ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে এক বছরে গোষ্ঠিগত দাঙ্গায় প্রায় ১২ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি

sarail pic 10-2-13= (1)আরিফুল ইসলাম সুমন, ব্রাহ্মণবাড়িয়াঃ—
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে গত এক বছরে বিভিন্ন এলাকায় গোষ্ঠিগত দাঙ্গায় অন্তত ৫৬০টি ঘরবাড়ি-ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের শিকার হয়েছে। এতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ১২ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে বলে স্থানীয় একাধিক সূত্র জানিয়েছে। এসব ঘটনায় অন্তত শতাধিক পরিবারের নারী-পুরুষ ও শিশুরা ঘরবাড়ি ছেড়ে অন্যত্র মানবেতর জীবন যাপন করছে। অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর ও লুটপাটের বেশক’টি ঘটনায় মামলা হলেও এর কোন যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না বলে ভূক্তভোগী অনেকে এ অভিযোগ করছেন। এছাড়া এসব দাঙ্গায় নিহত হয়েছেন শিশুসহ বেশকয়েকজন নারী-পুরুষ। আহত হয়েছেন প্রায় ৬শ’রও বেশি মানুষ। অঙ্গহানির শিকার হয়েছেন কয়েকজন। অনুসন্ধানে জানা যায়, সরাইলে গত এক বছরে গোষ্ঠিগত দাঙ্গায় অন্যান্যের মধ্যে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে উপজেলার অরুয়াইল ইউনিয়নের ধামাউড়া, শাহাজাদাপুর ইউনিয়নের দেওড়া, পাকশিমুল ইউনিয়নের তেলিকান্দি ও সদর ইউনিয়নের সৈয়দটুলা ও কুট্টাপাড়া গ্রামের বেশকিছু ঘরবাড়ি ও প্রতিষ্ঠান।
sarail pic 10-2-13= (3)
ধামাউড়া গ্রামে ক্ষয়ক্ষতি ৫ কোটি টাকা :
মেঘনা পাড়ের এ গ্রামটিতে মাত্র চার আনা ওজনের এক জোড়া কানের দুল নিয়ে দু’গোষ্ঠির মধ্যে দাঙ্গার সূত্রপাত। স্থানীয়রা জানান, দু’গোষ্ঠির দীর্ঘ দিনের কয়েক দফা দাঙ্গায় প্রাণ হারিয়েছেন কৃষক বোরহান মিয়া, মোঃ জজ মিয়া, দিনমজুর নবী হোসেন, সোয়াব মিয়া ও গৃহিনী সখিনা খাতুন নামে পাঁচ ব্যক্তি। আহত হন প্রায় তিনশ’রও বেশি মানুষ। লুটপাট, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের শিকার হয়েছে প্রায় ৪৬০টি ঘরবাড়ি। কৃষকের গরু লুট হয়েছে ৮৪টি। এলাকা ছাড়া রয়েছে অন্তত ৭০টি পরিবার। অঙ্গহানি ঘটেছে ১২ জনের। দাঙ্গার কারণে প্রায় ৮শ’ একর জমি অনাবাদি রয়েছে। অরুয়াইল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ মিজানুর রহমান জানান, গোষ্ঠিগত দাঙ্গায় ইউনিয়নের ভূগোলিক দিক থেকে বড় ধামাউড়া গ্রামটি আজ ধ্বংসের পথে। এতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রায় পাঁচ কোটি টাকার বেশি হবে। গ্রামের মানুষের মাঝে নেই কোন আনন্দ। মামলা-মোকদ্দমায় জড়িয়ে গ্রামের কয়েকশ’ মানুষ এখন এলাকা ছাড়া। অনেকে হারিয়েছে একমাত্র বসতঘর। বেকার হয়ে পড়েছেন গ্রামের অন্তত শতাধিক মানুষ। শিক্ষা গ্রহণ থেকে বঞ্চিত রয়েছে অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী। এ গ্রামে শান্তি ফিরিয়ে আনতে জনপ্রতিনিধিসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা নানাভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।
sarail pic 10-2-13= (4)
দেওড়ায় দুই কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি :
এক সময়ে ব্যবসা বাণিজ্য ও শিক্ষায় এগিয়ে থাকা দেওড়া গ্রামের মানুষের মাঝে এখন শুধুই আতঙ্ক বিরাজ করছে। এক বছর আগে অর্থ লেনদেনের ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত হন সোহরাফউল্লাহ ঠাকুর নামে এক ব্যক্তি। এলাকাবাসী জানান, এ ঘটনায় নিহতের বড় ভাই সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সায়েফউল্লাহ ঠাকুরের লোকেরা প্রতিপক্ষের ঘরবাড়িতে দফায় দফায় হামলা চালিয়ে লুটপাট, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে। এতে ২০টিরও বেশি ঘরবাড়ি ক্ষয়ক্ষতির শিকার হয়। হামলাকারীদের তান্ডবে ৭টি পরিবার এখন গ্রাম ছাড়া। এসব ঘটনায় গ্রামে ঘরবাড়ির ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে দুই কোটি টাকারও বেশি। এসব হামলার ঘটনায় মামলা হয়েছে। এদিকে একটি অসাধু মহলের যোগসাজশে নিহত সোহরাফউল্লাহ মামলায় স্থানীয় জনপ্রিয় ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম খোকনকে আসামি করা হয়। শাহজাদাপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ রফিকুল ইসলাম খোকন জানান, একের পর এক হামলায় গ্রামের বেশকিছু ঘরবাড়ি তছনছ হয়ে গেছে। দিন দুপুরে সোহরাফ উল্লাহ ঠাকুর নিহত হয়েছেন। কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তা এলাকার অনেকেরই জানা। ষড়যন্ত্র করে এ মামলায় আমাকে আসামি করা হয়। পুলিশের অভিযোগপত্রে (চার্জশীট) নাম না থাকলেও পরবর্তীতে অদৃশ্য কারণে আমাকে এ মামলায় আসামি করা হয়েছে। বর্তমানে আমি জামিনে আছি। কিন্তু কতিপয় সন্ত্রাসীদের হামলার ভয়ে পরিষদের কাজকর্ম আমি স্বাভাবিকভাবে করতে পারছি না।
সৈয়দটুলা ও কুট্টাপাড়া গ্রামে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ৫ কোটি টাকার বেশি :
সরাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি জনপ্রিয় নেতা ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হাজী এ.কে.এম ইকবাল আজাদ দলীয় কোন্দলের জের ধরে গত ২১ অক্টোবর নিহত হন। এ ঘটনায় সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে কয়েকজন নেতার ঘরবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে উত্তেজিত জনতা। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সরাইল সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল জব্বারের বাড়িতে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়। আব্দুল জব্বারের স্ত্রী নাজমা বেগম জানান, আমার স্বামী পর পর দু’বার ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাকে ষড়যন্ত্র করে এ মামলায় আসামি করা হয়েছে। তিনি এখন জেলে আছেন। হামলাকারীরা ঘরে থাকা ১৪ ভরি স্বর্ণলঙ্কারসহ মূল্যবান মালামাল লুটে নেয়। পরে ঘরের ফার্নিচারসহ অন্যান্য মালামাল ভাংচুর করে তাতে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে প্রায় ৩০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এদিকে এ হত্যার ঘটনায় সৈয়দটুলা গ্রামের বাসিন্দা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার ইসমত মিয়া ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ইদ্রিছ আলীর বাড়িতে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে বিক্ষুব্ধ জনতা। এতে ৮টি বসতঘরসহ মালামাল পুড়িয়ে দেয়া হয়। স্থানীয়রা জানান, এতে অন্তত এক কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়। অপরদিকে এ ঘটনায় সরাইল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাজী রফিক উদ্দিন ঠাকুরের প্রগতি লেয়ার ফার্ম ও তার কুট্টাপাড়া গ্রামের বাড়ির ৪টি ঘরসহ মালামাল আগুনে পুড়িয়ে দেয় জনতা। এছাড়া তার মালিকানাধীন আজম ব্রিকস ফিল্ড চালু অবস্থায় বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। উপজেলা চেয়ারম্যানের ছোট ভাই শাহীন ঠাকুর জানান, লেয়ার ফার্মে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগে প্রায় কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। ঘরবাড়ির ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ অন্তত ৯০ লাখ টাকা। ইটভাটা বন্ধ করে দেয়ায় এক কোটি টাকার উপরে লোকসান হয়েছে। তাছাড়া আমার চাচা আশরাফ আলী ঠাকুরের বসতঘর, মালামালসহ ৬০ মণ পাট আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। এতে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে প্রায় ২০ লাখ টাকা। কুট্টাপাড়া গ্রামের একাধিক ব্যক্তি জানান, ইকবাল আজাদ নিহত হওয়ার ঘটনায় মুক্তিযোদ্ধা মফিল মিয়ার বাড়ির তিনটি ঘর আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। এতে অন্তত ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। তাছাড়া মাহফুজ আলীর বাড়ির ঘর ও মালামাল ক্ষতি হয়েছে প্রায় ৬ লাখ টাকার। এছাড়াও উত্তেজিত লোকেরা আরো বেশকয়েকটি ঘরবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর করে।
তেলিকান্দি গ্রামে ক্ষয়ক্ষতি ৩০ লাখ টাকা :
পাকশিমুল ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চল তেলিকান্দি গ্রামে নূর মিয়া ভূইঁয়া নিহত হওয়ার ঘটনায় প্রতিপক্ষের ২০টি বাড়িতে হামলা চালিয়ে লুটপাট, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে। এতে ১১টি বতসঘর মালামালসহ আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয়। আগুনে পুড়ে ও পানিতে ডুবে মারা যায় দু’টি গরু। এ সময় হামলাকরীরা প্রতিটি পরিবারের ধান, চাল, গরু, ছাগল ও হাঁস-মুরগি লুট করে নিয়ে যায়। আহত হন ২০ জন। পাকশিমুল ইউপির চেয়ারম্যান কাজী মোজাম্মেল হক জানান, তেলিকান্দি গ্রামে এ ঘটনাটি অত্যন্ত নিন্দনীয়। এ ঘটনায় অন্তত ৩০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply