কুমিল্লার তিতাসে ব্রিজ নির্মাণকে কেন্দ্র করে দোকানপাট বসতঘর ভাংচুর লুটপাত ও অগ্নিসংযোগ::পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি

তিতাস / ৬ ডিসেম্বর (কুমিল্লাওয়েব ডটকম)———
তিতাসের ভিটিকান্দি ইউনিয়নে গোমতী নদীর উপর ব্রিজ নির্মাণকে কেন্দ্র করে গতকাল ৭ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার দিনভর দোকানপাট বসতঘর ভাংচুর মালামাল লুটপাট ও নির্মাণ সামগ্রীতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৫ রাউণ্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ভিটিকান্দি ইউনিয়নের দাসকান্দি বাজার সংলগ্ন গোমতী নদীর উপর ব্রীজ নির্মাণের দাবী জানিয়ে আসছে এলাকাবাসী। কিন্তু ব্রীজটি উক্ত স্থানে না হয়ে হরিপুর বাজার সংলগ্ন গোমতী নদীর উপর নির্মাণের কাজ শুরু করায় দাসকান্দি, ভিটিকান্দি, ঘোষকান্দি, পোড়াকান্দি, হারাইকান্দি, দুলারামপুর, কলাকান্দি, কালাচান্দকান্দি, আলীনগরসহ আরো কয়েকটি গ্রামের সাধারণ জনগণের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। গত ৫ মাস যাবৎ এলাকাবাসী মানববন্ধন, র‌্যালী ও বিক্ষোভ সমাবেশ পালন করে আসছে।
গতকাল ৭ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ব্রীজ নির্মাণের স্থান হরিপুর বাজারে এস.আই জহিরুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। অপরদিকে দাসকান্দি বাজারে শত শত লোক সমবেত হয়েছে নির্মাণ কাজে বাঁধা দেয়ার জন্য। বেলা ১২টায় দাসকান্দি বাজার থেকে হাজার হাজার লোকজন দেশীয় অস্ত্র বল্লভ, টেটা, রামদা, ছুরি, হকি ইষ্টিক ও ইটপাটকেল নিয়ে হরিপুর বাজারে নির্মাণ কাজে বাঁধা দিয়ে হরিপুর বাজারের ব্যবসায়ী জহর মিয়া, জসিম উদ্দিন, ইব্রাহিম, জবেদ আলী, মতি মিয়ার দোকান ঘর ভাংচুর ও মালামাল এবং তারা মিয়ার বসত বাড়ীতে হামলা চালিয়ে ঘর ভাংচুরসহ মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। উত্তেজিত জনতারা নির্মাণ সামগ্রী কাজে ব্যবহৃত ১৬, ২০, ৮ গোড়া মেশিন, হল্ডিং মেশিন ২টি, ফোর সিলিন্ডার লাষ্টন মেশিন ১টিসহ বিভিন্ন ধরনের পাইপে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং একটি ব্র্যাক স্কুল ভাংচুর করে। এসময় হাজার হাজার লোক নির্মাণ কাজে ব্যবহৃত রড, সিমেন্ট, টিন, কাঠসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র লুট করে নিয়ে যায়। এসময় পুলিশ ৫ রাউণ্ড ফাঁকা গুলি করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ব্যর্থ হলে ক্ষুদ্ধ জনতা হরিপুর গ্রামে হামলা চালাতে গেলে হরিপুর গ্রামের মধ্যেও উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এবং হরিপুর গ্রামবাসী দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে পাল্টা হামলার প্রস্তুতি নেয়। কিন্তু উত্তেজিত জনতা হরিপুর গ্রামে প্রবেশ করতে পারেনি। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক রফিকুল ইসলাম জানায় এতে প্রায় ৫০ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে। খবরটি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ.এস.এম নুরুল আলম তালুকদার অতিরিক্ত পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌছে উত্তেজিত জনতাকে শান্ত করে।
উল্লেখ্য, উপজেলার কলাকান্দি ও ভিটিকান্দি ইউনিয়নের জনসাধারণের যাতায়াতের সুবিধার্থে ‘উপজেলা ও ইউনিয়ন সড়কে দীর্ঘ সেতু নির্মাণ প্রজেক্টে’র আওতায় কদমতলী-হরিপুর-দাসকান্দি সড়কে গোমতী নদীর উপর ৫ কোটি ৮৫ লক্ষ ৪৫ হাজার ২ শত ৫০ টাকা ব্যয়ে ১২৫.১০ মিটার আরসিসি ব্রীজটি নির্মাণের জন্য সিদ্ধান্ত হয়। এদিকে ব্রীজটি বর্তমান স্থানে নির্মাণ করা হলে সাধারণ জনগণের কোন কাজে আসবে না বলে গত ৫/৬ মাস যাবৎ এলাকাবাসী দাবী জানিয়ে আসছে এবং বিভিন্নভাবে আন্দোলন করে যাচ্ছে। এলাকায় পরিস্থিতি থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলেও আংশকা করছে এলাকাবাসী।

ছবির ক্যাপশন (ছবি একই ফাইলে আলাদা পাঠানো হয়েছে)
তিতাসের দাসকান্দি ব্রিজ নির্মাণের দাবীতে উত্তেজিত জনতা দোকানপাট, বসতঘর ভাংচুর, নির্মাণ সামগ্রীতে অগ্নিসংযোগ ও মালামাল লুটপাট।

নাজমুল করিম ফারুক
তিতাস (কুমিল্লা) প্রতিনিধি

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply