কোন মেয়র প্রার্থী প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেননি : ৯ প্রার্থীই লড়বেন মেয়র পদে

কুমিল্লা প্রতিনিধি :

চুড়ান্ত লড়াইয়ে ৯মেয়র প্রার্থী ও কাউন্সিলর প্রার্থী ২৮৬জন
কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিনে কোন মেয়র প্রার্থী প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেননি। আওয়ামীলীগের ৩প্রার্থীর মধ্যে ২জন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা নির্বাচন থেকে সরে দাড়াতে পারেন এমন জল্পনা কল্পনা ছিল গতকাল থেকে।

আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী অধ্যক্ষ আফজল খান এডভোকেট সমপ্রতি এক টিভি টকশোতে তাদের নির্বাচনে অংশগ্রহনের ফলে তার বিজয়ের পথে বাধা হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওরা ছাত্রলীগ নেতা ছিল, ওরা আমাদের ছোট ভাই। আমি আশা করছি তারা ১৪ডিসেম্বরের মধ্যে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নিবে।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত চূড়ান্ত লড়াইয়ে মাঠে রয়ে গেলেন ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ভিপি নুর উর রহমান মাহমুদ তানিম ও জেলা ছাত্রলীগের সদ্য বিদায়ী সাধারন সম্পাদক আনিসুর রহমান মিঠু।

বুধবার শেষ দিন পর্যন্ত ১৫ কাউন্সিলর প্রার্থী তাদের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেছেন। শেষ পর্যন্ত লড়াইয়ে আছেন ২১৭জন সাধারন কাউন্সিলর প্রার্থী ও ৬৯জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী। আগামীকাল প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দের পর শুরু হবে চূড়ান্ত ভোটের লড়াই।

দল প্রার্থী নির্বাচনে ভুল করেছে- মিঠু

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী ছাত্রলীগের সদ্য বিদায়ী সাধারন সম্পাদক আনিসুর রহমান মিঠু বলেন, আওয়ামীলীগ প্রার্থী নির্বাচনে ভুল করেছে। শংকর হত্যার পর যে লোকটাকে দল থেকে বহিস্কার করা হল, বহিস্কারের উদ্দেশ্য হল সাধারন মানুষ যেন আমাদের কাজে ব্যথিত না হয়। সেই একই লোককে আবার মনোনয়ন দেয়ার মানে হল, হয় তখন বহিস্কার ভুল ছিল অথবা তাকে এখন দলের মনোনয়ন দেয়া ভুল হয়েছে।

আমি যদি নির্বাচন থেকে সরে দাড়াই সেক্ষেত্রে কুমিল্লার সাধারন মানুষ এবং আওয়ামীলীগের সমর্থক যারা আছেন এরা ব্যথিত হবেন এদের ভিন্ন দলের প্রার্থী খুজতে হবে সেজন্য আমি দলের স্বার্থেই নির্বাচন করছি। আওয়ামীলীগের হাই কমান্ডের সমর্থন পেয়েছেন আফজল খান আর তাই দলের সিদ্ধান্তকে উপেক্ষা করে নির্বাচন করায় দলের শৃংখলা ভংগ করছেন কিনা জানতে চাইলে এসব কথা বলেন আনিসুর রহমান মিঠু।

বার্ধক্যের কারণে তারই প্রার্থীতা প্রত্যাহার করা উচিত- তানিম

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ভিপি নুর উর রহমান মাহমুদ তানিম বলেন, আমিতো প্রত্যাহারের কথা ভাবছিনা। আমি নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার কথা ভাবছি। আমি নির্বাচন মোকাবেলা করবো ইনশাল্লাহ। মুক্তিযোদ্ধের পক্ষের শক্তিকে দূর্বল করে দেয়ার জন্য কিছু লোক কাজ করছে, তাই আমাকে মাঠে থাকতে হবে। কারন জনগনের সমর্থন ও শক্তি আমার সাথে আছে। আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ তাকে (আফজল খানকে) সমর্থন করেছেন কিন্তু আওয়ামীলীগের মাঠ পর্যায়ের কর্মীরা আমার পাশে আছেন।

যিনি আওয়ামীলীগের সমর্থন নিয়ে প্রার্থী হয়েছেন তিনি গত ১০দিন যাবৎ ঘর থেকে বের হতে পারছেন না। শারীরিকভাবে অসুস্থ্য তিনি। প্রত্যাহার তো ওনারই করা উচিত। তিনি বাধ্যক্যের কারণে দীর্ঘদিন জনবিচ্ছিন্ন ছিলেন তাই তারই উচিত নির্বাচন থেকে সরে আসা। আওয়ামীলীগের হাইকমান্ডের অনুরোধে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করছেন কিনা জানতে চাইলে নুর উর রহমান মাহমুদ তানিম একথা বলেন।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply