সরাইলে বিষ মেশানো খাবার খেয়ে ৩ শিশু হাসপাতালে: : নগদ টাকাসহ ২ লাখ টাকার মালামাল চুরি

আরিফুল ইসলাম সুমন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকেঃ—
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে পরিবারের লোকদের অজ্ঞান করে এক প্রবাসীর বাড়িতে দুঃসাহসিক চুরির ঘটনা ঘটেছে। চোরেরা নগদ ১ লাখ ৪৭ হাজার টাকা ও স্বর্ণাংকারসহ প্রায় আড়াই লাখ টাকার মালামাল নিয়ে যায়। এদিকে এ ঘটনায় বিষ ক্রিয়ায় অসুস্থ হয়ে স্কুলছাত্রসহ তিন শিশু হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছে। গত শুক্রবার রাতে সরাইল উপজেলার চুন্টা ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চল তারাখলা গ্রামের ওমান প্রবাসী মোঃ দানিছ মিয়ার বাড়িতে এ চুরির ঘটনা ঘটে।
এলাকাবাসী জানান, গত শুক্রবার সন্ধ্যার পর তারাখলা গ্রামের হালিমা বেগম নামক মহিলা একই গ্রামের প্রবাসী দানিছ মিয়ার বাড়িতে এসে পানি চায়। প্রবাসীর স্ত্রী মর্জিনা বেগম পানি আনতে গেলে সুযোগে এ পরিবারের রাতের খাবারে বিষ মিশিয়ে দেয় হালিমা বেগম। এই বিষ মেশানো খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়ে দানিছ মিয়ার তিন ছেলে ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্র সুজন, ইমন (৬) ও সাইমন (৪)। ভোর সকালে ঘুম থেকে জেগে মর্জিনা বেগম দেখেন তার টিনশেড ঘরের বেড়া কাটা এবং ঘরের আসবাবপত্র এলোমেলো। স্বামীর পাঠানো ১ লাখ ৪৭ হাজার টাকা, ব্যবহৃত স্বর্ণালঙ্কার ও দু’টি মোবাইল সেট আলমারিতে নেই। এছাড়া বিছানায় তার তিন শিশু সন্তান অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে রয়েছে। সুর-চিৎকারে প্রতিবেশী লোকেরা এগিয়ে এসে অসুস্থ তিন শিশুকে হাসপাতালে ভর্তি করেন। কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, শিশু তিনটির অবস্থা আশংকাজনক। এদিকে এ ঘটনায় স্থানীয়দের হাতে আটক হালিমা বেগম টাকার লোভে খাবারে বিষ মেশানোর কথা স্বীকার করে। তারাখলা গ্রামের আতিক মিয়া নামক যুবকের কথায় হালিমা এ জঘন্য কাজটি করেছে বলে গ্রামবাসীকে জানিয়েছে। শিশুদের মাতা মর্জিনা বেগম জানিয়েছে, সন্তানদের রাতের খাওয়া শেষ হলে আমি না খেয়েই ঘুমিয়ে পড়ি। সকালে জেগে দেখি ঘরে রাখা নগদ টাকা ও মালামাল নেই। মর্জিনা বেগম দাবি করেন হালিমা বেগম রাতের খাবারের সাথে বিষ মিশিয়ে দেয়। তারাখলা গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য মোঃ শাহজাহান মিয়া জানান, বিষয়টি অত্যন্ত দুঃসাহসিক ও বেদনাদায়ক। হালিমাকে গ্রামবাসী আটক করেছে। এ ঘটনার পর থেকে ঘটনার মূল হোতা বখাটে আতিক পালিয়ে রয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply