বিনা শুল্কে ফের করিডোর সুবিধায় মালামাল নিচ্ছে ভারত আশুগঞ্জ নৌবন্দরে মালামাল বোঝাই ৩ ভারতীয় জাহাজ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া/ সেপ্টেম্বর -২২(কুমিল্লাওয়েব ডটকম)—–
কোনো শুল্ক বা ফি ছাড়াই পুনরায় ভারতকে করিডোর সুবিধা দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে দেশের দীর্ঘ নৌপথ ও কয়েকটি নৌবন্দর ব্যবহার করে মালামাল পরিবহন শুরু করেছে ভারত। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ আর্ন্তজাতিক নৌবন্দরে গত বৃহস্পতিবার ৩ হাজার ২২৫ টন পন্য বোঝাই ভারতীয় ৩টি জাহাজ নোঙ্গর করেছে। জানা গেছে, কাস্টমসের আনুষ্ঠানিকতা শেষে গত শুক্রবার বিকেল থেকে গালফ-৫ জাহাজের মালামাল করিডোর কার্যক্রম শুরু হয়েছে। ভারতীয় জাহাজ গুলোতে রয়েছে কয়লা ও সিমেন্ট তৈরির ক্যামিকেল। আর এসব পন্য পরিবহন করছে বাংলাদেশের গালফ ওরিয়েন্ট সিওয়েজ নামে একটি প্রতিষ্ঠান। স্থানীয় কাস্টমস অফিস সূত্র জানায়, ২-১ দিনের মধ্যে ছোট ছোট জাহাজে করে এসব পন্য সিলেটের জকিগঞ্জ দিয়ে করিমগঞ্জ নৌবন্দরের মাধ্যমে ভারতের আসাম রাজ্যের নিয়ে যাওয়ার কথা রয়েছে। চলতি বছর নৌপ্রটোকল চুক্তি নবায়নের পর এই প্রথম ভারতীয় পন্যবাহি কোন জাহাজ বাংলাদেশের জল সীমানা ব্যবহার করেছে এবং কোন প্রকার শুল্ক ছাড়াই নৌবন্দর ব্যবহার করছে।
বিআইডব্লিওটিএ কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, কলকাতা ক্ষিদিরপুর নৌবন্দর থেকে গত ৩ সেপ্টেম্বর এক হাজার টন সিমেন্ট তৈরির কেমিক্যাল নিয়ে বিবি-১১৩৫ এবং গত ৪ সেপ্টেম্বর ভোরে গালফ-৫ এক হাজার টন ও গালফ-৩ এক হাজার ২শত ২৫ টন কয়লা নিয়ে ছেড়ে আসে। খুলনার শেখবাড়িয়া দিয়ে ভারতীয় পন্যবাহি এই ৩টি জাহাজ বাংলাদেশ জল সীমানায় প্রবেশ করে। গত বৃহস্পতিবার ভোর ৪টা থেকে সকাল সাড়ে ১১টার মধ্যে জাহাজ ৩টি আশুগঞ্জ বন্দরে এসে পৌঁছে। বর্তমানে জাহাজ ৩টি আশুগঞ্জ লঞ্চ টার্মিনালের পশ্চিমে মেঘনা নদীতে নোঙর করে রাখা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার বিকালে বিআইডাব্লিওটিএ কর্তৃপক্ষ প্রথমে গালফ-৫ এর কাগজপত্র যাচাই বাচাই ও কাষ্টমসের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে। ফলে শুক্রবার বিকালে গালফ-৫ জাহাজ থেকে কয়লা ছোট জাহাজে করিডোর শুরু করা হয়েছে। এই জাহাজটির কয়লা করিডোর কার্যক্রম শেষ হলে পর্যায়ক্রমে বাকী ২টি জাহাজের যথারীতি নিয়মে করিডোর করে ভারতের আসাম রাজ্যে নিয়ে যাওয়া হবে।
এ ব্যাপারে পরিবহন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান গালফ ওরিয়েন্ট সিওয়েজ এর লজিষ্টিক ম্যানেজার মোঃ নরুজ্জামান জানান, কলকাতা ক্ষিদিরপুর নৌবন্দর থেকে ৩টি জাহাজে কয়লা ও সিমেন্ট তৈরির ক্যামিকেল আনা হয়েছে। এগুলো নিয়ে যাওয়া হবে আসাম রাজ্যে। নদীর নব্যতা সংকটের কারণে আশুগঞ্জ নৌবন্দরে জাহাজ নৌঙর করে এসব পন্য বড় জাহাজ থেকে ছোট জাহাজে ‘ট্রান্সশিপমেন্ট’ করা হচ্ছে। বিআইডব্লিওটিএ আশুগঞ্জ নৌবন্দরের পরিবহন পরিদর্শক মো. শাহ আলম জানান, জাহাজ ৩টি বাংলাদেশের জল সীমানা ব্যবহার করা এবং ভারতীয় পন্য পরিবহনের অনুমতি আছে কিনা কাগজপত্র যাচাই করে সঠিক পাওয়া গেছে। এসব পন্যবাহি জাহাজ থেকে কোন প্রকার চার্জ নেয়া হচ্ছে না। আশুগঞ্জ নৌবন্দরের রাজস্ব কর্মকর্তা মোঃ সুমন মিয়া জানান, নবায়নকৃত নৌপ্রটোকল চুক্তির আওতায় এসব পন্য ট্রানসিপমেন্ট করে সিলেটের জকিগঞ্জ হয়ে করিমগঞ্জ নৌবন্দর দিয়ে ভারতের আসাম রাজ্যে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। গালফ-৫ এর কাগজপত্র যাচাই করে সঠিক পাওয়ার পর ট্রান্সশিপমেন্ট করার অনুমতি দেয়া হয়েছে। বাকী ২টি জাহাজ আগামীকাল (আজ) রোববার কাগজপত্র সঠিক আছে কিনা যাচাই করা হবে। বাংলাদেশের জল সীমানা ব্যবহারের ক্ষেত্রে কোন রকম শুল্ক বা ফি নেয়া হচ্ছে না।

আরিফুল ইসলাম সুমন

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply