স্বাধীনতার পর রাষ্ট্রপতির ক্ষমায় মৃত্যুদণ্ডাদেশ থেকে ক্ষমা পাওয়া ২৫ জনের মধ্যে আওয়ামী লীগের আমলেই ২১ জন

ঢাকা / ১৪ নভেম্বর (কুমিল্লাওয়েব ডটকম)———-
স্বাধীনতার পর ১৯৭২ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত রাষ্ট্রপতির ক্ষমায় মৃত্যুদণ্ডাদেশ থেকে ২৫ জন আসামি ক্ষমা পেয়েছেন। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের আমলেই ক্ষমা পেয়েছেন ২১ জন।
স্বাধীনতার পর থেকে ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের আগ পর্যন্ত রাষ্ট্রপতির ক্ষমা পাওয়া ফাঁসির আসামির সংখ্যা মাত্র চারজন।

নবম সংসদের পঞ্চদশ অধিবেশনের প্রথম দিন বুধবার জাতীয় সংসদে টেবিলে উত্থাপিত প্রশ্নোত্তর পর্বে স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য ফজলুল আজিমের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীর লিখিত এক প্রশ্নের উত্তরে এ তথ্য জানান।

আওয়ামী লীগের গত প্রায় চার বছরের শাসনামলে ২০০৯ সালে একজন, ২০১০ সালে ১৮ জন এবং ২০১১ সালে দুজন ফাঁসির আসামি রাষ্ট্রপতির ক্ষমা পান।

আদালতের রায়ে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিতদের ওই দণ্ড মওকুফ করে সাজা যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে নামিয়ে আনার অধিকার সংবিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রপতির থাকলেও তার প্রয়োগ নিয়ে অনেক সময়ই সমালোচনা উঠেছে।

আওয়ামী লীগের এই আমলে ক্ষমা পাওয়া ২১ জনের মধ্যে রয়েছে লক্ষ্মীপুরের বিএনপি নেতা নূরুল ইসলাম হত্যা মামলায় ফাঁসির দণ্ড পাওয়া এইচ এম বিপ্লব।

লক্ষ্মীপুরের আওয়ামী লীগ নেতা আবু তাহেরের ছেলে বিপ্লবকে রাষ্ট্রপতি ক্ষমা করলে তার সমালোচনা তোলে বিএনপি।

আওয়ামী লীগের এই আমলের আগে ২০০৮ সালে একজন, ২০০৫ সালে দুই জন এবং ১৯৮৭ সালে একজন রাষ্ট্রপতির ক্ষমা পেয়েছিলেন।

স্বাধীনতার পর থেকে ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত কোনো আসামিকে ক্ষমা করা হয়নি।

সামরিক শাসক হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের সময়ে এই ক্ষমার চর্চা শুরু হয়।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply