জেলার মুরাদনগর ছাড়া অন্য উপজেলায় ছাত্রলীগের কার্যক্রম স্থবির :নেপথ্যে উত্তর জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি

মোঃ শরিফুল আলম চৌধুরী, মুরাদনগর (কুমিল্লা) থেকে :

কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের দলীয় কোন্দল এখন চরম আকার ধারন করেছে। এতে সাংগঠনিক অবকাঠামো ক্রম:শ দূর্বল হয়ে পড়েছে। জানা যায়, মুরাদনগর দেবীদ্বার, চান্দিনা, দাউদকান্দি, মেঘনা, তিতাস, ও হোমনা এ ৭টি উপজেলা নিয়ে গঠিত কুমিল্লা (উঃ) জেলা সাংগঠনিক কাঠামো। অতীতে এ জেলায় বিভিন্ন ধরনের আন্দোলন সংগ্রামে ছাত্রলীগের ব্যাপক সাফল্য থাকলেও বর্তমান সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সমন্বয়হীনতা ও চলমান বিবেদের ফলে অতীতের সমস্ত অর্জন ম্লান হয়ে যাচ্ছে। জেলা উপজেলা ছাত্রলীগের বেশিরভাগ নেতা ক্ষোভ প্রকাশ করে এ কথা বলেছেন।

দলীয় সূত্র জানায়, কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সর্বশেষ কার্যনির্বাহী সভা অনুষ্ঠিত হয় গত বছরের ২৪সেপ্টেম্বর। ওই সভায় সর্বসম্মতিক্রমে মেয়াদ উত্তীর্ণ ৫টি উপজেলা কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে আহবায়ক কমিটির মাধ্যমে জরুরী ভিত্তিতে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু রহস্যজনক কারণে কেবল মাত্র মেঘনা উপজেলায় এডহক কমিটি ছাড়া বাকী ৪টি উপজেলায় কোন কমিটি আদৌ করা হয়নি। ওই উপজেলা গুলোতে কোন কমিটি না থাকায় এখন সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করতে চরম বিশৃংঙ্খলা বিরাজ করছে। এদিকে কুমিল্লা (উঃ) জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মুরাদনগরের সাইফুল ইসলাম সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক তিতাসের সারওয়ার হোসেন বাবুর মধ্যে চলছে টানাপোড়ন চাপাক্ষোভ ও চরম বৈরীভাব। একজন কোন সিদ্ধান্ত নিলে অন্যজন কে জানানোর প্রয়োজন মনে করেন না। অপর দিকে দুটি উপজেলা কমিটির কার্যক্রম চলছে জেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের চাচা ও মামা দিয়ে। চান্দিনা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জেলা শাখার সভাপতি সাইফুল ইসলাম সোহাগের নিকটাতœীয়। সেই সুবাদে কাজী মইনুদ্দিন নামে এই নেতা বহাল তবিয়তে আছেন প্রায় একযুগ ধরে। অন্যদিকে তিতাস উপজেলা ছাত্রলীগ চলছে একই জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সারোয়ার হোসেন বাবুর আরেক নিকটাতœীয় ছাইফুল আলম মুরাদকে দিয়ে।

সূত্র আরো জানায়, কুমিল্লা (উঃ) জেলা ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীন কোন্দল ও বেশ কয়েকটি উপজেলায় কোন কমিটি না থাকায় বঙ্গবন্ধু স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ও ছাত্রলীগের গেল ৬৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী কুমিল্লা (উঃ) জেলার মুরাদনগর উপজেলা ব্যতীত অন্য কোন উপজেলায় পালিত হয়নি। কুমিল্লা (উঃ) জেলা চান্দিনা উপজেলার স্থানীয় সংসদ ও সাবেক ডেপুটি স্পীকার আলী আশরাফ এমপি ছাত্রলীগের বিবদমান কোন্দলের কথার সত্যতা স্বীকার করে শুক্রবার এ প্রতিনিধি কে বলেন, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক অফিস চান্দিনায় জেলা ছাত্রলীগ ৬৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করতে এসে মিছিল করায় আমি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক কে (নাম জানিনা, আমি তাকে কখনও দেখিও নাই) সারওয়ার হোসেন বাবুকে বলি শুধু মিছিল করে নয় ছাত্রলীগের অতীত ইতিহাস আছে। এগুলো আলোচনার মাধ্যমে দেশবাসীকে জানাতে হবে। এবং আমার নির্বাচনী এলাকা চান্দিনায় কেন ছাত্রলীগের কমিটি নেই জানতে চাইলে সেইদিন কুমিল্লা (উঃ) জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বাবু কিছুক্ষন তাদের কর্মসূচীর কার্যক্রম বন্ধ করে রাখে। পরে শুনতে পেরেছি, তারা তাদের কার্যক্রম পূনরায় যথারীতি ভাবে চালিয়েছে।

এ ব্যাপারে কুমিল্লা (উঃ) জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সারওয়ার হোসেন বাবু বলেন, স্থানীয় সংসদ তার ৩৩ বছর বয়স্ক জামাতা নুরুল ইসলাম তুহিন কে চান্দিনা উপজেলার ছাত্রলীগের সভাপতি করার জন্য সুপারিশ করলে এতে আমি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র মোতাবেক পরিপন্থী বিধায় তার জামাতা কে সভাপতি করার অনিহা প্রকাশ করায় তিনি আমার উপর ক্ষোভ ও অভিমান করতে পারেন। এটা কোন অস্বাভাবিক ঘটনা না। তিনি আরও বলেন, গঠনতন্ত্র মোতাবেক শত প্রতিকূলতার মধ্যেও আগামী ১৪ জানুয়ারী শনিবার চান্দিনা উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন যথারীতি করব। তার পরই আগামী তিন মাসের মধ্যে বাকি উপজেলাগুলোর সম্মেলনের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেব। আর সেজন্য ওই সম্মেলনে স্থানীয় সংসদ আলী আশ্রাফ সাহেব কে ও উপস্থিত থাকার জন্য বলেছি। এদিকে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম সোহাগ বলেন, আমাদের মধ্যে কোন দ্বন্দ নেই। যোগাযোগে সামান্য ঘাটতি থাকলেও সংগঠনের কার্যক্রম যথারিতী ভাবে চলছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply