কুমিল্লা-২ নির্বাচনী এলাকার সীমানা পুনবিন্যাসের আবেদন অনাকাঙ্খিত: ষড়যন্ত্র রুখতে তিতাসবাসী ঐক্যবদ্ধ

তিতাস তিতাস / ৬ নভেম্বর (কুমিল্লাওয়েব ডটকম)———-
তিতাস উপজেলা প্রতিষ্ঠার পূর্বে দাউদকান্দি উপজেলার অবহেলিত উত্তরাঞ্চল ও অনুন্নত জনপদ হিসেবেই সমধিক পরিচিতি ছিল। সুষম উন্নয়ন ও নেতৃত্ব বিকাশের মানসে দীর্ঘ দু’যুগ ব্যাপী তিতাসবাসীর আন্দোলনের ফসল এ উপজেলা প্রতিষ্ঠা। ২০০৮ সালের ২৯ এপ্রিল স্বাধীন, নিরপেক্ষ ও রাজনৈতিক হস্তক্ষেপমুক্ত নির্বাচন কমিশন নবগঠিত তিতাস ও হোমনা উপজেলা সমন্বয়ে কুমিল্লা-২ নির্বাচনী এলাকা পুনঃনির্ধারন করায় তিতাসবাসীর প্রাপ্তির খাতায় আরও একটি নতুন মাত্রা যোগ হয়। সেদিন তিতাসের সিংহভাগ জনগোষ্ঠী আনন্দিত ও উৎফুল্লিত হয়েছিল। তিতাসবাসীর এ প্রাণের দাবীকে উপেক্ষা করে একটি মহল তখন নির্বাচন কমিশনের এ সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে লিখিত আপত্তি জানায়। ২০০৮ সালের ২২ জুন কুমিল্লা সার্কিট হাউসে আপত্তি শুনানী শেষে নির্বাচন কমিশন তাদের সিদ্ধান্তে অটল থাকলে তথাকথিত ঐ মহলের অপচেষ্ঠা ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়। কিন্তু তাদের নীলনক্সা বাস্তবায়নের তারা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ থেকে যায়। সুযোগ বুঝে আবারও তারা মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। ইতমধ্যে তারা তিতাসকে দাউদকান্দির সাথে একত্রীভূত করে নির্বাচনী এলাকা পুনবিন্যাসে নির্বাচন কমিশনে ৫০টিরও বেশি আবেদন জমা দিয়েছে। এমনকি তিতাসের সচেতন জনগোষ্ঠীর নাম ভাঙ্গিয়ে পোস্টার ছাপানো হয়েছে। বিষয়টি এখন টক অব দি তিতাসে পরিণত হয়েছে। সর্বত্র প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে এবং পাষ্পরিক আলোচনায় এ ঘটনার প্রতি নিন্দা জ্ঞাপন করছে। তিতাসবাসী যে কোন মূল্যে বর্তমান কুমিল্লা-২ (তিতাস-হোমনা) নির্বাচনী এলাকা বহাল রাখতে বদ্ধপরিকর বলে সচেতন মহল।
তিতাসবাসীর সর্বত্র এখন একটিই প্রশ্ন সচেতন জনগোষ্ঠী বলতে কাদেরকে বুঝানো হয়েছে? উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যানসহ জনপ্রতিনিধি এবং সুশীল সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, সাংবাদিক, শিক্ষক এমনকি খেটে খাওয়া মানুষেরাও তিতাস হোমনা সমন্বয়ে কুমিল্লা-২ নির্বাচনী এলাকা বহাল রাখার পক্ষে। বিভিন্ন মতাদশে বিশ্বাসী হলেও সরকারীদল আওয়ামীলীগ এবং প্রধান বিরোধীদলের নেতৃবৃন্দসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দও বর্তমান নির্বাচনী এলাকা পুনঃবিন্যাসের আবেদনকে অপ্রত্যাশিত এবং অনাকাঙ্খিত বলে আখ্যায়িত করেছেন। এটা কিছু সংখ্যক লোকের অনুধর মস্তিস্কের উদ্ভট চিন্তার বহিঃপ্রকাশ বলে তারা মনে করেন।
২০০৮ সালে নির্বাচন কমিশন তিতাস ও হোমনা উপজেলা সমন্বয়ে কুমিল্লা২ নির্বাচনী এলাকা পুনঃগঠনের পর তিতাস উপজেলা প্রতিষ্ঠা এবং সংসদীয় আসন পুনবিন্যাস আন্দোলনে সংশ্লিষ্ট বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের তৎকালীন অভিব্যক্তি প্রমাণ করে তিতাসবাসী দাউদকান্দির সাথে একত্রীভূত হতে চায় না। তিতাস উপজেলা প্রতিষ্ঠা আন্দোলনের পথিকৃৎ সংগ্রামী রাজনীতিবিদ ও মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মতিন মাষ্টার এর মতে তিতাস ও হোমনাকে নিয়ে নির্বাচনী এলাকা কুমিল্লা-২ পুনঃনির্ধারণ জনগণের আশা আকাঙ্খার প্রতিফলন। বৃহত্তর দাউদকান্দি উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান প্রয়াত এমএ খালেক সরকার বলেছিলেন, হোমনা-তিতাস সমন্বয়ে কুমিল্লা-২ নির্বাচনী এলাকা পুনঃনির্ধারণে তিতাসে নেতৃত্ব বিকাশের দ্বার উম্মোচিত হয়েছে। বিগ্রেঃ জেঃ (অব) নাসির উদ্দিন এক বিবৃতিতে জানান, নির্বাচন কমিশন ঘোষিত আসন পুনবিন্যাস তিতাসবাসীর মনে আশার আলো জাগিয়ে তুলেছে। গাজীপুর খান হাইস্কুল এন্ড কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ বৃহত্তর দাউদকান্দি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি মোঃ সায়েদ উল্লাহ খান এর মতে তিতাস উপজেলা প্রতিষ্ঠা স্বকীয়তা ও আত্মনির্ভরশীলতার পথ উম্মুক্ত করেছে আর আসন পুনঃনির্বাসে চুড়ান্ত বিজয় অর্জিত হয়েছে। বীর মুক্তিযোদ্ধা, বিশিষ্ট রাজনীতিক ও সাবেক চেয়ারম্যান (স্বর্ণপদক প্রাপ্ত) মোয়াজ্জেম হোসেন সেলিম নির্বাচন কমিশন কর্তৃক তিতাস ও হোমনা উপজেলা সমন্বয়ে কুমিল্লা-২ নির্বাচনী এলাকা পুনবিন্যাসকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, এতে তিতাসবাসীর ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটেছে।
তিতাস উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার ও কড়িকান্দি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান উপজেলা প্রতিষ্ঠা আন্দোলনের চালিকাশক্তি ছায়েদুর রহমান ছাদির বলেন, কুমিল্লা-২ (তিতাস-হোমনা) নির্বাচনী এলাকা চুড়ান্তকরণ আন্দোলনে মুক্তিযোদ্ধা নেতা সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারে প্রদ্ধত। তিতাস উপজেলা কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার আবদুল লতিফ বলেন, হোমনা ও তিতাসকে নিয়ে কুমিল্লা-২ নির্বাচনী এলাকা পুনগঠন সময়োপযোগী ও গণমুখী পদক্ষেপ। তিতাস উপজেলা দুর্নীতি দমন কমিশনের সভাপতি আঃ রব মিয়া নির্বাচন কমিশন কর্তৃক তিতাস ও হোমনা উপজেলা সমন্বয়ে কুমিল্লা-২ নির্বাচনী এলাকা পুনঃনির্ধারনকে অত্যন্ত যৌক্তিক বলে অভিমত প্রকাশ করেছেন। হোমনা ডিগ্রী কলেজের অধ্যাপক মোঃ মনোয়ার হোসেন বলেন, হোমনা ও তিতাস উপজেলাকে একত্রিভূত করে কুমিল্লা-২ নির্বাচনী এলাকা পুনগঠন করায় সাধারণ জনগণ ভীষণ খুশি হয়েছেন। গাজীপুর খান মডেল হাইস্কুল এন্ড কলেজের সহকারী প্রধান শিক্ষক ও তিতাস থানা কমিউনিটি পুলিশিং সমন্বয় কমিটির সভাপতি জসিম উদ্দিন আহমেদ বলেন, সংসদীয় আসনের সীমানা পুনঃনির্ধারনের ফলে তিতাসবাসীর লালিত স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয়েছে। বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা, আশির দশকের ছাত্রনেতা ও পরবতীতে ডেমোক্রোটিক লীগ নেতা সৈয়দ মফিজুল হুদা দুলাল এক বিবৃতিতে বলেন, তিতাস ও হোমনা উপজেলাকে নিয়ে কুমিল্লা-২ নির্বাচনী এলাকা পুনগঠনে তিতাসে নেতৃত্ব বিকাশের পথ সুগম হয়েছে। জগতপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আঃ রহমান বলেন, তিতাস ও হোমনাকে নিয়ে নির্বাচনী এলাকা পুনঃনির্ধারণ তিতাসবাসীর জন্য আশিবার্দ। এছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ নির্বাচন কমিশনকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে গণমাধ্যমে বিবৃতি দিয়েছিলেন।
নাম গোত্রহীন সচেতন জনগোষ্ঠীর ব্যানারে দাউদকান্দি ও তিতাস উপজেলাকে নিয়ে পুনরায় কুমিল্লা-১ নির্বাচনী এলাকা প্রস্তাব করে নির্বাচন কমিশনে আবেদন এবং পাল্টাপাল্টি পোষ্টার ছাপানোর ঘটনায় তিতাস উপজেলায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। তিতাস উপজেলা পরিষদ এর সমন্বয় কমিটির সভায় তিতাস হোমনা উপজেলা সমন্বয়ে গঠিত কুমিল্লা-২ নির্বাচনী এলাকা বহাল রাখার পক্ষে সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

চতুর্থ পর্ব আগামীকাল

(নাজমুল করিম ফারুক, তিতাস (কুমিল্লা) প্রতিনিধি)

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply