নাঙ্গলকোটে অর্ধশতাধিক আর্সেনিক রোগী শনাক্ত

মোঃ আলাউদ্দিন, নাঙ্গলকোট থেকেঃ—-
কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে আর্সেনিকের ভয়াভহতা দেখা দিয়েছে। এ পর্যন্ত অন্তত অর্ধশতাধিক রোগী শনাক্ত হয়েছে। আর্সেনিকযুক্ত টিউবয়েলের পানি পান করার কারণে এ রোগের ভয়াবহতা বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে চিকিৎসকদের অভিমত।
উপজেলার আদ্রা ইউপির আর্সেনিক আক্রান্ত এলাকা ঘুরে যায় পুরো আদ্রা জুড়ে বিভিন্ন গ্রামে আর্সেনিকের ভয়াভহতা বিরাজ করছে। আদ্রা গ্রামের মেছুরা বেগম (৫০), ছখিনা বেগম (৪৫), ফজিলতের নেছা (৪৫), জান্নাতুল ফেরদাউস (৩৫), কুসুম আক্তার (৩৫), তাজুল ইসলাম (৫৫), ফারুক (২০), আজিম (৮), উম্মে রুনা (২৫), হারুনুর রশিদ (৪৫) সহ প্রায় অর্ধশতাধিক লোক আর্সেনিক রোগে আক্রান্ত। মেছুরা বেগম জানান, গত ১০ বছর ধরে আর্সেনিকের যন্ত্রনা ভোগ করে আসছি। দেড় বছর থেকে স্থানীয় স্বাস্থ্য সহকারীর মাধ্যমে ওষুধ সেবন করলেও গত ৬ মাস ওষুধ সেবন না করায় আর্সেনিকের তীব্র যন্ত্রনায় তিনি কাতর। আর্সেনিক রোগে আক্রান্ত ব্যবসায়ী তাজুল ইসলাম জানান, হাসপাতাল থেকে কিছুদিন ওষুধ প্রদান করা হলেও এখন তা দেয়া হয়না। তিনি দোকান থেকে ওষুধ কিনে সেবন করছেন। তাদের সবার হাত, পিঠ, পায়ে আবার অনেকের পুরো শরীর জুড়ে আর্সেনিক আক্রান্তের লক্ষন রয়েছে। উল্লেখ্য, উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে আর্সেনিকের ভয়াভহতা বিরাজ করছে। তার মধ্যে জলাঞ্চলখ্যাত আদ্রা এবং জোড্ডা ইউপিতে আর্সেনিক আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা সবছেয়ে বেশি। ডাক্তারদের মতে, দীর্ঘদিন থেকে আর্সেনিকে আক্রান্ত রোগীদের ধীরে ধীরে ক্যান্সার, আলসার রোগে আক্রান্ত এবং কিডনি পর্যন্ত অকেজো হয়ে যেতে পারে। নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ লেয়াকত আলী বলেন, আর্সেনিকের নির্দিষ্ট কোন চিকিৎসা নেই। তবে প্রধান চিকিৎসা হচ্ছে আর্সেনিক যুক্ত পানি পান না করে আর্সেনিক মুক্ত পানি করা।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply