প্রভাবশালী এক মুক্তিযোদ্ধার কান্ডঃ মুরাদনগরে মুক্তিযোদ্ধা সংগঠনের নামে ভবন দখলে ব্যার্থ হয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা।

মোঃ মোশাররফ হোসেন মনির, মুরাদনগর(কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ
মুরাদনগর উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়ন পরিষদের পুরাতন একটি ভবন মুক্তিযোদ্ধা সংগঠনের নামে একক ভাবে দখল করতে ব্যার্থ হয়ে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সহ চার ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে আদালতে ভাংচুরের কথিত একটি মামলা দায়ের করে এলাকায় ব্যাপক বিতর্ক সৃষ্টি করেছে এক প্রভাবশালী মুক্তিযোদ্ধা। ক্ষুব্ধ হয়ে সোমবার দুপুরে পাহাড়পুর ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে ইউনিয়নের সর্বস্তরের মুক্তিযোদ্ধারা ঐক্যবদ্ধ হয়ে ওই দখলদারের বিচার দাবী করেছে। সরেজমিন অনুসন্ধানে জানা যায় , উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়ন পরিষদে মুক্তিযোদ্ধাদের একটি কার্যালয় থাকা সত্বেও পাহাড়পুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদেরকে পাশ কাটিয়ে এলাকার কিছু প্রভাবশালী মাস্তানদের সাথে আতাত করে মুক্তিযোদ্ধা সমবায় সমিতির নাম দিয়ে পাহাড়পুর ইউনিয়ন পরিষদের পুরাতন ভবনটি এককভাবে দখল করলে সোচ্চার হয়ে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তোফায়েল শিকদার সহ ইউপি সদস্যরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে মুরাদনগর থানায় অভিযোগ করলে তৎকালীন থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোয়াজ্জেম হোসেনের নির্দেশে সাইন বোর্ডটি নামিয়ে ফেলেন ইউপি চেয়ারম্যান তোফায়েল শিকদার। পরে ক্ষুব্ধ হয়ে ওই মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক ইউপি চেয়ারম্যান তোফায়েল শিকদার সহ পরিষদের সদস্যদেরকে শায়েস্তা করার জন্য মুক্তিযোদ্ধা কার্যালয় ভাংচুর করেছে মর্মে কুমিল্লার আদালতে একটি মামলা দায়ের করলে ইউনিয়নের সর্বস্তরের মুক্তিযোদ্ধারা ঐক্যবদ্ধ হয়ে গতকাল সোমবার ইউপি চেয়ারম্যান তোফায়েল শিকদার সহ ইউপি সদস্যদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলার তীব্র প্রতিবাদ জানায় এবং ভাংচুরের ঘটনাটি মিথ্যা বানোয়াট বলে দখলদার আঃ মালেকের এহেন কর্মকান্ডের জন্য মুক্তিযোদ্ধাদের ইমেজ ক্ষুন্ন হচ্ছে বলে তার বিচার দাবী করেন। এ দিকে ভবন দখল করতে ব্যার্থ হয়ে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক ইউপি চেয়ারম্যান সহ সদস্যদেরকে হয়রানী করার জন্য আদালতে যে মামলাটি করেছে তা কয়েকবার তদন্ত করে কর্মকর্তারা সত্যতা না পেলেও সম্প্রতি তার আবেদনের প্রেক্ষিতে পুনরায় আদালত পুলিশের কাছে তদন্তভার ন্যাস্ত করায় আসামীরা ব্যাপক হয়রানীর আশংকা করছে। এ ব্যাপারে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোশারফ হোসেন জানান , পাহাড়পুর ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে আমাদের একটি কার্যালয় রয়েছে অন্য কোথাও আমাদের আর কার্যালয়ের প্রয়োজন নেই তিনি বলেন, দখলদার আঃ মালেক মুক্তিযোদ্ধার নাম ভাঙ্গিয়ে এলাকায় বিভিন্ন অপকর্ম করে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের কলংকিত করছেন। আমরা এলাকার সর্বস্তরের মুক্তিযোদ্ধারা তার বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহন করার জন্য মাননীয় মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী সহ সংশ্লিষ্ট দফতরের উর্ধতন কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষন করছি। মুক্তিযোদ্ধা সাইদুল ইসলাম জানান , আব্দুল মালেক প্রকৃত পক্ষে একজন দুর্দান্ত মামলাবাজ তার কৃতকর্মের কারনে আমরা এলাকায় মুখ দেখাতে পারিনা।

Check Also

দেবিদ্বারের সাবেক চেয়ারম্যান করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় মৃত্যু: কঠোর নিরাপত্তায় গ্রামের বাড়িতে লাশ দাফন

দেবিদ্বার প্রতিনিধিঃ কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ভাণী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান (৫৫) করোনায় আক্রান্ত ...

Leave a Reply