে তারা (ডাকাতদল) বাড়িতে এসে পুলিশ পরিচয় দিলে ঘরে থাকা লোকেরা দরজা খুলে দেন। দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত ৪০/৪৫ জনের ডাকাতদল প্রথমে বাড়ির পুরুষদের বেঁধে ফেলে এবং নারীদের মারধোর করে নগদ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কারসহ প্রায় ৪ লাখ টাকার মালামাল লুটে নেয়। ডাকাতের ছুরিকাঘাতে আহত মোঃ জিয়ান উদ্দিন বলেন, বাড়ির কাছাকাছি অরুয়াইল পুলিশ ফাঁড়ি। তাদের কথা বিশ্বাস করে আমরা ঘরের দরজা খুলে দেয়। ডাকাতির ঘটনা থানাপুলিশকে জানায়নি। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, এতে ঝামেলা আরো বেশি। মালামালতো উদ্ধার হবেই না, ডাকাতও গ্রেফতার হবে না। উল্টো মামলার বাদী হতে হবে। এতে ডাকাতদল আবারো হামলা করতে পারে। আহত পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী নাজমা আক্তার জানায়, ডাকাতরা তাকে মারধোর করে কান ছিঁড়ে স্বর্ণের রিং নিয়ে যায়। আহত খুদেজা বেগম জানান, কান কেটে স্বর্ণের জিনিষ নিয়ে গেছে ডাকাতদল। ঘরে থাকা প্রায় দুই লাখ টাকার মালামাল লুটে নিয়েছে তারা। ইউনুছ মিয়া বলেন, তারা ৬টি ঘরে ডাকাতি করেছে। আমার ৮০ হাজার টাকার মালামাল নিয়ে গেছে। বাড়ির কাছেই পুলিশ ফাঁড়ি। ঘটনার ১৬ থেকে ১৮ ঘন্টা পেরিয়ে গেলেও পুলিশ এখনো ঘটনাস্থলে আসেননি।
অরুয়াইল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ মিজানুর রহমান তার ইউনিয়নের বারপাইকা এলাকায় গণডাকাতির ঘটনা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাটি আমি অনেক পরে জানতে পেরেছি।
সরাইল থানার ওসি (তদন্ত) খন্দকার ফুয়াদ রোহানী বলেন, ডাকাতির ঘটনাটি আমার জানা নেই। তাছাড়া এ বিষয়ে কেউ অভিযোগ করেনি। খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নিব।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply