কুসিক নির্বাচন :প্রার্থী ভোটার কেউই ভালো নেই

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী,কুমিল্লা, ০৬ ডিসেম্বর ২০১১ :

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন আর বাকী ৩০দিন। ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) বাতিল ও সেনা মোতায়েনের দাবী নির্বাচন কমিশন অগ্রাহ্য করলে বিএনপি নির্বাচন থেকে দুরে। অর্থাৎ এবার প্রথমবারের মত কুসিক নির্বাচনে দেশের প্রধান বিরোধীদল বিএনপি অফিসিয়ালী মাঠে নেই। তবুও এদলের প্রভাবশালী নেতা মনিরুল হক সাক্কু সম্মিলিত নাগরিক ফোরামের ব্যানারে মাঠে। এদিকে জেলা বিএনপি’র বৃহৎ অংশটি কেন্দ্রের নির্দেশে নির্বাচন বয়কট করছে। দায়িত্বশীল সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, সম্মিলিত নাগরিক কমিটির প্রার্থী ও বিএনপি’র নেতাকে এ মুহুর্তে ঠেকানোর মুল দায়িত্ব জেলা বিএনপি নেতৃবৃন্দের। এ লক্ষে তারা হার্ড লাইনে। প্রয়োজনে অন্য কাউকে ভোট দেয়ার মধ্যে দিয়ে দলীয় নির্দেশ অমান্য করে প্রতিদ্বন্ধিতা করা এই বিএনপি নেতার পরাজয় নিশ্চিত করতে একরকম বদ্ধপরিকর। জেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক মিয়া বলেন, আমরা নির্বাচন বর্জন করছি। নেতা কর্মীদের ভোটাধিকার বিষয়ে তার বক্তব্য,আমরাতো নির্বাচন মানি না। সে নির্বাচনে দলীয় নেতা-কর্মীরা যেন ভোট না দেয় সেরকম নির্দেশ দেয়া হচ্ছে। ফলে নগরীর বিএনপি সমর্থিত ভোটাররা রয়েছেন দ্বিধাদ্বন্ধে। ভোটা দিবে কি দিবে না, না দিলে কাকে দিবে, বিএনপি সমর্থিত নেতাকে না অন্য কোন প্রার্থীকে? একই অবস্থা ক্ষমতাসীন আ’লীগ সমর্থিত প্রার্থীর বেলায়। অধ্যক্ষ আফজাল খান। বর্নাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ার এ নেতার। অর্ধশতক যাবত জেলায় দাপটের সাথে রাজনীতি করছেন। প্রথম দিকে কুমিল্লা সদর আসনের এমপি আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহারের প্রতিদ্বন্ধি হিসেবে ভাবা হলেও কেন্দ্রের নির্দেশে এমপি সরে দাড়ান। একই ভাবে মনোনয়নপত্র ক্রয় করেও জমা দেননি আলহাজ্ব ওমর ফারুক,আবুল কাসেম রৌশন প্রমূখ। তবে এখন পর্যন্ত মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন তরুন দু মেয়র প্রার্থী নুর-উর রহমান মাহমুদ তানিম ও এড আনিসুর রহমান মিঠু।

মনোনয়ন বাছাইয়ের কার্যক্রমে উপস্থিত প্রার্থীরা
জনশ্রুতি আছে তানিম কুমিল্লা জেলা আ’লীগের আহবায়ক আ.হ.ম মোস্তফা কামালের এবং মিঠু জেলা আ’লীগের যুগ্ন আহবায়ক হুইপ মুজিবুল হকের পছন্দের প্রার্থী। তবে এ দু’নেতা একাধীকবার বলেছেন এটা অপপ্রচার। কেন্দ্র থেকে যিনি সিগনাল পেয়েছেন সেই বর্ষীয়ান নেতার পক্ষেই তারা আছেন এবং থাকবেন। তবে সাধারন ভোটাররা রয়েছেন চরম সিদ্ধান্তহীনতায়। কেননা আফজাল খানের বাইরে তানিম,মিঠু দু’জনই আ’লীগের। অধ্যক্ষ আফজাল খান এ কারনে এখনো স্বস্তিতে নেই। আ’লীগের একাধীক প্রার্থী মাঠে এ ব্যাপারে আফজাল খান সাংবাদিকদের একবার বলছেন তারা তরুন নেতা। কেন্দের নির্দেশে তারা বসে যাবে। আবার বলছেন তারা দু’জন আ’লীগের কেউ না। কিন্তু মাঠ পর্যায়ের সাধারন নেতা কর্মীদের একটি বড় অংশ তারা দু’জনকে সমর্থন দিচ্ছে। এঅবস্থায় স্বস্তিতে নেই আফজাল খান। একই অবস্থা ভোটারদের তারা কাকে ভোট দিবেন। ফলে আ’লীগ ও বিএনপি’র (বিদ্রোহী) দু প্রার্থীর কেউই ভালো নেই। একই অবস্থা ভোটারদেরও তারা কাকে ভোট দিবেন। দু’দলের প্রার্থীও ভোটারদের এই যখন অবস্থা তখন জাতীয় পার্টি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের কেউ সুযোগ নিতে পারছে না ভোটারদের কাছ থেকে। কেননা কেউই তারা রাজনৈতি ভাবে শক্তিশালী না।

প্রার্থীতা যাচাই বাছাই শেষ

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের দু’দিন ব্যাপি যাচাই বাছাইয়ের গতকাল সোমবার ছিল শেষদিন। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটানিং অফিসার মোঃ আব্দুল বাতেন জানান, সর্বশেষ যাচাই বাছাইয়ে মেয়র পদের ১জন,সাধারন কাউন্সিলর পদের ১৯জন এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ৫জনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়। মনোনয়ন জমাদেন ১০জন মেয়র,২৪২জন কাউন্সিলর ও ৭০জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply