এক কম্বলে ৩৯ জন

সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) / ২২ ডিসেম্বর (কুমিল্লাওয়েব ডটকম)——
সরাইল উপজেলায় দুস্থ মানুষের সংখ্যা ১৪ হাজার। এর বিপরীতে সরকারিভাবে শীত কম্বল বরাদ্দ এসেছে মাত্র ৩৫৯ পিছ। আর এ কম্বল বিতরণে প্রশাসনকে একটু বেকাদায়ই পড়তে হবে বলে মনে করছেন অনেকে। তবে সরকারের এই উদ্যোগের পাশাপাশি বিত্তবানদের এগিয়ে আসা উচিত বলে মন্তব্য অনেকের।
গত কয়দিন ধরেই হাড় কাপাঁনো শীত ও ঘন কুয়াশায় কাহিল হয়ে পড়েছেন সরাইল উপজেলার সাধারণ মানুষ। এদের মধ্যে দরিদ্র পরিবারের লোকদের অবস্থা ভয়াবহ। নেই শীত বস্ত্র। এসব পরিবারের অনেকে শীত জনিত নানা রোগে ভুগছেন। উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তার দফতর সূত্রে জানা গেছে, এই উপজেলায় দুস্থ মানুষের সংখ্যা ১৪ হাজারেরও বেশি।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গতকাল শনিবার পর্যন্ত উপজেলার দুস্থ শীতার্ত মানুষের মাঝে সরকারী-বেসরকারী উদ্যোগে কেউই শীত বস্ত্র বিতরণ করেননি। যদিও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পি.আই.ও) মো. রইস উদ্দিন জানিয়েছেন, উপজেলার দুস্থ অসহায় মানুষের জন্য সরকারীভাবে তিন শত ৫৯টি শীত কম্বল বরাদ্দ এসেছে। যা এখনো বিতরণ করা হয়নি।
এদিকে শীত কম্বল বরাদ্দ নিয়ে স্থানীয়ভাবে নানা শ্রেণী পেশার মানুষ হরেক রকম আলোচনা করছেন। অনেকে বলছেন, উপজেলায় দুস্থ মানুষের সংখ্যা ১৪ হাজার। কিন্তু সরকারীভাবে শীত কম্বল বরাদ্দ এসেছে মাত্র ৩৫৯ পিছ। সেই হিসেবে একেকটি কম্বল ৩৯ শীতার্ত মানুষের জন্য বরাদ্দ। আবার কেউ কেউ বলছেন ‘এক কম্বলে ৩৯ জন’। অপরদিকে বেশিরভাগ মানুষ আশা প্রকাশ করে বলেন, সরকারীভাবে বরাদ্দ যা-ই আসুক শীত কম্বলগুলো প্রকৃত দুস্থ মানুষদের মাঝে বিতরণ হোক এটাই সকলের দাবি। কারণ অতীতে শীতার্ত মানুষের এসব কম্বল বা শীত বস্ত্র নিয়ে ক্ষমতাসীনরা নানা হেরফের করেছেন।
সরাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনিছুজ্জামান খাঁন বলেন, সরকারী বরাদ্দ ৩শত ৫৯টি কম্বল পাওয়া গেছে। খুব তাড়াতাড়ি এসব কম্বল দুস্থ শীতার্ত মানুষের মাঝে বিতরণ করা হবে।

আরিফুল ইসলাম সুমন

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply