আগাম নির্বাচনের আশঙ্কায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রচারণায় নেমেছে জাতীয় পার্টি

নেতা-কর্মীদের নিয়ে আগাম নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যস্ত রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া ।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া/ সেপ্টেম্বর-৩০(কুমিল্লাওয়েব ডটকম)———-
বর্তমান আওয়ামী লীগ মহাজোট সরকারের সময় শেষ হওয়ার আগেই জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে- এমন আশঙ্কায় আগাম নির্বাচনী প্রচারণায় নেমেছে মহাজোটের শরীক দল জাতীয় পার্টি। গত এক সপ্তাহ যাবত জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনে তার নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তার গ্রামের বাড়ি জেলার সদর উপজেলার বাসুদেব এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় তিনি গণসংযোগ, উঠান বৈঠক, নেতাকর্মীদের সঙ্গে আলোচনার পাশাপাশি পুরোদমে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, জাতীয় পার্টি ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর ও বিজয়নগরের একাংশ) আসনের প্রার্থী হিসেবে জাপার কেন্দ্রীয় যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়ার নাম ঘোষণা করায় তড়িঘড়ি তিনি নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে পড়েন। এ বিষয়ে অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া সাংবাদিকদের জানিয়েছেন ‘আগামীতে মহাজোট থাকছে না এটা নিশ্চিত। আমরা এককভাবে নির্বাচনে যাচ্ছি। পার্টি প্রাথমিকভাবে সারাদেশে যে ১১১ জন প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে তারমধ্যে আমিও রয়েছি।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন “আমাদের ধারণা এই সরকারের সময় শেষ হওয়ার আগেই নির্বাচন হবে, সে হিসেবে আমাদের হাতে সময় নেই।” প্রতি সপ্তাহে কমপক্ষে ৩দিন গণসংযোগ করবেন বলে রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া জানিয়েছেন। এদিকে রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া নেতাকর্মীদের নিয়ে সদর উপজেলার ঘাটুরা, ভাটপাড়া, বিরাসার, নাটাই, বিজয়নগর উপজেলার কাঞ্চনপুর, মির্জাপুর, চম্পকনগর, ইগরতলী, সেজামোড়া, কালাছড়াসহ বিভিন্নস্থানে গণসংযোগ করেছেন তিনি। এছাড়া জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব এ নেতার পোস্টার শহর ছাড়িয়ে অলিতে গ্রামের ছোট হাটবাজারগুলোতেও শোভা পাচ্ছে। এলাকাবাসী ও বিভিন্ন সংগঠনের নামে ছড়ানো হচ্ছে লিফলেট। এসব কারণে অনেকটা নির্বাচনী আমেজ তৈরী হয়েছে এখানে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জাতীয় পার্টি এবং ছাত্রসমাজের একাধিক নেতা জানান, আগামীতে মহাজোট থাকলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জাতীয় পার্টির অস্তিত্ব থাকবে না। পৌর শহরের হালদারপাড়ার বাসিন্দা মো. আমিনুল ইসলাম জানান, এ আসনে জাতীয় পার্টির শক্তিশালী কোনো প্রার্থী নেই। সংগঠনও নড়বড়ে। তারপর রয়েছে দলীয় কোন্দল। পৌর শহরের ফুলবাড়িয়ার সিদ্দিকুর রহমান (৮০) বলেন, এরশাদের পার্টি অনেক দিন যাবত করছি। তিনি এককভাবে নির্বাচন করবেন কিনা এটাই আসল কথা। কারণ তাঁর কথার কোনো ঠিক ঠিকানা নেই। জেলা ছাত্রসমাজের আহবায়ক মো. আমিনুল হক কাউছার সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, আগাম নির্বাচন উপলক্ষে গত দুই সপ্তাহে জেলা সদরে ৪২টি ফেস্টুন টানানো হয়েছে। তাছাড়া একমাসের মধ্যে জেলা সদরে আরও প্রায় ২ শতাধিক ফেস্টুন লাগানো হবে। সদর উপজেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব মো. সাহেদুর রহমান দাবি করে বলেন “আওয়ামী লীগ মানুষের আস্থা হারিয়েছে তাই এবার সবাই আমাদেরকেই বেছে নেবে। রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়ার ব্যক্তিগত ইমেজও অনেক ভালো।” পৌর জাতীয় পার্টির আহবায়ক মো. ফিরুজ খান জানান, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আওয়ামী লীগ নির্বাচনী ওয়াদা পূরণে ব্যর্থ হয়েছে। সাধারণ মানুষের সঙ্গে তাদের সম্পৃক্ততা নেই। আর মহাজোটে থাকায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জাতীয় পার্টির অনেক ক্ষতি হয়েছে।

আরিফুল ইসলাম সুমন

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply