সরাইলে রাজপথে আ’লীগ নেতাদের বাকযুদ্ধ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া/ ১২ অক্টোবর (কুমিল্লাওয়েব ডটকম)———-

শুক্রবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতারা রাজপথে বাকযুদ্ধে জড়িয়ে পড়েন। এসময় নেতারা প্রকাশ্যে একে অপরকে বলতে শোনা গেছে ’আওয়ামীলীগ কি তোদের বাপ-দাদার‘।
প্রত্যক্ষদর্শী পথচারী ও দলের কয়েকজন নেতা জানান, শুক্রবার দুপুরের দিকে উপজেলা সদরের বিকাল বাজার এলাকায় রাজপথে দলের সাংগঠনিক বিষয় নিয়ে প্রথমে বাকযুদ্ধে লিপ্ত হন উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি একেএম ইকবাল আজাদ এবং উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান হাজী রফিক উদ্দিন ঠাকুর। পরে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হাজী আবদুল হালিম আসার পর একই বিষয় নিয়ে নেতাদের মধ্যে ফের তুমুল বাকযুদ্ধ শুরু হয়। তারা একে অপরকে ঘায়েল করতে নানা অকথ্য, অশালীন ভাষা ব্যবহার করতে থাকেন। এসময় উপস্থিত নেতা-কর্মীদের মাঝে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে নেতারা অকে অপরকে বলতে থাকেন- ‘আওয়ামী লীগ কি তোদের বাপ-দাদার।’ বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা একসময় সভাপতি আবদুল হালিমের ওপর চড়াও হয়। পরে পথচারীসহ দলের কয়েকজন নেতা সভাপতিকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যায়। এসময় সাধারণ সম্পাদক রফিক উদ্দিন ঠাকুরকে উদ্দেশ্য করে যুবলীগের এক নেতা অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে। এতে যুবলীগের আরেক নেতা ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন। এ নিয়ে তাদের মধ্যে মৃদু হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে। উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক অ্যাডভোকেট আশরাফ উদ্দিন মন্তু বলেন, সভাপতি আবদুল হালিমের কারণে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কর্মকান্ড বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। তার আচরনে দলের অনেক নেতা-কর্মী এখন ত্যক্ত বিরক্ত। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান হাজী রফিক উদ্দিন ঠাকুর বলেন, রাজপথে এ ধরণের ঘটনা সত্যিই দুঃখজনক। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী আবদুল হালিম বলেন, প্রকাশে জনসম্মূখে যা হয়েছে, তা কোন সুস্থ মানুষের পক্ষে সম্ভব নয়। কিছু বেয়াদব এ ঘটনা ঘটিয়েছে। তিনি বলেন, সম্মেলনের তারিখ পরিবর্তন করেছে স্থানীয় নেতারা।

আরিফুল ইসলাম সুমন

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply