প্রশাসন নিশ্চুপ ! মতলবের মেঘনার পাড়ে সন্ধ্যার পরেই ইলিশের হাট

মতলব উত্তর(চাঁদপুর) / ৪ অক্টোবর (কুমিল্লাওয়েব ডটকম)———-
সন্ধ্যার পরে চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার মেঘনার পাড়ে বসে ইলিশের হাট, চলে মধ্যরাত পর্যন্ত। দিনের আলোয় ইলিশ মাছগুলো বিক্রি হচ্ছে মানুষের বাড়ী বাড়ী গিয়ে ফেরী করে। প্রশাসন মা ইলিশকে রক্ষার জন্য মাঝে মধ্যে দিনের আলোয় নদীতে অভিযান চালালেও সন্ধ্যা নামতেই নদীর দখল থাকে জেলেদের কাছে। মা ইলিশ ধরা পড়ছে ঝাঁকেঝাঁকে এবং তা বিক্রি হচ্ছে পানির দামে।

খোজখবর নিযে জানা যায়, উপজেলার মেঘনা নদীর পাড়ের স্থায়ী মৎস্য আড়ৎগুলোতে ইলিশ মাছ না পাওয়া গেলেও মেঘনা পাড়ের লঞ্চঘাটগুলোর সংলগ্ন অঞ্চলে অবাধে বিক্রি হচ্ছে এই ইলিশ মাছ। এর মধ্যে জয়পুর লঞ্চঘাট সংলগ্ন অঞ্চল, এখলাছপুর লঞ্চঘাট সংলগ্ন অঞ্চল, দশানী লঞ্চঘাট সংলগ্ন অঞ্চল, ছটাকী ও ষাটনল অঞ্চলে ইলিশ মাছ বিক্রি হচ্ছে অবলিলায়।

দিনের বেলাতে জেলেদের মাঝে পুলিশী আতংক থাকলেও সন্ধ্যার পর পুলিশী আতংক কেটে যায়। তখন জেলেরা নির্দিধায় প্রজননের জন্য মেঘনা নদীতে আসা মা ইলিশ গুলো ধরছে ঝাঁকেঝাঁকে। আর এর নেপথ্যে কাজ করছে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী লোক। যাদের সাহস যোগানোর কারনেই জেলেদের বড় একটি অংশ একাজে সাহস পাচ্ছে। দিনের বেলাতে মাঝে মধ্যে প্রশাসন পুলিশ নিয়ে নদীতে অভিযান চালালেও সন্ধ্যার পর প্রশাসন থাকে অনুপস্থিত। আর এসময় মা ইলিশ শিকার ও বিক্রির উৎসবমুখর দৃশ্য দেখলে প্রশাসনের রহস্যজনক ভূমিকা নিয়েতো প্রশ্ন উঠতেই পাড়ে।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ফিরোজ আহমেদ মৃধা বলেন, উপজেলার ষাটনল থেকে আমিরাবাদ পর্যন্ত এতো বিশাল অঞ্চল ১১ দিন দেখাশুনার জন্য সরকারী বরাদ্ধ পাওয়াগেছে মাত্র ৫ হাজার টাকা। অঞ্চল ও কাজের তুলনায় যা খুবই সামান্য।
গত ৩ অক্টোবর পর্যন্ত ইলিশ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞার ৯ দিনে মৎস্য বিভাগ পুলিশ নিয়ে মেঘনা নদীতে অভিযান চালিয়েছে মাত্র ৪ দিন।

শামসুজ্জামান ডলার, মতলব উত্তর(চাঁদপুর)

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply