কুমিল্লা-সিলেট সড়কের দু’পাশে অবস্থিত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদঃ রাস্তা ও ব্রীজের মেরামত কাজ চলছে

মোঃ সাইফুল ইসলামঃ————-

বৃহস্পতিবার দিন ব্যাপী কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়ক’র কুমিল্লা অংশের দু’পার্শ্বে নির্মীত প্রায় দু’শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেছে কুমিল্লা সড়ক ও জনপদ বিভাগ (সওজ)। কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়ক’র ব্রাহ্মণবাড়িয়া পর্যন্ত ৮২ কিলো মিটার সড়ক’র মধ্যে কুমিল্লা অঞ্চল’র অংশ বুড়িচং উপজেলার কংশনগর বাজার থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার মাধবপুর সীমানা পর্যন্ত কংশনাঘর, জাফরগঞ্জ, কালিকাপুর, চরবাকর, দেবিদ্বার, পান্নার পুল, কোম্পানীগঞ্জ, সিএন্ডবি, সংচাইল, ইউছুফপুর, শালঘর, মাধবপুর, মিরপুর এলাকার ৪০কিলোমিটার সড়ক’র দুপার্শে¦র প্রায় দু’শতাধিক স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, আগামীকাল শনিবার(১সেপ্টেম্বর) থেকে মেঘনা ও মেঘনা-গোমতী সেতুর মেরামত কাজ শুরু করার কারনে রাজধানী ঢাকার সাথে পূর্বাঞ্চলের সড়ক যোগাযোগের উপযোগী বিকল্প সড়ক হিসাবে ‘কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়ক’টি গড়ে তোলার লক্ষ্যে এ অভিযান পরিচালনা করছে সওজ। সেতু মেরামতের সময়ে শনিবার থেকে প্রতিদিন রাত ১২টায় থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত বিকল্প রাস্তা হিসেবে কুমিল্লা-সিলেট সড়ক ব্যবহার হবে। গত ১৫ আগস্ট থেকে জেলার স্থানীয় প্রশাসন গুলো মাইকিং করে সড়কের দু’পার্শ্বে উচ্ছেদ অভিযানসহ সকল প্রকার মেরামত কাজ পরিচালনা করে যাচ্ছে।

কুমিল্লা সওজ বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী জাহিদ হোসেন জানান, যান ও মাল পরিহন চলাচলের উপযোগী করতে কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়ক’র কুমিল্লা অঞ্চল’র দু’পার্শে¦র অবস্থিত প্রায় দু’শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। সময় স্বল্পতার কারনে সম্পূর্ন স্থাপনা উচ্ছেদ করা সম্ভব হয়নি পর্যায়ক্রমে সড়ক ও জনপদ বিভাগ’র জায়গা অবৈধ দখলদারদের হাত থেকে উদ্ধার করা হবে। সেতু মেরামতের সময় কুমিল্লা-সিলেট সড়কে প্রায় ৩০ হাজার গাড়ী চলাচল করবে। তাই উচ্ছেদ অভিযানের পাশাপাশি সড়কের ও সংস্কার করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে সড়কের কুমিল্লার অংশের ৪০ কিলোমিটারের ৫টি বেইলি সেতু ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অংশের ৪২কিলোমিটা সড়ক’র ৩টি সেতুসহ মোট ৫টি বেইলি সেতু সংস্কার করা হচ্ছে। এসড়কের যানজট নিরসনে গত সোমবার সন্ধ্যা ৬টায় থেকে ২৪ ঘন্টা ‘কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়ক’র যোগাযোগ বন্ধ রেখে মীরপুর বেইলি সেতু দিয়ে দুই লেন বেইলী সেতু স্থাপন করা হয়েছে।

উচ্ছেদ অভিযানে পরিচালনায় আরো অংশ নেন কুমিল্লা সওজ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মাজাহারুল হক, বুড়িচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মোর্শেদ আলম খান, দেবিদ্বার উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ হারুন-অর-রশিদ, মুরাদনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমা বেগম, দেবিদ্বার থানা অফিসার ইনচার্জ এস, এম, বদিউজ্জামান, বুড়িচং থানার উপ-পরিদর্শক(এস,আই) নাজমুল হক, মুরাদনগর থানার উপ-পরিদর্র্শক(এস,আই) মিনহাজ উদ্দিন।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply