ফলোআপ- সরাইলে ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা, গ্রেপ্তার ২: ‘মামলায় নির্দোষ ব্যক্তিদের আসামি করার অভিযোগ’

আরিফুল ইসলাম সুমন :
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে সোহরাব উল্লাহ খুনের ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান সহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে থানায় হত্যা মামলা হয়েছে। গত সোমবার রাতে নিহতের বড় ভাই শাহজাদাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সায়েফ উল্লাহ ঠাকুর বাদী হয়ে এ মামলা করেন। মামলায় অজ্ঞাতনামা আরো ৪/৫ জনকে আসামি করা হয়েছে। এদিকে আ’লীগ নেতার ভাইয়ের খুনের মামলায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সহ ক’জন নির্দোষ ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার শাহজাদাপুর ইউনিয়নের দেওড়া গ্রামের মৃত ফরিদ উল্লাহ ঠাকুরের পুত্র সোহরাব উল্লাহ ঠাকুর (৪৫) ও একই গ্রামের রুহুল আমিনের (৫৫) মধ্যে একটি টাকা লেনদেনের বিষয় নিয়ে গত শনিবার দুপুরে বাকবিতন্ডা হয়। এর জের ধরে পরদিন রোববার সকালে দেওড়া বাজার এলাকায় দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও ইট-পাটকেল নিক্ষেপ হয়। ওইদিন বিকেলে দু’জনের বিরোধের বিষয়টি নিস্পত্তি হওয়ার কথা থাকলেও রুহুল আমিন সহ তার লোকজন আসেনি। তারা সোহরাব উল্লাহ ঠাকুরের ওপর ক্ষিপ্ত হয়। সন্ধ্যায় বাজারের পাশে স্কুল মাঠে রুহুল আমিনের নেতৃত্বে লোকজন সোহরাব উল্লাহ ঠাকুরকে ছুরিকাঘাত করে। গুরুতর অবস্থায় তাকে জেলা সদর হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের ভাই আ’লীগ নেতা সায়েফ উল্লাহ ঠাকুর বলেন, তাদের দু’জনের বিরোধ নিস্পত্তি করতেই আমি বাড়িতে এসেছিলাম। কিন্তু রুহুল আমিন ও তার লোকজন আসেননি। তারা পরিকল্পিতভাবে আমার ভাইকে খুন করেছে। রোববার সন্ধ্যায় তারা ঘটনাটি ঘটিয়ে দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে আমার বাড়ি ঘেরাও করে রাখে।

এদিকে শাহজাদাপুর ইউপি চেয়ারম্যান আ’লীগ নেতা রফিকুল ইসলাম খোকন মুঠোফোনে বলেন, আমি ষড়যন্ত্রের শিকার। এ হত্যা ঘটনার সাথে আমি জড়িত নয়। রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে আমাকে আসামি করা হয়েছে। কারণ শাহজাদাপুর ইউপি আওয়ামী লীগে আমি সম্ভাব্য সভাপতি প্রার্থী। সায়েফ উল্লাহ ঠাকুরও প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দেন। গ্রামের আকরাম খাঁর পরিবারের লোকদের দাবি, সায়েফ উল্লাহ এ খুনের ঘটনায় কিছু নির্দোষ ব্যক্তিকে আসামি করে সামাজিক স্বার্থ হাসিল করতে চায়।

সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গিয়াস উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন ইতি মধ্যে দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে ।

Check Also

আশুগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামির মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :– ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মো. হারুন মিয়া (৪৫) নামে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামির ...

Leave a Reply