গোপন কমিটি দিয়ে চলছে মুরাদনগর চাঁদ মিয়া মোল্লা ডিগ্রী কলেজ

মুরাদনগর / ৬ অক্টোবর (কুমিল্লাওয়েব ডটকম)———-

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার আলীরচর গ্রামে প্রতিষ্ঠিত চাঁদ মিয়া মোল্লা ডিগ্রী কলেজ। গত ১৭ বছর ধরে গোপন পকেট কমিটির মাধ্যমে কার্যক্রম পরিচালনা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টির ব্যাপারে সচেতন অভিভাবকরা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে মৌখিক ও পরে লিখিত অভিযোগ করেও কোন কার্যকর ব্যবস্থা না নেওয়ায় তারা বিক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেছে। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ১৯৯৫ সালে উপজেলার আলীরচর গ্রামের ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গনিত বিভাগের সাবেক অধ্যাপক শামসূল হক মোল্লা তাঁর বাবা চাঁদ মিয়া মোল্লার নামে এ কলেজটি প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠাতালগ্ন থেকে তিনি অভিভাবক, ছাত্র-ছাত্রী এলাকাবাসীর অগোচরে কোন প্রকার নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে অতি গোপনে একের পর এক ওই কলেজের গভর্নিং বডি গঠন করে যাচ্ছেন। কমিটির নামে পছন্দসই ব্যক্তিদের সদস্য বানিয়ে এ যাবত তিনি সভাপতির পদটি দখল করে আছেন। তাছাড়াও কলেজের বর্তমান ওই গোপন কমিটির মেয়াদ এ মাসের ১৪ (অক্টোবর) শেষ হওয়ার কথা রয়েছে,কিন্তু এবারো যথাসময়ে অভিভাবক প্রতিনিধি নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা না করে অভিভাবক, ছাত্র-ছাত্রী ও স্থানীয় এলাকাবাসীদের অবহিত ব্যতিরেকে কলেজ প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক শামসুল হক মোল্লা ও অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান ৩জন অভিভাবক সদস্য সহ অন্যান্য ক্যাটাগরীতে ও প্রতিষ্ঠাতার আজ্ঞাসহ লোকদের মনোনিত করেন। এতে ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবক ও এলাকাবাসী বিষয়টি জানতে পেরে প্রথমে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে, পরে তারা বিক্ষদ্ধ হয়ে গত ১৩ সেপ্টেম্বর জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ পরিদর্শক ও ১৬সেপ্টেম্বর কুমিল্লা জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এ বিষয়ে কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি প্রফেসর শামসুল হক মোল্লা সাংবাদিককে জানান, ১৯৯৫ সাল থেকে আলীরচর গ্রামটি কে একটি আদর্শ গ্রাম হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে কলেজটি প্রতিষ্ঠা করেছি এবং শুরু থেকেই কলেজের ফলাফল সন্তোষজনক। তিনি কমিটি গঠনের অনিয়মের অভিযোগটি সঠিক নয় বলে দাবি করে জানান, স্থানীয় কিছু দষ্ট লোক কলেজটি ধবংশ করার জন্য এ মিথ্যা অভিযোগ তুলেছে। এ দিকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ কলেজ পরিদর্শক ড. আনোয়ার হোসেন জানান, অভিযোগের কপি আমার হাতে এখনো আসেনি, তবে আমি নোট রাখলাম, অভিযোগের কপিটি হাতে আসলে বিষয়টি দেখব। অন্যদিকে কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও উন্নয়ন) সঞ্জয় কুমার জানান, গভনিং বডির মেয়াদ শেষ হওয়ার ৩ মাস আগে থেকেই নতুন কমিটির প্রক্রিয়া শুরু করতে হবে। এ নিয়মের ব্যতয় ঘটলে অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। গোপনে কমিটি করার কোন বিধান নেই। এ বিষয়ে কলেজের অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান জানান, প্রতিষ্ঠাতালগ্ন থেকে এলাকার শিক্ষিত ও নিবেদিত ব্যক্তিদের নিয়ে কলেজের স্বার্থেই প্রতিষ্ঠাতা নিজেই কমিটি করে থাকেন। এছাড়াও শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচনেও তিনি নিজেই করেন। কারণ প্রতিষ্ঠানটি তার গড়া, তাই এ প্রতিষ্ঠানটির প্রতি তার যতটুকু দরদ থাকবে অন্য কারোর সেটা না থাকারই কথা।

(মোঃ শরিফুল আলম চৌধুরী)

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply