মেঘনায় আওয়ামীলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদে সভা ও বিক্ষোভ মিছিল

মেঘনা / সেপ্টেম্বর ১৭(কুমিল্লাওয়েব ডটকম)—
কুমিল্লা মেঘনা উপজেলার মানিকারচর ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ নেতার বিরুদ্ধে থানায় মামলা হওয়ার কারনে এলাকার সর্বত্র প্রতিবাদ সভা ও বিক্ষোভ মিছিল হয়। থানা সূত্রে জানা যায়, গত ১২ সেপ্টেম্বর মেঘনা উপজেলার তুলাতুলী গ্রামের আবুল সরকারের পুত্র মোঃ মিলন সরকার একটি মামলা দায়ের করে। মামলা নং-৪, তাং-১২/৯/২০১২ইং। ধারা-৩৪১/৩২৩/৩০৭/৩৭৯/৫০৬ দঃ বিঃ। মামলার বিবরনে প্রকাশ, মানিকারচর গ্রামের হারুন ওর রশীদ ও অজ্ঞাতনামা কয়েকজন পথরোধ করে মারধর করিয়া আমার পকেটে থানা ৫০ হাজার টাকা ছিনাইয়া নিয়ে যায়। থানায় মামলা করার সংবাদ এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে মেঘনা থানা যুবলীগের আহ্বানে উপজেলা পরিষদের সামনের এক প্রতিবাদ সভা ও বিক্ষোভ মিছিল করা হয়। গত ১৫ সেপ্টেম্বর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে মেঘনা আওয়ামীলীগের আহ্বায়ক কমিটির জরুরী সভায় এই ব্যাপারে নিন্দা জানানো হয়। সভায় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ শফিকুল আলম বলেন, আওয়ামীলীগের ত্যাগী নেতা হারুন ওর রশীদের বিরুদ্ধে মামলা গ্রহনের পূর্বে থানার ওসি মোঃ নাসিমউদ্দিন আমাদের সাথে আলোচনা করে সত্য মিথ্যা যাচাই করে মামলা নিতে পারতেন। এলাকায় মোঃ মিলন সরকার, মোঃ মজিবুর রহমান, মোঃ সুমনের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করার অভিযোগ আছে। এমনকি মোঃ মজিবুর রহমান মেঘনা থানার তালিকায় শীর্ষ সন্ত্রাসী। মেঘনা যুবলীগের সভাপতি মোঃ তাজুল ইমলাম তাজ বলেন, মানিকারচর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগের ত্যাগী নেতার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা জরুরীভাবে প্রতাহার করতে হবে। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে একটি অশুভ চক্রের সহযোগিতায় আওয়ামীলীগের একজন ত্যাগী ও বলিষ্ঠ নেতার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক, মিথ্যা ও ভিত্তিহীন মামলা দায়ের করা হয়েছে। আমরা জনগণের কল্যানে রাজনীতি করি। গত মাসে রাধানগর ইউনিয়নের তালতুলী গ্রামের কৃষকদের প্রায় ১২০ বিঘা ফসলী জমি জোরপূর্বক বালুকেটে নদীর গর্ভে তলিয়ে দিয়েছে সন্ত্রাসীরা। বালু কাটার সাথে মেঘনা উপজেলার শীর্ষ সন্ত্রাসী মোঃ মজিবুর রহমান মজি, মোঃ মিলন সরকার, মোঃ সুমন জড়িত ছিল। আমি মেঘনা উপজেলার জনগনের কল্যানে সন্ত্রাসীদের মেঘনা যুবলীগ থেকে বহিস্কার করেছি। সেই সভায় আমাদের মেঘনা উপজেলার স্থপতি ও রুপকার এবং উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ শফিকুল আলম ও আওয়ামীলীগের স্থানীয় শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন। তাহাদেরকে যুবলীগ থেকে বহিস্কার করার কারনে আওয়ামীলীগের সিনিয়র ত্যাগী নেতা আমার বড় ভাই হারুন-ওর-রশীদের বিরুদ্ধে একটি চক্রের সহযোগিতায় মিলন মেঘনা থানাতে ষড়যন্ত্র ও মিথ্যা ও ভিত্তিহীন মামলার দায়ের করেছে। আমি মিথ্যা মামলাটি অবিলম্বে প্রত্যাহারের জোর দাবি জানাচ্ছি। নতুবা জনগনকে সাথে নিয়ে এইসব সন্ত্রাসীদেরকে মেঘনা উপজেলা হইতে বিতারিত করার জন্য দূর্বার আন্দোলন গড়ে তোলবো। মুঠো ফোনে মোঃ মিলনের সাথে আলাপকালে জানায়, আমি মেঘনা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং কুমিল্লা উত্তর যুবলীগের একজন সদস্য। আমি কোনো দিন সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে সহিত জড়িত ছিলাম না। আমার বিরুদ্ধে মেঘনা থানাতে একটি জিডি পর্যন্ত নেই। তা হলে আমি সন্ত্রাসী হলাম কি করে। বরং আমি ঘটনাটি যুবলীগের সভাপতি মোঃ তাজুল ইসলাম তাজকে জানিয়েছিলাম। মানিকারচর ইউনিয়নে সাবেক চেয়ারম্যান হারুন ওর রশীদ তাহার আপন ভাই হওয়ার কারনে কোনো পদক্ষেপে নেয়নি। বাধ্য হয়ে আমি মেঘনা থানাতে আইনী আশ্রয় নিয়েছি। হারুন ওর রশীদ আমাকে প্রাননাশের হুমকি পর্যন্ত দিচ্ছে।

মোঃ ইসমাইর হোসেন মানিক, মেঘনা প্রতিনিধি

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply