চান্দিনার পরীক্ষা হল থেকে ২৯টি মোবাইল ফোন উদ্ধার

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী,কুমিল্লা :
চলমান এস.এস.সি পরীক্ষার পাশের হার বাড়ানোর লক্ষ্যে পরীক্ষার্থীদেরকে অসৎ অবলম্বন করে পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ করে দিচ্ছেন পরীক্ষা হলে কর্তব্যরত শিক্ষকরাই। গত সোমবার এসএসসি পরীক্ষার ৩য় দিনে ইংরেজী প্রথম পত্র পরীক্ষায় কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার একটি এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র থেকে পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে কেন্দ্র বসেই মোবাইল ফোনে আলাপরচারিতা অবস্থায় ২৯টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করেছেন চান্দিনা উপজেলা নিবার্হী কর্মকতা।

স্থানীয় ও স্কুল সূত্রে জানা যায়, জেলার চান্দিনার উপজেলা সদরে অবস্থিত একটি স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চান্দিনা ডাঃ ফিরোজা পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র গত সোমবার ইংরেজী প্রথম পত্র পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে কেন্দ্র বসেই মোবাইল ফোনে বাহিরে প্রশ্ন আউট এবং উত্তর লেখা আলাপরচারিতা অবস্থায় ২৯ জন পরীক্ষার্থীর কাছ থেকে ২৯টি মোবাইল সেট উদ্ধার করা হয়েছে। পরীক্ষা কেন্দ্রের হল পর্যবেক্ষককের সামনে বসেই মোবাইল কথা বললেও কোন ব্যবস্থা নেয়নি পর্যবেক্ষকরা। অথচ পর্যবেক্ষক সঞ্জিত কুমার পাল ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমরা বুঝতে পারিনি। পরীক্ষা হলে বসেই পরীক্ষার্থীরা মোবাইলে কথা বলবে! এব্যাপারে কেন্দ্রের হল সুপার তপন দেবনাথ বলেন, আমি তখন হলে ছিলাম না। এছাড়াও পরীক্ষা কেন্দ্রে শিক্ষার্থীরা কি নিয়ে আসলো সেগুলো তার দেখার বিষয় না। সেগুলো কেন্দ্র সচিবের দায়িত্ব বলে তিনি মন্তব্য করেন। কেন্দ্রে দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা উপজেলা কৃষি অফিসার আজাদ কামাল বলেন, আমি ওই দিন পরীক্ষা কেন্দ্রেই ছিলাম না। অফিসের কাজে জেলা সদরে ছিলেন। তবে তিনি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ইকরামউল্লা চৌধুরীকে দায়িত্ব বুজিয়ে দিয়ে জেলা সদরে এসেছেন বলে কৃষি অফিসার জানান। এব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ইকরাম উল্লা চৌধুরী মোবাইল ফোনটি রিসিভ করে জরুরী একটি মিটিংয়ে আছেন বলে মোবাইল ফোনটি রেখে দেন।

এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছূক একটি সূত্র জানান, চান্দিনা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাশের হার বাড়ানোর লক্ষ্যে পরীক্ষার্থীদেরকে অসৎ উদ্দেশ্য অবলম্বন করে পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ করে দিচ্ছেন পরীক্ষা হলে কর্তব্যরত শিক্ষকরাই। যেখানে পরীক্ষা হলে প্রবেশপত্র, কলম ছাড়া প্রবেশ নিষেধ সেখানে মোবাইল ফোন নিয়ে পরীক্ষার্থীরা হলে কিভাবে প্রবেশ করে ? অথচ পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ পথে কেন্দ্র সচিবের উপস্থিতে শিক্ষার্থীদের নাম মাত্র দেহ তল্লাশী করা হচ্ছে। তবে এই ঘটনায় দায়িত্ব পালনে অবহেলার কারনে কোন ব্যক্তির বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় অভিভাবক মহলে ক্ষোভ বিরাজ করছে। এব্যারে চান্দিনা ডাঃ ফিরোজা পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রের সহকারী কেন্দ্র সচিব নূরজাহান বেগমের মোবাইলে একাধিক বার চেষ্ঠা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এব্যাপারে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মোঃ জাকির হোসেন বলেন, পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে মোবাইল ফোন গুলো উদ্ধার করি। মোবাইল ফোন নিয়ে পরীক্ষা হলে পরীক্ষার্থীরা কিভাবে আসলো এই বিষটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। দায়িত্ব অবহেলা কারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

Check Also

কুমিল্লার চান্দিনায় বাসে পেট্রলবোমা : জামায়াত-শিবিরের ৭ নেতাকর্মী জেল হাজতে

কুমিল্লা প্রতিনিধি :– কুমিল্লার চান্দিনায় বাসে পেট্রলবোমা হামলার ঘটনায় আটক জামায়াত-শিবিরের সাত নেতাকর্মী আদালতে জবানবন্দী ...

Leave a Reply