কুমিল্লার দেবিদ্বারে বিএনপি সমর্থক সার ডিলার’র বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলাঃ স্থানীয় প্রশাসনের পরস্পর বিরোধী বক্তব্য !

দেবিদ্বার/ সেপ্টেম্বর-২৬ (কুমিল্লাওয়েব ডটকম)———-
বিসিআইসি সারের ডিলার বি.এন.পি সমর্থক মোঃ সামসুল হক (৫৫)কে অবৈধভাবে উপজেলা সদরে সার গুদামজাত করার অভিযোগে বিশেষ ক্ষমতা আইনে গ্রেফতার পূর্বক বুধবার সকালে কুিমল্লার আদালতে প্রেরণ করেছে দেবিদ্বার থানা পুলিশ।
মোঃ সামসুল হক ডিলার’র গুদামজাতকৃত মালামালের অবস্থান নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিলে, তিনি তার বৈধতার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে সোমবার রাত ১০টায় দেবিদ্বার থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে দেখাতে গেলে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) তাকে গ্রেফতার পূর্বক থানা হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন এবং ১৯৭৪সনের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ২৫(১) ধারায় মামলা দায়ের পূর্বক তাকে বুধবার সকালে কুমিল্লা কোর্ট হাজতে চালান করেছে। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।
দেবিদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এসএম বদিউজ্জামান বলেন, বিসিআইসি সারের ডিলার মোঃ সামসুল হক তার দেবিদ্বারস্থ বাসভবনের নিচে অবস্থিত গুদামে অবৈধভাবে সার সংরক্ষন করার সংবাদে গুদাম তল্লাসী করতে গেলে সামসুল হককে পাওয়া যায়নি। সোমবার রাত ১০টা থেকে মঙ্গলবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত গুদাম তালাবন্দি অবস্থায় পুলিশ প্রহরায় রাখলেও সামসুল হক কিংবা তার পক্ষে কেউ বৈধ কাগজ পত্র দেখাতে পারেনি। অবশেষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাকে অবহীত করে এবং কৃষি কর্মকর্তার উপস্থিতিতে গুদামের তালা ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে কালোবাজারের মাধ্যমে মজুতকৃত এমওপি রাশিয়ান পটাশ ৫শত বস্তা, বিএডিসি, টিএসপি-১শত বস্তা, লেবানন টিএসপি- ৫০বস্তা, গুটি ইউরিয়া ৯বস্তা, মরক্কো টিএসপি- ৯বস্তা, এমওপি বিএডিসি পটাশ- ১শত ৬৮বস্তা, চায়না টিএসপি- ৩শত ৫০বস্তা, টিএসপি ফসফেট বাংলাদেশী ৩শত বস্তাসহ ১হাজার ৪শত ৮৬বস্তা সার জব্ধ তালিকা ভূক্ত করা হয়েছে। ওই ঘটনায় কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করার লক্ষে কর্তৃপক্ষের অনুমতি ব্যতিত ঘটনাস্থলে সার মজুত করার অভিযোগে ১৯৭৪সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
মামলার বাদী দেবিদ্বার থানার উপ-পরিদর্শক(এসআই) শাহ্ কামাল আকন্দ বলেন, সামসুল হক সময়মতো কাগজগুলো দেখাতে পারলে তার বিরুদ্ধে মামলা হত না। দীর্ঘ সময় নিয়েও সে অনুপস্থিত থেকে সময় কালক্ষেপন করেছে। তা ছাড়া তার পক্ষেও কেউ বৈধ কাগজপত্র দেখায়নি।
এব্যপারে উপজেলা সার ও বীজ মনিটরিং কমিটির সভাপতি ও দেবিদ্বার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হারুন-অর-রশীদ বলেন, মজুতকৃত সার জানামতে অবৈধ ছিলনা, তাছাড়া ওই ঘটনায় পুলিশ কর্তৃক মামলা দায়েরের বিষয়টি স্থানীয় একটি পত্রিকা পাঠে জানতে পেরেছি। পুলিশের পক্ষ থেকে কিছু জানায়নি।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ বশির আহাম্মদ ভ্ইূঁয়া বলেন, বিসিআইসি সারের ডিলার মোঃ সামসুল হককে তার দেবিদ্বারস্থ গুদাম খালি করে ধামতী এলাকায় সার গুদামজাত করার চিঠি দিয়েছি। ধামতী ইউনিয়ন’র গুদাম সমস্যার কারনে দেবীদ্বারস্থ গুদামে সার সংরক্ষনের আবেদন করেছেন। আমরা অনুমোদনও দিয়েছি। তা ছাড়া সামসুল হক তার গুদাম সমস্যার কারনে মহামান্য হাইকোর্টেও একটি রীট আবেদন করে আমাদের চিঠি স্থগিত করেছেন বলে শোনেছি। পুলিশ কি কারনে কেন এ মামলা করেছে তা পুলিশই ভালো বলতে পারবে, সার জব্ধ করার সময় আমি উপস্থিত ছিলাম।
বিসিআইসি সারের ডিলার মোঃ সামসুল হক বলেন, আমি বিএনপি সমর্থক হওয়ায় আমার ডিলারশীপ বাতিলের প্রক্রিয়ায় দীর্ঘদিন যাবত আওয়ামীলীগ সমর্থক একটি চক্র তৎপর ছিল। আইনি জটিলতায় আমার ডিলারশীপ বাতিল কিংবা দেবীদ্বারস্থ গুদামে সার সংরক্ষনে হাইকোর্টে আবেদন করে বৈধতা রক্ষা করেছি। দেবিদ্বারের একটি ফুটবল টুর্নাম্যান্টের চাঁদা কম দেয়ায় এবং দলীয় দুই নেতাকে চাঁদা দাবীর ১০লক্ষ টাকা পরিশোধ না করায় তাদের ষড়যন্ত্রে সম্পূর্ন অবৈধভাবে পুলিশ আমার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে কোর্ট হাজতে পাঠাচ্ছে। হাইকোর্টের কাগজসহ আমার বৈধ সমস্ত কাগজপত্র ওসিকে দেখাতে চাইলে তিনি তা না দেখে আমাকে থানা হাজতে পাঠান। তা ছাড়া অন্য এলাকার একাধিক বিসিআইসি সার ডিলার দেবিদ্বারে সার গুদামজাত করে আসছে, তাদের বিরুদ্ধে কোন প্রশ্ন উঠছে না।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply